স্কুলছাত্রীর বিয়ে বন্ধ, খাবার গেল মাদ্রাসায়

চাঁদপুর প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২০:৩৭ | প্রকাশিত : ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২০:৩৪

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া এক ছাত্রীর বাল্যবিয়ে বন্ধ করলেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বৈশাখী বড়ুয়া। এ সময় বরযাত্রীসহ অতিথিদের জন্য রান্না করা খাবার স্থানীয় একটি হাফেজিয়া মাদ্রাসায় বিতরণ এবং ছাত্রীর বাবাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলার হাটিলা পূর্ব ইউনিয়নের টঙ্গীরপাড়-নোয়াপাড়া গ্রামের মিজি বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পাওয়া ছাত্রী ইছাপুরা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী।

বাল্যবিয়ের খবর পেয়ে বরযাত্রী আসার আগেই বিয়ে বাড়িতে গিয়ে উপস্থিত হন ইউএনও। তিনি মেয়েটির শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্রসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দেখতে চাইলে সম্প্রতি নেয়া নতুন একটি জন্মনিবন্ধন দেখান তার আত্মীয়-স্বজনেরা।

পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়ে ছাত্রীর বাবা দোষ স্বীকার করেন এবং ১৮ বছর পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত মেয়েকে বিয়ে না দেয়ার অঙ্গীকার করে মুচলেকা দেন তিনি। এরপর স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জলিলুর রহমান মির্জার উপস্থিতিতে বাবার জিম্মায় দিয়ে ছাত্রীকে দিয়ে দেন ইউএনও।

এর আগে বিয়ের খাবার স্থানীয় লাওকরা হযরত আমানত শাহ ও শাহেনশাহ (রহ.) হাফিজিয়া মাদ্রাসায় বিতরণ এবং মেয়ের বাবাকে নগদ ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন ইউএনও। মেয়েটির পরিবার ও আত্মীয়-স্বজনসহ উপস্থিত লোকজনকে বাল্যবিয়ের কুফল ও বাল্যবিয়ে নিরোধ আইন বিষয়ে জানান তিনি।

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকালে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জলিলুর রহমান মির্জা দুলাল, থানা উপ-পরিদর্শক (এসআই) রমিজ উদ্দিন, সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) জিয়াউল হক ও সঙ্গীয় ফোর্সসহ অন্যান্য সরকারি কর্মকর্তা, জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকার প্রতিনিধি এবং গ্রাম-পুলিশের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

(ঢাকাটাইমস/২০ফেব্রুয়ারি/কেএম/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :