সরবরাহ বাড়ায় কমেছে শীতের সবজির দাম

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:২৯ | প্রকাশিত : ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:২৭

রাজধানীর কাঁচাবাজারে বেড়েছে শীতকালীন সবজির সরবরাহ। এর প্রভাব পড়েছে দামেও। গত সপ্তাহের তুলনায় বেশির ভাগ সবজির দাম কমেছে। কোনো কোনো সবজির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। এ সপ্তাহে মাছ-মাংস ও ডিমের দাম গত সপ্তাহের মতোই। কিছুটা কমেছে ব্রয়লার মুরগির দাম।

বৃহস্পতি ও শুক্রবার রাজধানীর রায়েরবাজার, ধানমন্ডি এলাকার জিগাতলা বাজার এবং আশেপাশের কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে এই চিত্র।

রায়েরবাজারে সবজি বিক্রেতা রহিম আলী বলছিলেন, আগের সপ্তাহের তুলনায় এই সপ্তাহে বাজারে শীতকালীন সবজির সরবরাহ অনেক বেড়েছে। এজন্য দামও কমেছে। তিনি আশা করছেন, আগামী সপ্তাহে সরবরাহ আরও বাড়লে শীতের শাক-সবজি ক্রেতাদের নাগালে চলে আসবে।

সরেজমিনে দেখা যায়, প্রতিটি ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে ৪০-৫০ টাকায়, লাউ পিস প্রতি ৬০ টাকা, কাঁচামরিচ প্রতিকেজি ৮০ টাকা, সিম ৪০ টাকা, মুলা ৪০ টাকা, করলা ৬০ টাকা, পটল ৬০ টাকা, গাজর ৮০ টাকা, ঢেরস ৫০ টাকা, সালগম ৪০ টাকা, নতুন আলু ৭০ টাকা, বেগুন ৫০ টাকা, টমেটো ১৩০ টাকা, পেঁয়াজ ৬০ টাকা, দেশি আদা ৮০ টাকা, হাইব্রিড আদা ১২০ টাকা, রসুন ১৪০ টাকা কেজি দরে।

এর মধ্যে গত সপ্তাহের তুলনায় ফুলকপি, লাউ ও নতুন আলুর দাম কিছুটা বেশি। দাম কমেছে কাঁচামরিচ, মুলা, সিম, লেবু ও টমেটোর। আগের সপ্তাহের তুলনায় সবধরনের শাকের দামও কমেছে।

মাছের বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্রায় সব মাছের দামই অপরিবর্তিত আছে। আজকের বাজারে কই মাছ প্রতি কেজি ৭০০ টাকা, টেংরা ৬০০ টাকা, পাব্দা ৮০০ টাকা, ইলিশ ১২০০, চিংড়ি ৬০০-৭০০ টাকা, তেলাপিয়া ও পাঙ্গাস ১৬০-১৮০ টাকা, শিং মাছ ৪৫০-৬৫০ টাকা, রুই ২৮০-৩০০ টাকা, বাচা ১০০০ টাকা, বাইম ৮০০ টাকা, পোয়া মাছ ৩০০-৪০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকা কেজি দরে, যা আগের সপ্তাহের তুলনায় কেজিতে ১০ টাকা কমেছে। সোনালি মুরগির দাম প্রতিকেজি ২৬০ টাকা। গরুর মাংস প্রতি কেজি ৫৮০ টাকা, খাসির মাংস ৯০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। মুরগির ডিম প্রতি হালি ৩৫ টাকা ও হাসের ডিম ৬০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। সয়াবিন তেল প্রতি লিটার ১৬০ টাকা, সরিষার তেল প্রতি লিটার ২৯০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। অপরিবর্তিত আছে সব ধরনের চালের দাম।

তবে সবজির বাজারে কিছুটা স্বস্তির আভাস পাওয়া গেলেও বেশির ভাগ নিত্যপণ্য এখনও চড়ামূল্যে কিনতে হচ্ছে। রায়ের বাজারে ক্রেতা জিন্নাহ বিশ্বাস ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘শাক-সবজির দাম কিছুটা কমলেও বেশির ভাগ নিত্যপণ্যে অনেক বাড়তি টাকা গুনতে হচ্ছে ক্রেতাদের। আমাদের মতো মধ্যবিত্তরা প্রতিনিয়ত দ্রব্যমূল্যের এই ঊর্ধ্বগতি সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে।’

(ঢাকাটাইমস/০৩ডিসেম্বর/এনএএস/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :