হিমাগারে থাকা আলুর পরিমাণ জানতে চায় প্রতিযোগিতা কমিশন

নিজস্ব প্রাতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৮ অক্টোবর ২০২০, ২০:২৮

সম্প্রতি আলুর দাম কেজিতে দ্বিগুন হয়ে গেছে। এর ফলে খুচরা পর্যায়ে সর্বোচ্চ ৩৫ টাকা কেজি দরে আলু বিক্রির নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। তবুও কমেনি বাজারে আলুর দাম। এখনও প্রতি কেজি ৫০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। এমন প্রেক্ষাপটে দেশের হিমাগারগুলোতে কী পরিমাণ আলু মজুত আছে, তা জানতে জেলা প্রশাসকদের (ডিসি) চিঠি দিয়েছে বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন।

বুধবার ঢাকাটাইমকে এ বিষয়ে জানান প্রতিযোগিতা কমিশনের চেয়ারপারসন (জ্যেষ্ঠ সচিব) মো. মফিজুল ইসলাম। তিনি বলেন, আমরা ডিসিদেরকে গতকাল চিঠি দিয়েছি। কোল্ড স্টোরেজে কার কতটুকু আলু মজুত আছে সেটা জানার জন্য। চিঠি পাওয়ার দুইদিনের মধ্যে তথ্য জবাব দিতে বলেছি।

মফিজুল ইসলাম বলেন, কোল্ড স্টোরেজে আলু রাখবে এটা অপরাধ না। আমরা দেখবো যে, মজুতের উদ্দেশ্যটা কী। মজুত করতে পারে, মজুত তো করা লাগবেই, নাহলে পরের মাসে আমরা কী খাবো। কিন্তু সেই মজুত আমাদের আইন বিরোধী কি না, সেটা আমরা দেখবো। কার্টেল হয়েছে কি না, সেটা আমরা দেখব।

প্রতিযোগিতা আইন ২০১২ অনুযায়ী, কার্টেল অর্থ ‘কোনো ব্যক্তি বা ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর প্রকাশ্য বা প্রচ্ছন্ন চুক্তির মাধ্যমে কোনো পণ্য বা সেবার বাজারে একচেটিয়া ব্যবসা প্রতিষ্ঠার জন্য পণ্যের উৎপাদন, পরিবেশন, বিক্রয়, মূল্য বা লেনদেন অথবা কোনো প্রকার সেবা সীমিতকরণ, নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করা বা নিয়ন্ত্রণের উদ্যোগ করা’। প্রতিযোগিতা কমিশনের আইনে কোনো প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তি দোষী প্রমাণিত হলে তার বড় অংকের অর্থ জরিমানার সুযোগ রয়েছে।

একচেটিয়া কারবার কিংবা কারসাজির কারণে দেশের নিত্যপণ্যের বাজার প্রায়ই অস্থির হয়ে ওঠে। তাতে বিপদে পড়ে ক্রেতাসাধারণ। আর বিড়ম্বিত হয় সরকার ও কর্তৃপক্ষ। বাজারে সুষ্ঠু প্রতিযোগিতামূলক পরিবেশ সৃষ্টিতে ২০১৬ সালে ‘বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন’ গঠন করা হয়।

(ঢাকাটাইমস/২৮অক্টোবর/জেআর/ইএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :