প্রণোদনার টাকা পুঁজিবাজারে: যাচাই করবে অর্থ মন্ত্রণালয়

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৯ জুলাই ২০২১, ২০:১৮ | প্রকাশিত : ২৯ জুলাই ২০২১, ২০:১০

করোনাভাইরাস মহামারিতে সরকারের আর্থিক প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় দেয়া ঋণের টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের অভিযোগের বিষয়টি অর্থ মন্ত্রণালয় যাচাই করবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি বলেছেন, এই বিষয়ে অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগটি সম্পর্কে আগে জানতে হবে। যাচাইয়ের পরে আগামী সভায় এর জবাব দেয়া হবে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে অনলাইন ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন মন্ত্রী।

সম্প্রতি কয়েকটি গণমাধ্যমে প্রণোদনার টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ হওয়ায় বাজারে অস্থিরতা তৈরি হয়েছে মর্মে খবর প্রকাশিত হওয়ায় এ সম্পর্কে অর্থমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়। এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘করোনার প্রাদুর্ভাবে বিপর্যস্ত অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে যে প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে সরকার। তার টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করার প্রশ্নই আসে না। তারপরও বিষয়টি নিয়ে যখন প্রশ্ন উঠেছে, অবশ্যই খতিয়ে দেখা হবে।

‘বিদেশ থেকে যারা রেমিট্যান্স পাঠায় তাদের আমরা ২ শতাংশ প্রণোদনা দিচ্ছি। যারা টাকা পাঠান এবং যারা এখানে সেই টাকা রিসিভ করেন তারা সে টাকা পুঁজিবাজারেও ব্যয় করতে পারবেন। সে কারণে পুঁজিবাজারে টাকা গেছে বলে আমরা জানি। প্রণোদনার প্যাকেজের ঋণের টাকা শেয়ারবাজারে বিনিয়োগের বিষয়ে তথ্য আমি পাইনি।’

মুস্তফা কামাল বলেন, ‘কোভিড মোকাবেলায় কোন খাতে কত অর্থ ব্যয় হবে, তা সুনির্দিষ্ট করে দেয়া আছে। নিয়ম অনুযায়ী, এক খাতের টাকা অন্য খাতে খরচ করা যায় না। আমি বিশ্বাস করি, এ ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে না। বিষয়টি আমার জানা নেই। যেহেতু বাংলাদেশ ব্যাংকের উদ্ধৃতি দিয়ে খবরটি প্রকাশিত হয়েছে, ফলে আমি খতিয়ে দেখব।

এর আগে গত বছরে সাড়ে ৪ শতাংশ সুদে প্রায় ৩০ হাজার কোটি টাকা ঋণ দেয় ব্যাংকগুলো। করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত শিল্প ও সেবা খাতের ব্যবসায়ী এবং শিল্পোদ্যোক্তাদের এই ঋণ দেয়া হয়। আর ক্ষুদ্র ও মাঝারি খাতের ব্যবসায়ীদের ৪ শতাংশ সুদে দেয়া হয় প্রায় ১৫ হাজার কোটি টাকা। এসব ঋণের সুদহার ছিল ৯ শতাংশ। বাকি সুদের টাকা ভর্তুকি দেয় সরকার।

(ঢাকাটাইমস/২৯জুলাই/এসআই)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :