চীন কোভিড নীতি শিথিল করায় চাঙ্গা তেলের বাজার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৬:০৫

সম্প্রতি গণবিক্ষেভের মুখে কোভিড বিধি নিষেধ শিথিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে চীন। এরই মধ্যে প্রভাব লক্ষ্য করা গেছে আন্তর্জাতিক তেলের বাজারে। চীনের কোভিড নীতির কারণে গত ছয় মাস ধরেই আন্তর্জাতিক তেলের বাজারে বড় রকমের উত্থান-পতন দেখা গেছে।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, চীন কোভিড নীতি শিথিল করায় শুক্রবারই তেলের বাজারে মিশ্র পরিস্থিতি দেখা গেছে। এ ধরণের সিদ্ধান্তের কারণে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতিতে চাহিদা পুনরুদ্ধার হতে পারে।

শুক্রবার প্রতি ব্যারেল ব্রেন্ট ক্রুড তেলের দাম ২০ সেন্ট বেড়ে ৮৭ দশমিক ০৮ ডলার হয়েছে, শতকরা হিসেবে এই দিন ব্রেন্ট ক্রুডের দাম বেড়েছে দশমিক ২৩ শতাংশ। অন্যদিকে, জ্বালানি তেলের অপর বেঞ্চমার্ক ইউএস ওয়েস্ট টেক্সাস ইন্টারমিডিয়েট (ডব্লিউটিআই) অপরিশোধিত তেলের দাম প্রতি ব্যারেলে ৬ সেন্ট বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছে ৮১ দশমিক ৩৪ ডলার। শতকরা হিসেবে এ দিন প্রতি ব্যারেল ডব্লিউটিআইয়ের দাম বেড়েছে দশমিক ০৭ শতাংশ

পরপর তিন সপ্তাহ পতনের পর উভয় মানদণ্ডই তাদের প্রথম সাপ্তাহিক লাভের পথে ছিল।

চীন আগামী দিনে তার কোভিড-১৯ কোয়ারেন্টাইন প্রোটোকলগুলি সহজ করার এবং গণ পরীক্ষা হ্রাস করার ঘোষণা দিতে প্রস্তুত বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রের বরাত দিয়ে রয়টার্স জানিয়েছে।

আইএমএফের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ক্রিস্টালিনা জর্জিয়েভা শুক্রবার বলেছেন, চীনের কোভিড কৌশলের আরও একটি ক্রমাঙ্কন অর্থনীতির পুনরুদ্ধারকে টিকিয়ে রাখতে এবং ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য গুরুত্বপূর্ণ হবে।

এএনজেড রিসার্চের বিশ্লেষকরা একটি নোটে বলেছেন, ‘ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য কঠোর ব্যবস্থার অধীনে তেলের চাহিদা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, বর্তমানে তেলের চাহিদা প্রতিদিন ১৩ মিলিয়ন ব্যারেল, যা গড় থেকে ১ মিলিয়ন ব্যারেল কম।’

এদিকে, কূটনীতিক এবং রয়টার্সের দেখা একটি নথি অনুসারে, ইউরোপীয় ইউনিয়নের সরকারগুলি অস্থায়ীভাবে রাশিয়ান সামুদ্রিক তেলের প্রতি ব্যারেল মূল্য ৬০ ডলারে রাখতে সম্মত হয়েছে এবং বাজার মূল্যের চেয়ে ৫ শতাংশের নিচে রাখার জন্য একটি সমন্বয় ব্যবস্থার সঙ্গে সম্মত হয়েছে।

শুক্রবারের মধ্যে সমস্ত মার্কিন সরকারকে লিখিত পদ্ধতিতে চুক্তিটি অনুমোদন করতে হবে। তবে পোল্যান্ড এখনো নিশ্চিত করেনি যে তারা এই চুক্তিকে সমর্থন করবে কিনা।

বোফা গ্লোবাল রিসার্চ বলেছে, রাশিয়া যদি উল্লেখযোগ্যভাবে কম তেল উৎপাদন করে তাহলে তেলের দাম বাড়তে পারে। এমনকি রাশিয়ান তেলের উৎপাদন ২০২৩ সালের জন্য মোট ১০ মিলিয়ন বিপিডি হবে, যখন আন্তর্জাতিক শক্তি সংস্থা ৯.৫৯ মিলিয়ন বিপিডি আউটপুট পেনসিল করেছে।

(ঢাকাটাইমস/০২ডিসেম্বর/ এসএটি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :