পদ্মাসেতুর এনএফটি প্রধানমন্ত্রীকে উপহার দিতে চান আইটি উদ্যোক্তা

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ০২ জুলাই ২০২২, ১৭:৩৮ | প্রকাশিত : ০২ জুলাই ২০২২, ১৬:৪৪

স্বপ্নের পদ্মা সেতু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে ২৫ জুন উদ্বোধন হয়েছে। যা স্বাধীনতার ৫০ বছরে নিজস্ব অর্থায়নে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় স্থাপনা। এতে বিশ্ববাসীর কাছে শেখ হাসিনা পদ্মসেতুর মতো দৃষ্টান্ত স্থাপন করে আত্মবিশ্বাস ও দূরদর্শিতার পরিচয় দিয়েছেন।

এদিকে ২৫ জুন পদ্মাসেতুর উদ্বোধনের দিন আরও এক নজির গড়ল বাংলাদেশের এক তরুণ আইটি উদ্যোক্তা। ২৫ জুন বাংলাদেশ সময় সকাল ১০টায় ইন্টারনেটের আধুনিক দুনিয়ার থার্ড ওয়েবে লিপিবদ্ধ করলো পদ্মা সেতুর ডিজিটাল স্মারক বা পদ্মাসেতুর এনএফটি। যার ফলে ব্লকচেইন প্রযুক্তির দুনিয়ায় যুক্ত হলো পদ্মা সেতুর সাফল্য গাঁথা।

বিশ্বের বড় বড় দেশ যারা তথ্য -প্রযুক্তিতে এগিয়ে, তারা ইতিমধ্যে ইন্টারনেটের থার্ড ওয়েব নিয়ে কাজ শুরু করেছে। আর পদ্মাসেতুর এনএফটি করে বাংলাদেশও যে পিছিয়ে নেই তারই জানান দিলো বাংলাদেশের তরুণ আইটি উদ্যোক্তা আব্দুল্লাহ আল ফুয়াদ (ত্বহা)। এতে মেটাভার্সের ডিজিটাল দুনিয়ায় পদ্মাসেতুও চিরভাস্বর হয়ে অস্থান পেল।

বাংলাদেশের এই তরুণ উদ্যোক্তা জানান, বিশ্ব আমরা যে ইন্টারনেট ব্যবহার করছি তা মূলত ইন্টারনেটের দ্বিতীয় স্তর বা সেকেন্ড ওয়েব। তবে বিশ্বে যেসব দেশ ইন্টারনেট দুনিয়ায় এগিয়ে তারা ইন্টারনেটের থার্ড ওয়েব নিয়ে কাজ করছে বা কিছু জিনিস শুরু করে দিয়েছে।

এছাড়া ইন্টারনেটের সেকেন্ড ওয়েব থেকে থার্ড ওয়েব আরও বেশি বিস্তার ও এখানে বাংলাদেশিদের সুযোগ রয়েছে নতুন নতুন জিনিস তৈরি করার। পদ্মাসেতুর এনএফটি ছাড়াও তিনি আর বেশ কিছু থার্ড ওয়েবে আইটি রিলেটেড কাজ করছে বলে জানান তিনি। যা কিনা আরও নতুন চমক হয়ে আসবে।

তিনি আরও বলেন, আমরা সব সময়ই চেয়েছি প্রযুক্তি দুনিয়ায় পদ্মাসেতুর সাফল্যকে চিরস্মরণীয় করে রাখতে। এরই ফলশ্রুতিতে ২০২২ সনের সঙ্গে মিল রেখে থার্ড ওয়েবে ২০২২টি ডিজিটাল স্মারক লিপিবদ্ধ করেছি। আমরা এই অমূল্য ২০২২টি স্মারককের সর্বপ্রথম স্মারকটি পদ্মাকন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দিতে চাই।

এনএফটি হলো একটি ডিজিটাল মূল্যবান সম্পদ। এনএফটির মূল বিষয়টি হলো এর অমোচনীয়তা অর্থাৎ যা মুছে ফেলা সম্ভব নয়। এজন্যই এট অমূল্য এটি একটি ডিজিটাল স্মারক যার মালিকানা অর্জন করা সম্ভব এবং এটি ব্লকচেইন এ সুরক্ষিত ও সংরক্ষিত। ২০২২টি লিপিবদ্ধ স্মারকই সংরক্ষিত। আর বাড়ানো বা কমানোর উপায় নেই।

(ঢাকাটাইমস/২জুলাই/কেআর/এসকেএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :