কিডনি সুস্থ রাখবে রান্নায় যেসব তেল খেলে

ফিচার ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৪ জানুয়ারি ২০২৩, ০৯:৪১

রান্নায় তেল ব্যবহার অপরিহার্য। মাছ ভাজি গরম ভাত না হলে বাঙালির রসনা তৃপ্তি হয় না। ভাজাভাজির জন্যে চাই স্বাস্থ্যকর তেল। প্রয়োজন মতো তেল খাওয়া কিন্তু স্বাস্থ্যের জন্যও দরকারি। অস্বাস্থ্যকর তেল ব্যবহারে নানা রকম স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি হতে পারে। তেল খাওয়ার অসুবিধে এড়াতে যদি তেল ছাড়া খাবার খান তাহলে ভুল করছেন। বিশেষজ্ঞদের মতে, এতে ওমেগা ৩ ফ্যাটগুলো মস্তিষ্কের বিকাশ, হরমোন উত্পাদন, সেলুলার স্বাস্থ্য এবং ইমিউন সিস্টেমের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। তাই আপনার এমন তেল খাওয়া উচিত যাতে ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, এই তেলের হাত ধরে হাজারও রোগ বাসা বাঁধে আমাদের শরীরে৷ তেল শরীরের ক্ষতি যেমন করে, তেমনই কাজেও লাগে। তাই পুষ্টিবিদদের মতে এমন কিছু তেল আছে যা কিডনি ড্যামেজ থেকে রক্ষা করে। কিডনি মানুষের শরীরের একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। এই অঙ্গটি বহু জটিল কাজ করে। দেহে বিপাকের ফলে নানা ক্ষতিকর পদার্থ তৈরি হয়। তা শরীর থেকে বের করে দেয় কিডনি। এটাই কিডনির মূল কাজ। এছাড়াও ব্লাড প্রেশার নিয়ন্ত্রণ করা থেকে শুরু করে নানা হরমোন তৈরি করে এই অঙ্গ।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, কিডনির নানা অসুখ আমাদের ঘিরে রেখেছে। খাবারদাবার ঠিক না থাকা থেকে শুরু করে ভুল জীবনযাত্রা ও কিছু রোগ একসঙ্গে এই অঙ্গের পিছনে পড়েছে। তবে চিন্তা নেই, এমন কিছু তেল রয়েছে যা খেলে কিডনির অসুখে কার্যকরী।

চিকিৎসকের মতে, তেল শরীরের জন্য খুবই উপকারী। এতে থাকে এসেনশিয়াল ফ্যাট। তবে বেশি পরিমাণে খেলে তা শরীরের জন্য় ক্ষতিকর। এক্ষেত্রে হাই ফ্যাট কোলেস্টেরল বাড়ায়, ব্লাড প্রেশার বৃদ্ধি করে। এই কারণে হার্ট থেকে কিডনির অসুখ হতে পারে।

তবে আপনি চাইলে কিছু তেল খেতে পারেন যা কিডনিকে সুস্থ করে। এবার সেই সকল কুকিং অয়েল সম্পর্কে জানা যাক-

অলিভ তেল

অলিভ তেলের গুণ নিয়ে নতুন করে কিছু বলার নেই। এই তেল অত্যন্ত উপকারী। এই তেল পারে নানা জটিল সমস্যার সমাধান করতে। পুষ্টিবিজ্ঞানীদের মতে, এই তেলে রয়েছে মোনো স্যাচুরেটেড ফ্যাট। সেই ফ্যাট কোলেস্টেরল হু হু করে কমায়। এবার কোলেস্টেরল কমার সঙ্গে সঙ্গে হার্টের রোগে পড়ার আশঙ্কা কমে। ঠিক তেমনই কিডনিও সুস্থ থাকতে পারে। এবার থেকে তাই পারলে অলিভ তেল খাওয়ার চেষ্ট করুন।

তিসির তেল

তিসির তেল শরীরের জন্য খুবই ভালো। এই তেলে রয়েছে নানা উপকারী উপাদান। তাই এই তেল নিয়মিত ব্যবহার করা দরকার। দেখা গিয়েছে যে কিডনির জন্য এই তেল দারুণ কার্যকরী। বিভিন্ন গবেষণা বলছে, এই তেল কিডনিকে সহজে কাজ করতে সাহায্য করে। তাই কিডনি সুস্থ হয়ে ওঠে। তাই এই তেল আপনি নিয়মিত খান। তবেই ভালো থাকতে পারবেন।

রাইস ব্র্যান তেল

অনেকেই রাইস ব্র্যান তেল খেতে চান না। তবে দেখা গিয়েছে যে এই তেল কিন্তু শরীরের জন্য খুবই ভালো। এই তেলে এমন একটি উপাদান রয়েছে যা শরীর থেকে কোলেস্টেরল শুষে নিতে পারে। এছাড়া এই তেল ক্যালশিয়ামকে অতিরিক্ত মাত্রায় শরীরে জমতে দেয় না। ফলে কিডনিতে স্টোন হওয়ার আশঙ্কা কয়েকগুণ কমতে পারে। তাই আপনি এই তেল অবশ্যই খেতে পারেন। কোনও সমস্যা নেই খাওয়ার ক্ষেত্রে।

বাদাম তেল

বাদামের তেল এখন বাজারে মেলে। অবশ্য কিছুটা দাম বেশি। তবে আপনার পকেটে সইলে এই তেল অনায়াসে খাওয়া যায়। এই তেলে রয়েছে মোনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট। এই ফ্যাট ওজন বাড়তে দেয় না। এমনকী ডায়াবিটিসেও খুব ভালো। এবার আপনারা এতদিনে নিশ্চয়ই জেনে গিয়েছেন যে কিডনির সরাসরি ক্ষতি করে দেয় ডায়াবিটিস। তাই এই অসুখ নিয়ে সাবধান আপনাকে থাকতে হবে। তবেই বৃক্ক রক্ষা পাবে। তাই বাদাম তেল খেতে পারেন।

সানফ্লাওয়ার তেল

এখন সানফ্লাওয়ার তেল সর্বত্র পাওয়া যায়। এই তেল কিন্তু শরীরের জন্য উপকারী। দেখা গিয়েছে যে এরমধ্যে রয়েছে কম পরিমাণে স্যাচুরেটেড ফ্যাট। তাই কিডনি রোগীদের জন্য অবশ্যই ভালো হতে পারে এই তেল। এবার থেকে তাই সূর্যমুখীর তেল পাতে রাখতেই পারেন। আশা করছি ভালো থাকবেন।

প্রতিদিন কতটুকু তেল খাবেন

যতই ভালো তেল খান না কেন, তা খেতে হবে মাপে মাপে। তাই বিশেষজ্ঞরা বলে থাকেন প্রতিদিন খুব কম পরিমাণে তেল খাওয়ার কথা। অংকের হিসাবে ২০ থেকে ২৫ গ্রাম তেল রোজ খাওয়া যায়। তবে সাধারণের বোঝার স্বার্থে সহজে বলা যায়, ৪ থেকে ৫ চা চামচ তেল প্রতিদিন খেতে পারেন। এই নিয়মেই ভালো থাকবেন।

ঢাকাটাইমস/২৪ জানুয়ারি/আরজেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফিচার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :