এই রায় লজ্জার: খন্দকার মাহবুব

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৪:১৭
খন্দকার মাহবুব হোসেন (ফাইল ছবি)

সর্বোচ্চ আদালতের বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন না পাওয়ার বিষয়কে কলঙ্কজনক ও লজ্জার বলে মন্তব্য করেছেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন।

বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের ছয় বিচারপতির বেঞ্চে খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন খারিজ করে দেওয়ার পর এক প্রতিক্রিয়ায় এ কথা বলেন খন্দকার মাহবুব।

বিএনপি প্রধানের এই আইনজীবী বলেন, ‘এই রায় লজ্জার ও কলঙ্কজনক। আমরা একজন অসুস্থ মানুষের প্রতি সর্বোচ্চ আদালতের সহমর্মিতা কামনা করেছিলাম। কিন্তু সেই বিষয়গুলো কোনোভাবেই বিবেচনায় নেওয়া হলো না। পৃথিবীতে এমন রায়ের নজির আমরা কখনো দেখিনি।’

সকাল ১০টা ১০ মিনিট রেজিস্ট্রার জেনারেল আলী আকবর খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য সংক্রান্ত বিএসএমএমইউয়ের প্রতিবেদন আদালতে জমা দেন। এরপর ১০টা ২০ মিনিটে শুনানি শুরু হয়।

শুনানিতে খালেদার আইনজীবী জয়নুল আবেদীন মানবিক কারণে খালেদার জামিন চেয়ে বলেন, বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে ভালো মানুষ গিয়েছিলেন। কিন্তু তিনি আজ পঙ্গু হওয়ার পথে। তিনি হাত-পা নাড়াতে পারছেন না। চিকিৎসা এতো উন্নত হচ্ছে যে দিন দিন তিনি পঙ্গু হয়ে যাচ্ছেন।

এ সময় খালেদা জিয়ার সর্বশেষ শারীরিক অবস্থা নিয়ে বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষের দেয়া প্রতিবেদনটি ভুয়া বলেও আখ্যায়িত করেন এই আইনজীবী।

শুনানিতে খালেদার আরেক আইনজীবী খন্দকার মাহবুব বলেছেন, আমাদের দেশে রাজনীতি ও জেলখানা পাশাপাশি। রাজনীতি করলে জেলখানায় যেতে হবে। খালেদার সার্বিক বিষয় বিবেচনা করে জামিন দেয়ার অনুরোধও জানান তিনি।

অপরদিকে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছেন, ইবনে সিনা থেকে খালেদার রক্ত পরীক্ষা করা হয়েছে। রিপোর্ট দেখে তাকে ভ্যাকসিন দেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। তিনি ভ্যাকসিন নিতে রাজি হচ্ছেন না। পরে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে ছয় সদস্যের বিচারপতির আপিল বিভাগের বেঞ্চে খালেদার জামিন আবেদন খারিজ করেন।

আদালতের আদেশের পর এক প্রতিক্রিয়া দেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন। তিনি বলেন, একজন অসুস্থ বৃদ্ধ মহিলার প্রতি সর্বোচ্চ আদালত মানবিক বিবেচনা করবে বলে আমার মনে করেছিলাম। কিন্তু সেই বিষয়গুলো কোনোভাবেই বিবেচনায় নেওয়া হলো না। পৃথিবীতে এমন রায়ের নজির আমরা কখনো দেখিনি।’

ঢাকাটাইমস/১২ডিসেম্বর/এসআর/এমআর

সংবাদটি শেয়ার করুন

আদালত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :