ফেসবুক হ্যাক করে ধর্মীয় উস্কানি

মাগুরা প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৮ আগস্ট ২০১৯, ১৭:৩৩

মাগুরার বাসিন্দা হিন্দু ধর্মাবলম্বী একজনের ফেসবুক আইডি হ্যাক করে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা ছড়ানোর চেষ্টার তথ্য পাওয়া গেছে। ভুক্তভোগী ব্যক্তি থানায় এ বিষয়ে সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

ভুক্তভোগী মিথুন কুমার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে কম্পিউটার অপারেটর হিসেবে কাজ করেন। তার নামে থাকা ফেসবুক আইডি হ্যাক করে তার নামে একটি ভুয়া পেজ খোলা হয়েছে। এরপর সেখান থেকে ইসলাম ধর্ম নিয়ে আপত্তিকর নানা লেখা পোস্ট করা হচ্ছে। জানতে পেরে পেজটি রিপোর্ট করার পাশাপাশি ঢাকার মিরপুর থানায় ডায়েরি করেছেন তিনি।

মিথুনের অভিযোগ, এটি সংঘবদ্ধ একটি চক্রের কাজ। তারা আপত্তিকর পোস্ট দিয়ে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করে হিন্দুদের ওপর হামলার চক্রান্ত করছে। রবিবার মাগুরার সাংবাদিকদের তিনি জানান, গত ১৫ আগস্ট তিনি তার ফেসবুক পেজে লগইন করতে পারছিলেন না। পরে তিনি ফেসবুক থেকে একটি মেইল পান যে তার একাউন্টটি একাধিক রিপোর্টের কারণে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

এরপর মিথুন লক্ষ্য করেন, ১৩ আগস্ট তার নাম ও ছবি ব্যবহার করে অপর একটি পেজ খোলা হয়েছে। সে পেজটি থেকে ইসলাম ধর্ম, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ বিভিন্ন ব্যক্তির নামে বিষোদগার ছড়ানো হচ্ছে। এমনকি বাংলাদেশের কোনো এক এলাকায় কোরবানি করতে দেয়া হচ্ছে না মর্মেও একটি ভুয়া ভিডিও পোস্ট করা হয়েছে। এছাড়া সাতশ আলেম ইসকনে যোগ দিয়েছেন বলে একটি তথ্য প্রচার করে সেখানে মহানবী ও আলেমদেরকে নানাভাবে কটূক্তি করা হয়েছে।  

এই ধরণের মন্তব্য দেখে মিথুন কুমার ১৬ আগস্ট মিরপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। তার অফিসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদেরকেও বিষয়টি জানিয়েছেন।
মিথুন বলেন, ‘এ ঘটনার পর থেকে আমি ও আমার পরিবার দুশ্চিন্তার মধ্যে রয়েছি। যে কোন সময় আমিসহ আমার পরিবারের সদস্যদের ওপর হামলা হতে পারে বলে আশঙ্কা করছি।’  

মিথুন কুমার জানান, পরিচিতদের আইডি থেকে ওই আপত্তিকর পোস্টগুলোতে ঢুকে তিনি দেখেছেন, এক শ্রেণির মানুষ তাকে ও তার পরিবারকে পুড়িয়ে মারা, খুন করা, বাড়িঘরে হামলা ভাংচুরের হুমকি দিচ্ছে। যে কারণে তার পরিবারসহ এলাকার লোকজন শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন।

কয়েক বছর আগে কক্সবাজারে রামুতে এক বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী যুবকের আইডি হ্যাক করে ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটূক্তির ঘটনায় বৌদ্ধদের ওপর বেপরোয়া হামলা হয়। এ নিয়ে সে সময় দেশে ব্যাপক তোলপাড়ও হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরেও একই ধরনের ঘটনা ঘটে। সেখানে হিন্দু ধর্মাবলম্বী এক জেলের নামে ফেসবুকে অ্যাকাউন্ট খুলে তা দিয়ে মক্কা শরিফ নিয়ে আপত্তিকর পোস্ট দেওয়া হয়। পরে নাসিরনগরে হিন্দা ধর্মাবলম্বীদের বাড়িঘরে ব্যাপক হামলা হয়। পরে জানা যায়, ওই ব্যক্তির সাক্ষর জ্ঞান নেই এবং তিনি ফেসবুক কী জিনিস-সেটা জানেনও না।

মিথুন ভয় পাচ্ছেন, মাগুরাতেও একই ধরনের ঘটনা ঘটানোর চক্রান্ত হচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যেন বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখে, সে অনুরোধ করেছেন তিনি।

মাগুরা জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতা বাসুদেব কুণ্ড ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘ফেসবুক অপব্যবহার করে মানুষকে ক্ষেপিয়ে তুলে ইতিপূর্বে বহুবার সংখ্যালঘুদের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। কেউ যেন এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটাতে না পারে তার জন্য আমরা সচেষ্ট রয়েছি। আমরা প্রশাসনকে বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করার দাবি জানাচ্ছি।’

মাগুরার পুলিশ সুপার খান মোহাম্মদ রেজোয়ান বলেন, ‘কোনো ধরনের গুজব ছড়িয়ে যেন কেউ কোন ধরনের উত্তেজনা সৃষ্টি করতে না পারে সেজন্য আমরা সচেষ্ট রয়েছি। কেউ এ ধরনের অপরাধ করে পার পাবে না। গোটা বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে।’

তবে যে থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে, তার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দাদন ফকির এই বিষয়টি নিয়ে কিছু বলতে পারেননি। বিষয়টি জানানো হলে তিনি বলেন, ‘এ বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ঢাকাটাইমস/১৮আগস্ট/প্রতিনিধি/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :