সাবেক সেনা কর্মকর্তার চুরি হওয়ার পিস্তল চার বছর পর উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ০৪ জুন ২০২৩, ১৭:০১

সাবেক সেনা কর্মকর্তার বাসায় চার বছর আগে চুরি হওয়া পিস্তল উদ্ধার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেটিগেশন (পিবিআই)। এ ঘটনায় অভিযুক্ত আসামি মো. তারেক হাওলাদারকে গ্রেপ্তার করেছে পিবিআই।

সোমবার দুপুরে পিবিআইয়ের ঢাকা মেট্রো উত্তরের কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান পিবিআইয়ের বিশেষ পুলিশ সুপার মো. জাহাঙ্গীর আলম।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ঢাকার অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. সামছুল হুদা। ২০১৯ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর তিনি গুলশানের ল্যাব এইড হাসপাতালের চেম্বার প্রাকটিস করার জন্য বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে বের হন। তখন তার বাসার অন্যান্য সদস্যরা দেশের বাইরে অবস্থানরত ছিলেন। তাই তিনি ফ্ল্যাটটি তালাবদ্ধ করে রেখে যান।

ঘটনার দিন দিবাগত রাত ১১টার দিকে বাসায় ফিরে রুমের দরজার তালা খোলার পর ভিতর থেকে বন্ধ পান। পরবর্তীতে পাশের বাসার কেয়ারটেকার মাহবুব ও নিয়মিত মিস্ত্রি মো. মিজানকে ডেকে আনেন। মিস্ত্রি দরজার লক খোলার চেষ্টা করার সময় দেখেন ভিতর থেকে লক করা। তখন নিরাপত্তাকর্মী মো. সোহাগ সিড়িঁর সাইড দিয়ে প্রবেশ করে পেছনের রুমের গ্রিল কাটা দেখতে পায়।

তখন সামছুল হুদার গাড়ি চালক মো. তরিকুল ইসলাম রুমের পেছনে কাটা গ্রিলের ভেতর দিয়ে রুমে ঢুকে দরজা খুলে দেন। তখন বাসার ভিতরে প্রবেশ করে দেখেন তার বেডরুমের আলমারির ড্রয়ার বিছানায় পড়ে আছে। আর আলমারি খোলা ও জিনিসপত্র তছনছ করা। আলমারির ড্রয়ারে রাখা ডাচ বাংলা ব্যাংক থেকে ৮ সেপ্টেম্বর থেকে উঠানো নগদ ১৮ লাখ টাকা, বাসা ভাড়াসহ গ্রামের বাড়ি থেকে আনা নগদ ১৪ লাখ টাকা, চারটি বিদেশী হাত ঘড়ি (যার দাম) দুই লাখ টাকা, দুই হাজার কানাডিয়ান ডলার. ১০০ ইউএস ডলার, এবং ৪৫ ভরি স্বর্ণালংকার যার দাম সাড়ে ২২ লাখ টাকাসহ মোট নগদ সাড়ে ৫৬ লাখ টাকা। আলমারীর ড্রয়ার থেকে তার নামে লাইসেন্সকৃত একটি পিস্তল মডেল-৮১ এফএস (ইতারির তৈরি) নম্বর-এফ -৭৬৪৭৬ ডব্লিউ, কার্তুজ ৫০ টি ও দুইটি ম্যাগজিন চুরি হয়েছে।

পিবিআইয়ের ভাষ্যমতে, এ ঘটনায় ওই সাবেক সেনা কর্মকর্তা ভাষানটেক থানায় ১৮ সেপ্টেম্বর একটি চুরির মামলা করেন। ভাষানটেক থানার মামলা নম্বর-১৬/২১০। ধারা-৪৫৭/৩৮০ পেনাল কোড। ভাষানটেক থানা পুলিশ ২০১৯ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে ২০২০ সালের ১১ মার্চ পর্যন্ত তদন্ত করেন। পরে বাদীর আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালতের আদেশে মামলাটির তদন্তভার পিবিআইতে ন্যস্ত করা হয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআই ঢাকা মেট্রো উত্তরের পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ জুয়েল মিঞার নেতৃত্বে সঙ্গীয় পুলিশ পরিদর্শক মো. মাহমুদুর রহমান, উপপরিদর্শক (এসআই) মো. রবিউল ইসলাম এবং সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) মো. আলমগীর হোসেনের সমন্বয়ে একটি চৌকস দল সন্দিগ্ধ আসামি মো. তারেক হাওলাদারকে গত ৩ জুন সন্ধ্যা পৌনে ৮টার দিকে তার গৌরনদীর বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে পিবিআই।

গ্রেপ্তারকৃতের বরাত দিয়ে পিবিআইয়ের বিশেষ পুলিশ সুপার বলেন, গ্রেপ্তারকৃত তারেক পিবিআইয়ের জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করে যে, ব্রিগেডিয়ার সামছুল হুদার বাসায় গ্রিল কেটে তিনি নিজেই চুরি করেছেন। ওই চোরাইমালের মধ্যে থাকা অস্ত্রটি (পিস্তল) তার নিজ বসতঘরের রান্না ঘরে মাটির নিচে পুতে রেখেছে।

তারেকের স্বীকারোক্তি মোতাবেক স্থানীয় লোকজনদের সম্মুখে টর্চ লাইট এবং বিদ্যুতের আলোতে মো. তারেক হাওলাদারের দেখানো মতে তার বসত বাড়ির রান্না ঘরের মেঝেতে অনুমান তিন ফুট মাটি খুঁড়ে সবুজ রংয়ের পলিথিনের মধ্যে পুরানো সাদা কাপড়ের ব্যাগ দিয়া পেঁচানো অবস্থায় ওই মামলার লুন্ঠিত একটি বিদেশি পিস্তল উদ্ধার করা হয়।

পিবিআই জানায়, ওই পিস্তলটি উদ্ধারের পরে জব্দ তালিকামুলে জব্দ করা হয়। আর আসামি মো. তারেক হাওলাদার ওই মামলায় লুন্ঠিত একটি বিদেশি পিস্তল অবৈধভাবে নিজ হেফাজতে রেখে অপরাধ করেছেন। তাই তার বিরুদ্ধে পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ জুয়েল মিঞা বাদী হয়ে বরিশালের গৌরনদী থানায় একটি মামলা করেন। গৌরনদী থানার মামলা নম্বর-০৫।

পিবিআইয়ের দাবি, এর আগেও মো. তারেক হাওলাদারের বিরুদ্ধে ভাষানটেক থানায় ১৯৯০ সালের মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা, ভাষানটেক থানার মামলায় ৭(ক) ১৯৯০ সালের মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা রয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃত মো. তারেক হাওলাদার বরিশাল জেলার গৌরনদী থানার নোয়াপাড়া গ্রামের মো. শাহ আলম হাওলাদারের ছেলে।

(ঢাকাটাইমস/০৪জুন/এএ/কেএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজধানী বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

রাজধানী এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :