দিনাজপুরে শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে নিহত ১, মামলায় আসামি ১১০০

নিজস্ব প্রতিবেদক, দিনাজপুর
 | প্রকাশিত : ২৬ মার্চ ২০২০, ১৫:০২

দিনাজপুরের বিরলে রুপালী বাংলা জুট মিলে বকেয়া বেতনের দাবিতে শ্রমিকদের আন্দোলনের ঘটনায় শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় পুলিশের গুলিতে এক চা দোকানি নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন তিন পুলিশ ও ১৩ জন শ্রমিক। বুধবার রাত ৯টায় দিনাজপুরের বিরল উপজেলার রুপালী বাংলা জুট মিল চত্বরে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সুরত আলী (৩৭) মিলের পাশে চা দোকান চালাতেন। তিনি হুসনা মোড়ের মোহাম্মদ আলীর ছেলে।

রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন, জেলা প্রশাসক মাহমুল আলম, পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন ও বিরল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জিনাত রহমানসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এ সময় তারা নিহত সুরত আলীর পরিবারের সঙ্গেও কথা বলেন।

অন্যদিকে জুট মিলে শ্রমিক সংঘর্ষ ও ভাংচুরের ঘটনায় পুলিশ ১১শ’ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে একটি মামলা করেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে বিরল থানার উপ-পুলিশ পুরিদর্শক(এসআই) আব্দুল কাদের থানায় এই মামলা করেন।

বৃহস্পতিবার সরজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে রুপালী বাংলা জুট মিলের আশপাশ সুনসান অবস্থায় দেখা যায়। মিলের ভেতরে ভাংচুরের চিত্র দেখা গেছে। যে কয়েকজনকে আশপাশে দেখা যায়,তাদের চোখে মুখে আতঙ্কের ছাপ।

এলাকার লোকজন জানায়, বুধবার বিকালে কোনো নোটিস ছাড়াই রুপালী বাংলা জুট মিল বন্ধ করে দেয় কর্তৃপক্ষ। এ ঘটনায় বিক্ষুদ্ধ হয়ে উঠে শ্রমিকরা। তারা বকেয়া বেতন-ভাতার দাবিতে সন্ধ্যার পর থেকে মিল গেটে সমবেত হতে শুরু হয়। কিছুক্ষণ পর রাত সাড়ে ৮টায় রুপালী বাংলা জুট মিলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিরল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম. আব্দুল লতিফ ঘটনাস্থলে এসে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি শান্ত করার চেষ্টা করেন। কিন্তু শ্রমিকরা তাদের বকেয়া বেতন চেয়ে স্লোগান দিতে থাকেন। শ্রমিকদের দাবি না মেনে তিনি ঘটনাস্থল ত্যাগ করার চেষ্টা করেন। এ সময় বিক্ষুদ্ধ শ্রমিকরা উত্তেজিত হয়ে ভাংচুর শুরু করলে ঘটনাস্থলে উপস্থিত পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কয়েকটি রাবার বুলেট ও টিয়ার সেল নিক্ষেপ করে। এ সময় উভয়ের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। ঘটনাস্থলে পুলিশের গুলিতে সুরত আলী (৩৭) নামে এক চা দোকানদার গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়। আহত হয় তিনজন পুলিশসহ আরো ১৩জন শ্রমিক।

এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন বিরল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ নাসিম হাবিব। তিনি জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ১২টি রাবার বুলেট নিক্ষেপ করেছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন তিন পুলিশ সদস্য।

জুট মিলের রাজ কুমারকে (২৪) আশঙ্কাজনক অবস্থায় দিনাজপুর এম.আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং রায়হান (১৯) ইব্রাহিম (৫৫)সহ অন্যদের স্থানীয় বিরল স্বাস্থ্য কপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

সুরত আলীর লাশ ময়নাতদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ মর্গে রয়েছে।

(ঢাকাটাইমস/২৬মার্চ/কেএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :