একসঙ্গে তিন সন্তানের জন্ম দিলেন প্রসূতি

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩:৪৪ | প্রকাশিত : ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩:৩৬

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে একসঙ্গে তিন সন্তানের জন্ম দিয়েছেন সোমা আক্তার নামে এক প্রসূতি। তাদের মধ্য দুটি ছেলে ও একটি কন্যাসন্তান রয়েছে।

শুক্রবার রাতে শহরের স্বদেশ হাসপাতাল নামের একটি প্রাইভেট হাসপাতালে সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে শিশু তিনটির জন্ম হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন ওই হাসপাতালের ওটি ইনচার্জ মোছাম্মৎ মোমেনা বেগম।

সোমা আক্তার নরসিংদী জেলার রামনগর গ্রামের সৌদি প্রবাসী রবিন খানের স্ত্রী।

এ ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর বাচ্চাগুলো দেখতে উৎসুক জনতা হাসপাতালে ভিড় করতে দেখা গেছে। বর্তমানে তিন বাচ্চাসহ গৃহবধূ সোমা প্রসূতি বিভাগে রয়েছেন।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, সোমা আক্তারকে শুক্রবার সকালে প্রসূতি বিভাগে ভর্তি করানো হয়। রাতে সিজারিয়ান অপারেশন করেন ডা. হরিপদ সাহা ও ডা. রাজিব। অপারেশনের মাধ্যমে তারা এক এক করে তিনটি ফুটফুটে বাচ্চা বের করে আনেন।

এর আগে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি সকালে শহরের কালিপুর এলাকার ইটালি প্রবাসী সজল মিয়ার স্ত্রী তানজিনা বেগম ওই হাসপাতালে সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে তিনটি কন্যাসন্তান জন্ম দিয়েছেন।

এ বিষয়ে গৃহবধূ সোমা আক্তারের ছোট ভাই সহিদ মিয়া বলেন, আমার বোনের আগেই দুটি কন্যা সন্তান রয়েছে। তাদের সংসারে একজন ছেলের দরকার ছিল। আজ মহান আল্লাহ দুটি ছেলে ও একটি কন্যাসন্তান দিয়েছেন। আমরা সবাই অনেক খুশি। তাদের বাবা সৌদি প্রবাসী। প্রবাস থেকে তিনি ভিডিও কলে বাচ্চাদের দেখে খুব খুশি হয়েছেন।

স্বদেশ হাসপাতালের ওটি ইনচার্জ মোছাম্মৎ মোমেনা বেগম বলেন, নবজাতকদের মধ্যে দুটি ছেলে ও একটি কন্যাসন্তান হয়েছে। বাচ্চাগুলোর মা শারীরিকভাবে কিছুটা অসুস্থ রয়েছেন।

হাসপাতালের পরিচালক সাদ্দাম অপূর্ব বলেন, গৃহবধূ সোমা আক্তারের অপারেশন আমাদের হাসপাতালে করতে চাইনি। তাকে ডাক্তার ঢাকায় রেফার্ড করলেও তিনি যাননি। এই হাসপাতালে তিনি নিয়মিত চিকিৎসা নিয়েছেন তাই তার বিশ্বাস ছিল এখানে ভালো অপারেশন হবে। এছাড়া এক সপ্তাহ আগে আমাদের হাসপাতালে সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে এক গৃহবধূ তিন সন্তান জন্ম দিয়েছিল। তাই তাদের ভরসা ছিল।

(ঢাকাটাইমস/২৪ফেব্রুয়ারি/প্রতিনিধি/পিএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

সারাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :