ক্যাফেইন সমৃদ্ধ পাঁচ খাবার

স্বাস্থ্য ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৪ জুলাই ২০২০, ১৩:৫০

বিশ্বব্যাপী খুবই জনপ্রিয় পানীয় কফি। পানির সাথে ফুটিয়ে রান্না করা "কফি বীজ" নামে পরিচিত এক প্রকার বীজ পুড়িয়ে গুঁড়া মিশিয়ে কফি তৈরি করা হয়। প্রতিদিনের কাজ শুরু করার আগে, দুপুরের লাঞ্চের পর অথবা অলস বিকেলে অনেকটা অভ্যাসবশতই কফি পান করার চল অনেকের মধ্যেই রয়েছে। সব ক্ষেত্রেই বিশ্বস্ত বন্ধুর কাজ করে এক কাপ কড়া কফি। এক লহমায় এনার্জি বাড়ানোর পাশাপাশি বাড়ায় কনসেনট্রেশনের ক্ষমতা এবং বিগড়ে যাওয়া মুড ভালো করে দেয়।

কফিতে ক্যাফেইন নামক এক প্রকার উত্তেজক পদার্থ রয়েছে। ৮ আউন্স কফিতে প্রায় ১৩৫ মিলিগ্রাম ক্যাফেইন থাকে। কফির উপাদান ক্যাফেইনের জন্যে কফি মানুষের উপর উত্তেজক প্রভাব ফেলে ও উদ্দীপক হিসেবে কাজ করে। এখন, চায়ের পর কফি বিশ্বের অত্যধিক জনপ্রিয় পানীয়।

বিশেষজ্ঞদের মতে একজন প্রাপ্তবয়স্কের দিনে ৪০০মিলির বেশি কফি খাওয়া একেবারেই স্বাস্থ্যকর নয়। সমস্যাটা শুরু হয়, যখন কেউ কেউ ক্যাফেইন অ্যাডিকটেড হয়ে পড়েন। অতিরিক্ত কফি বা ক্যাফেইন জাতীয় খাবার খেলে দেখা দিতে পারে ডিহাইড্রেশন এবং অস্থিরতা বা অ্যাংজাইটি। বিশেষ করে শরীরের ক্ষতি করে বসে। ক্যাফেইনের প্রধান সোর্স যে কফি এটা তো আমরা প্রায় সবাই জানি। কিন্তু জানেন কি রোজ এমন অনেক খাবারই আমরা খেয়ে থাকি, যাতে যথেষ্ট পরিমাণে ক্যাফেইন মজুত থাকে। রইল এমনই ৫ খাবারের খবর জে‌নে নিন।

চকলেট

কোকো বিনস-এ প্রাকৃতিক ক্যাফেইন থাকে। ফলে আপনার পছন্দের চকোলেটেও যথেষ্ট পরিমাণে ক্যাফেন আছে। মিল্ক চকোলেটে ক্যাফেইনের পরিমাণ কম থাকলেও, ডার্ক চকোলেটে ১০ মিলিগ্রামের বেশি ক্যাফেন মজুত থাকে। এমনকি চকোলেট আইসক্রিমেও থাকে ক্যাফেন।

সফট ড্রিংকস

বিভিন্ন রকমের সফট ড্রিংকসেও থাকে প্রচুর পরিমাণে ক্যাফেইন। বোতল পিছু ২৩ থেকে ৪১ মিলিগ্রাম ক্যাফেন থাকে। এমনকি জিমের ওয়র্কআউট সেশনের পর যে এনার্জি ড্রিংকের বোতলে চুমুক দেন সেটিও ক্যাফেন ফ্রি নয় মোটেই।

আইস টি

শুধু কফি নয়, চায়েও থাকে অল্প পরিমাণে ক্যাফেইন। এমনকি আপনার পছন্দের ফ্লেভারড আইস-টিতেও রয়েছে ক্যাফেন। প্রতি ৫০০ মিলি-তে প্রায় ৪২ মিলিগ্রাম ক্যাফেইন থাকে।

পেইনকিলার

সামান্য মাথা ব্যাথা অথবা জয়েন্টে ব্যাথা হলেও আমরা পেইনকিলার খেয়ে থাকি। অনেক সময়ে ডাক্তারের পরামর্শ না নিয়েই। কিন্তু একটা কথা হয়তো জানেন না, এই সব পেইনকিলারেও থাকে ক্যাফেন। গবেষণায় দেখা গিয়েছে সামান্য পরিমাণে ক্যাফেইন ব্যাথা দ্রুত কমাতে সাহায্য করে। এরই ভিত্তিতে পেইনকিলারে ক্যাফেইন যোগ করা হয়।

মাউথ ফ্রেশনার

চ্যুয়িং গাম বা বিভিন্ন রকমের মাউথ রিফ্রেশিং গাম প্রায়ই চিবিয়ে খান। তা হলে জেনে রাখুন এতেও রয়েছে ক্যাফেইন। কিছু কিছু ব্র্যান্ডে চ্যুয়িং গামে যে পরিমাণে ক্যাফেইন থাকে তা এক কাপ কফির সমতূল্য। পরের বার কোনও মাউথ রিফ্রেশিং গাম কেনার আগে একবার লেবেল ভালো করে দেখে নেবেন।

(ঢাকাটাইমস/১৪জুলাই/আরজেড/এজেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

স্বাস্থ্য বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :