১১ দফা দাবিতে ধর্মঘটে সাকিব-তামিমরা

ক্রীড়া প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২১ অক্টোবর ২০১৯, ২৩:১৮ | প্রকাশিত : ২১ অক্টোবর ২০১৯, ১৫:৩৩

জাতীয় লিগের তৃতীয় রাউন্ড শুরু হওয়ার কথা বৃহস্পতিবার। এর পরদিন শুরু হওয়ার কথা ভারত সফরের প্রস্তুতি ক্যাম্প। তার মধ্যেই ঘরোয়া ক্রিকেটে পারিশ্রমিক বাড়ানো, ক্রিকেটারদের প্রতি বোর্ডের দৃষ্টিভঙ্গি বদলানোসহ ১১ দফা দাবিতে ধর্মঘট ডেকেছেন দেশের শীর্ষ ক্রিকেটাররা। দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত ঘরোয়া কিংবা আন্তর্জাতিক কোনো ধরনের ক্রিকেট খেলা ও কার্যক্রমে অংশ নেবেন না তারা।  

আজ সোমবার মিরপুরে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) একাডেমি মাঠে ১১ দাবিতে একাট্টা হন ক্রিকেটাররা। তাদের প্রতিনিধি হিসেবে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ঘোষণা দেন টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। তবে বয়সভিত্তিক ক্রিকেট ধর্মঘটের বাইরে থাকবে।

টেস্ট মর্যাদা পাওয়ার পর কখনো বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ধর্মঘট দেখা যায়নি। এই প্রথম দাবি-দাওয়া নিয়ে আন্দোলনে নামলেন টাইগাররা। 

কেউ কেউ এটি ‘খেলোয়াড় বিদ্রোহ’ বলেও অভিহিত করেছেন। তবে ক্রিকেটারদের এমন ধর্মঘটকে বিদ্রোহ হিসেবে দেখছেন না বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন। 

বিসিবির নানা বিতর্কিত সিদ্ধান্ত ও দেশের ক্রিকেটের নানা অসঙ্গতি নিয়ে অনেক দিন ধরেই অসন্তোষ আছে ক্রিকেটারদের মধ্যে। ক্রিকেটাররা বিভিন্ন দাবি আদায়ে ধর্মঘট ডাকতে যাচ্ছেন এমন গুঞ্জন আজ দুপুরেই ডালপালা মেলে। আশঙ্কা মাথায় নিয়ে বোর্ডের কয়েকজন পরিচালক যোগাযোগ করেন ক্রিকেটারদের সঙ্গে। কিন্তু ক্রিকেটাররা তাদের দাবিতে অনড় থাকেন। ফলে প্রথমবারের মতো ঘোষিত হলো বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট।

আজ বিকাল সোয়া ৩টার দিকে গণমাধ্যমের সামনে হাজির হন ক্রিকেটাররা। ক্রিকেটারদের ১১টি দাবির মধ্যে সাকিব আল হাসান দুটি এবং তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, নাঈম ইসলাম, এনামুল হক বিজয়, এনামুল হক জুনিয়র, জুনাইদ সিদ্দিকী, ফরহাদ রেজা, নুরুল হাসান সোহান একটি করে দাবি তুলে ধরেন। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন ৬০ জনের বেশি ক্রিকেটার।

ধর্মঘট ঘোষণা করতে গিয়ে সাকিব বলেন, ‘আমরা জানি, সব ক্রিকেটার আমাদের সঙ্গে আছেন। যত দিন পর্যন্ত আমাদের দাবিগুলো পূরণ না হচ্ছে, ততদিন আমরা ক্রিকেটের কোনো কার্যক্রমে জড়িত থাকতে চাচ্ছি না। জাতীয় দল, প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটারসহ সবাই এই ধর্মঘটের অন্তর্ভুক্ত এবং সেটা আজ থেকেই।’

‘জাতীয় লিগ থেকে শুরু করে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট বলেন, জাতীয় দলের প্রস্তুতি বলেন, আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বলেন- সবগুলোই ধর্মঘটের অন্তর্ভুক্ত।’ সাকিবের এই ঘোষণার সময় তুমুল করতালি দিয়ে স্বাগত জানান উপস্থিত ক্রিকেটাররা।

অনূর্ধ্ব-১৯ দলের সামনে যেহেতু বিশ্বকাপ, তাদের এই ধর্মঘটের আওতায় রাখা হয়নি। আর খুব বেশি সময় হাতে ছিল না বলে নারী ক্রিকেটারদের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি বলে জানান সাকিব। তবে নিজেদের দাবি-দাওয়া নিয়ে একাত্মতা প্রকাশ করলে, তাদের আমন্ত্রণ জানিয়ে রেখেছেন সাকিব।

ক্রিকেটারদের এই ঘোষণার পর আগামী ২৪ অক্টোবর শুরু হতে যাওয়া জাতীয় ক্রিকেট লিগের তৃতীয় রাউন্ড এবং ২৫ অক্টোবর শুরু হতে যাওয়া জাতীয় দলের ক্যাম্প কার্যত অনিশ্চয়তার মুখে পড়ল।

আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান হবে বলে আশা রেখে সাকিব বলেন, ‘দাবি মানতে হবেই। আলোচনা সাপেক্ষে অবশ্যই সবকিছুর সমাধান হবে। দাবিগুলো যখন মানা হবে তখন আমরা স্বাভাবিক কার্যক্রমে ফিরে যাব।’

‘আমরাও সবাই চাই ক্রিকেটের উন্নতি হোক। এখানে ক্রিকেটারদের কেউ তিন-চার বছর খেলবে, কেউ দশ বছর আছে। যারা ভবিষ্যতে আসবে, তাদের জন্য আমরা একটা ভালো পরিবেশ রেখে যেতে চাই যেখান থেকে বাংলাদেশের ক্রিকেট সামনে এগিয়ে যাবে।’

ক্রিকেটারদের ধর্মঘট নিয়ে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত।  

তবে বিকালে বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সাংবাদিকদের জানান, ক্রিকেটাররা আনুষ্ঠানিকভাবে বিসিবিকে কিছু জানায়নি। তবে তারা ক্রিকেটারদের সঙ্গে যোগাযোগ করে খুব দ্রুত বিষয়টির সমাধান করতে চেষ্টা করবেন। 

বিসিবির প্রধান নির্বাহী বলেন, ‘খেলোয়াড়রা আমাদের কাছে ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। বিভিন্ন সময়ে তাদের নানা দাবি-দাওয়া আসে। আমরা চেষ্টা করি, সেসব পূরণ করতে। আজ আমাদের বিষয়টি নজরে এসেছে। অবশ্যই আমরা বোর্ড সভায় আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেব।’

খেলোয়াড়েরা দাবি তুলেছেন ক্রিকেটারদের সংগঠন ‘কোয়াব’-এর বর্তমান কমিটি ভেঙে দেওয়ার। কোয়াবের সাধারণ সম্পাদক দেবব্রত পাল জানিয়েছেন, তারা বিষয়টি নিয়ে দ্রুত মিটিংয়ে বসবেন। এরপর সিদ্ধান্ত নেবেন, এ ব্যাপারে কী করা যায়।

(ঢাকাটাইমস/২১অক্টোবর/এলএইচ/মোআ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

খেলাধুলা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :