উলিপুরে বন্যায় পাঁচ হাজার মানুষ পানিবন্দি

উলিপুর (কুড়িগ্রাম)প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৪ জুলাই ২০১৯, ২১:৩৮

উলিপুরে তিস্তা,ধরলা ও ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হওয়ায় বন্যা দুর্গত মানুষের ভোগান্তি চরমে। প্রায় পাঁচ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

উপজেলার নাগড়াকুড়ায় প্রায় ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে তিস্তা নদীর বাম তীর রক্ষায় নির্মিত টি-বাঁধটির ১৫০ মিটার ধসে গেছে। কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড জিও টেক্সটাইল ব্যাগবোঝাই বালু ফেলে বাঁধটি রক্ষার চেষ্টা করেছে । বাঁধটি ভেঙে গেলে পাশের কয়েকটি গ্রামের শত শত বাড়ি-ঘর ও আবাদি জমি ভাঙনের মুখে পড়বে। সরকারিভাবে এখন পর্যন্ত কোনো ত্রাণ সামগ্রী দুর্গত এলাকায় পৌঁছায়নি। ফলে চরম দুর্ভোগে দিন কাটাচ্ছে বন্যাকবলিত সাধারণ মানুষ।

সরেজমিন রবিবার দুপুরে উপজেলার গুনাইগাছ ইউনিয়নের নাগড়াকুড়া টি-বাঁধে গিয়ে দেখা গেছে, পানির প্রবল বেগে বাঁধটির বিশাল অংশ ধসে গেছে। এলাকাবাসীর আশঙ্কা যেকোন মুহূর্তে বিলীন হয়ে যেতে পারে বাঁধটি।

স্থানীয়দের অভিযোগ, সম্প্রতি লাখ লাখ টাকা ব্যয় করে অপরিকল্পিতভাবে বাঁধটি সংস্কার করা হয়েছে।

কুড়িগ্রাম পাউবোর উপসহকারী প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘বালুবোঝাই জিও টেক্সটাইল ব্যাগ ডাম্পিং করে বাঁধটি রক্ষার চেষ্টা চলছে।’

থেতরাই ইউপি চেয়ারম্যন আইয়ুব আলী সরকার বলেন, ‘রামনিয়াসা, চর রামনিয়াসা, চর গোড়াইপিয়ার, জোয়ান সাতার, খারিজা নাটসালা চর হোকডাঙ্গা গ্রামের প্রায় পাঁচ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়েছে।’

এদিকে, ব্রহ্মপুত্র নদের পানি চিলমারী পয়েন্টে ৭৫ সে.মিটার, ধরলা নদীর পানি ৭৯ সে.মিটার ও তিস্তা নদীর পানি ১৯ সে.মিটার বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় উপজেলার আটটি  ইউনিয়নের নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে।

(ঢাকাটাইমস/১৪জুলাই/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :