যেসব খাবার খাওয়ালে শিশু দ্রুত বড় হয়

নির্ঝর দেবনাথ
| আপডেট : ২৫ জানুয়ারি ২০২২, ১৩:৩৬ | প্রকাশিত : ২৫ জানুয়ারি ২০২২, ১২:৩৩

শিশুর বিকাশে মূল বিষয় পুষ্টিকর খাবার। যা তাদের শারীরিক বা জ্ঞানগত, জেনেটিক, পরিবেশগত এবং মানসিক বিকাশে অবদান রাখে ৷ শিশুর সর্বোত্তম বৃদ্ধির জন্য কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন, চর্বি ভিটামিন এবং খনিজ সমন্বিত একটি সুষম খাদ্য অপরিহার্য।

ভারতের শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ সুরেশ বিরাজদার কিছু প্রধান খাদ্য আইটেম নিয়ে একটি তালিকা করেছেন। যা শিশুর পরিপূর্ণ বিকাশকে চালনা করতে সহায়তা করতে পারে। জেনে নিন এসব পুষ্টিকর খাবার সম্পর্কে।

প্রোটিন

প্রোটিন একটি শিশুর বৃদ্ধি এবং বিকাশের মূল চালক। প্রোটিন শরীরে বিভিন্ন সংক্রমণের অ্যান্টিবডি তৈরির একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। প্রোটিন থেকে প্রাপ্ত অ্যামিনো অ্যাসিডগুলো টিস্যু মেরামত, নিউরোট্রান্সমিটারের সংশ্লেষণ এবং সেইসঙ্গে হরমোনের স্বাভাবিক বৃদ্ধির ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। প্রোটিন উদ্ভিদের পাশাপাশি প্রাণীজ উৎস থেকে পাওয়া যায়। উভয় উৎসই সমানভাবে কার্যকর। ডাল, শিম, দুগ্ধজাত দ্রব্য (দুধ/পনির বা মাখন), ডিম এবং প্রাণীজ থেকে প্রোটিন পাওয়া যেতে পারে।

চর্বি

চর্বি মস্তিষ্কের বিকাশের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড এবং মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিডগুলো স্যাচুরেটেড বা ট্রান্স ফ্যাটি অ্যাসিডের চেয়ে স্বাস্থ্যকর। স্বাস্থ্যকর চর্বির প্রধান উৎস হল উদ্ভিজ তেল (সয়া/জলপাই/সূর্যমুখী) এবং মাছের তেল।শস্য এবং অন্যান্য খাদ্যশস্যের ভুসি/তুষে প্রাকৃতিক তেল থাকে যা খুবই স্বাস্থ্যকর।

আয়রন

আয়রন হিমোগ্লোবিন গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আয়রনের ঘাটতির ফলে রক্তাল্পতায় ভুগতে পারে। যা স্মৃতিশক্তির প্রক্রিয়াকে পরিবর্তন করতে পারে। আয়রন সমৃদ্ধ খাবারের মধ্যে শাক, মটর, ব্রকলি, বাদাম, কিশমিশ এবং লেগুস (ছোলা, মসুর) এর মতো শাকসবজি অন্তর্ভুক্ত। আয়রনের প্রাণীজ উৎসের মধ্যে রয়েছে লিভার, স্যামন, ডিম ইত্যাদি। পাকস্থলী থেকে আয়রন শোষণের জন্য শিশুর এই উৎসগুলোর সঠিক অংশ গ্রহণ করা প্রয়োজন।

আয়োডিন

আয়োডিন হল এমন একটি উপাদান যা থাইরয়েড হরমোনের সংশ্লেষণের জন্য প্রয়োজনীয় - শিশুদের মস্তিষ্কের বিকাশের জন্য এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়াও, থাইরয়েড হরমোন প্রোটিন সংশ্লেষণও নিয়ন্ত্রণ করে। স্বাভাবিক ভাবেই, আয়োডিন বিভিন্ন ধরনের সামুদ্রিক খাবারে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়। দুগ্ধজাত দ্রব্যেও আয়োডিনের অল্প অনুপাত থাকে। আয়োডিনের সর্বোত্তম উৎস হল আয়োডিনযুক্ত লবণের নিয়মিত ব্যবহার।

ফলিক অ্যাসিড এবং ভিটামিন বি

শরীরের বিভিন্ন বিপাকীয় প্রক্রিয়া এবং এনজাইমের জন্য কোফ্যাক্টর হিসেব ভিটামিন বি এর প্রয়োজন হয়। এই প্রক্রিয়াগুলো শিশুদের সামগ্রিক বৃদ্ধির পাশাপাশি বিকাশে সহায়তা করে। ভ্রূণের মস্তিষ্কের বিকাশের জন্য গর্ভাবস্থায় ফলিক অ্যাসিড বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়াও, অনেক কোষে ডিএনএ সংশ্লেষণের জন্য ফলিক অ্যাসিড প্রয়োজন। এছাড়াও নির্দিষ্ট রক্তসল্পতা প্রতিরোধে সাহায্য করে। সবুজ শাক সবজির পাশাপাশি তাজা ফল যেমন কমলা, আপেল ইত্যাদি ভিটামিনের বড় উৎস। ফুটানো এবং গভীর ভাজার ফলে এই ভিটামিনের উল্লেখযোগ্য ক্ষতি হতে পারে। অতএব, ফল এবং সবজি কাঁচা বা হালকা ভাজা খাওয়া ভালো। তাদের ভুসিসহ গোটা শস্যের ভিটামিন বি প্রচুর পরিমাণে থাকে।

(ঢাকাটাইমস/২৫জানুয়ারি/এজেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফিচার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :