নতুন পটল-ঢেঁড়সের বেজায় দাম, চড়া দামেই ভোজ্যতেল

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৬:১১ | প্রকাশিত : ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৪:৩২

ঢাকার বাতাসে শীতের আমেজ না থাকলেও বাজারে রয়েছে শীতের প্রভাব। রাজধানীর প্রতিটি কাঁচাবাজারে শীতের সবজির চাহিদা ও বিক্রি বেশি। শীতের সবজি ২৫ থেকে ৩৫ টাকায় বিক্রি হলেও পটল ও ঢেঁড়সের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকার ওপরে।

এদিকে সরকার নির্ধারিত দামে বিক্রি হচ্ছে না ভোজ্যতেল। বরং আগের মতোই বাড়তি দামে বিক্রি করতে দেখা গেছে।

শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ানবাজারসহ বিভিন্ন কাঁচাবাজার ও মুদি মার্কেট ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

বাজারে ৮০ থেকে ১১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে পটল। একই দামে বিক্রি হচ্ছে ঢেঁড়সও। তবে দাম বেশি হওয়ায় সব বাজারে এই দুটি সবজি মিলছে না।

রাজধানীর মালিবাগ কাঁচাবাজারের সবজি বিক্রেতা ইদ্রিস আলী বলেন, পটল ও ঢেঁড়স বাজারে নতুন আসা শুরু হয়েছে। এ কারণে এখন দাম বেশি। কয়েক দিন গেলে দাম কমে আসবে। আপাতত কিছু ক্রেতা শখের বশে এই দাম দিয়েও পটল ও ঢেঁড়স কিনে খাবেন। সবাই এই দাম দিয়ে কিনবে না। এ কারণে কম করে এনেছি। তাছাড়া পাইকারি বাজারেও কম পাওয়া যাচ্ছে।

এদিকে শীতের সবজির পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকায় দামে খুব একটা হেরফের হয়নি। আগের মতো পাকা টমেটোর কেজি বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ৩০ টাকা। শসার কেজি ২০ থেকে ৩০ টাকার মধ্যে। শিমের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ৩০ টাকা। এছাড়া মুলার কেজি বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ২৫ টাকা, বেগুনের কেজি ২০ থেকে ৩০ টাকা, পেঁপের কেজি ৩০ থেকে ৩৫ টাকা, গাজরের কেজি ১৫ থেকে ২৫ টাকা বিক্রি হচ্ছে। সপ্তাহের ব্যবধানে এ সবজিগুলোর দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। ফুলকপি, বাঁধাকপি ও লাউয়ের দামও সপ্তাহের ব্যবধানে অপরিবর্তিত রয়েছে। গত সপ্তাহের মতো ফুলকপি ও বাঁধাকপির পিস বিক্রি হচ্ছে ১৫ থেকে ২০ টাকা। লাউ বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৬০ টাকা পিস। সবজির মতো সপ্তাহের ব্যবধানে অপরিবর্তিত রয়েছে পেঁয়াজ, আলু, ডিম ও ব্রয়লার মুরগির দাম। খুচরা পর্যায়ে পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকা। আলু বিক্রি হচ্ছে ১৫ টাকা। এক ডজন ডিম পাওয়া যাচ্ছে ৯৫ টাকায়। বয়লার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৪০-১৪৫ টাকা।

এদিকে সরকার দাম বেঁধে দিলেও সেই দামে বিক্রি হচ্ছে না সয়াবিন ও পাম তেল। সরকার নির্ধারিত দাম অনুযায়ী, প্রতি লিটার সয়াবিনের (খোলা) খুচরা মূল্য ১১৫ টাকা। বোতলের প্রতি লিটার সয়াবিনের খুচরা মূল্য ১৩৫ টাকা। বোতলের ৫ লিটারের মূল্য ৬২৫ টাকা। আর পাম সুপারের প্রতি লিটারের মূল্য ১০৪ টাকা। তবে গত কয়েকদিনের মতো খুচরা পর্যায়ে খোলা সয়াবিন তেল ১৩৫ টাকা বিক্রি হচ্ছে। পাম সুপার বিক্রি হচ্ছে ১২৫ টাকা। বোতলের ৫ লিটার সয়াবিন বিক্রি হচ্ছে ৬৬০ টাকার ওপরে। কোম্পানি ভেদে ১৩৫-১৪০ টাকায় বোতলের এক লিটার সয়াবিন পাওয়া যাচ্ছে।

(ঢাকাটাইমস/১৯ফেব্রুয়ারি/এআর/কেআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :