রাশিয়াকে সামরিক অভিযান বন্ধের নির্দেশ আন্তর্জাতিক আদালতের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৭ মার্চ ২০২২, ১৪:৫৭ | প্রকাশিত : ১৭ মার্চ ২০২২, ১৪:২৩

ইউক্রেনে অবিলম্বে সামরিক অভিযান বন্ধ করতে রাশিয়াকে আদেশ দিয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত-আইসিজে।

আল জাজিরা জানায়, ১৩-২ ভোটে সংখ্যাগরিষ্ঠের মতামতের ভিত্তিতে দেওয়া আদেশে আদালত বলেছে,‘‘২০২২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনের ভূখণ্ডে শুরু করা সামরিক অভিযান তাৎক্ষণিকভাবে স্থগিত করতে হবে রুশ ফেডারেশনকে।’

যদিও আইসিজের আদেশ মানতে সদস্যদেশগুলো বাধ্য। তবে তা প্রয়োগের সক্ষমতা নেই আইসিজের। কোনো দেশ আইসিজের আদেশ অমান্য করলে তাকে নিরাপত্তা কাউন্সিলের মুখোমুখি হতে হয়। তবে রাশিয়ার ভেটো ক্ষমতা থাকায় নিরাপত্তা কাউন্সিল কোনো পদক্ষেপ নিতে পারবে না।

আইসিজের আদেশকে ইউক্রেনের জয় হিসেবে টুইট করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। তিনি লিখেন, আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে এ আদেশ দেওয়া হয়েছে। অবিলম্বে রাশিয়াকে তা পালন করা উচিত। এই আদেশ অমান্য করলে ভবিষ্যতে রাশিয়া আরও পৃথক হয়ে যাবে।

২৪ ফেব্রুয়ারি প্রেসিডেন্ট পুতিন চলমান সামরিক অভিযানকে একটি ‘বিশেষ সামরিক পদক্ষেপ’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন এবং দাবি করেছেন, পূর্ব ইউক্রেনের রুশভাষী জনগোষ্ঠীকে রক্ষার জন্যই এটা ‘জরুরি’।

শুনানিতে দেশটির পক্ষ থেকে বলা হয়, পূর্ব ইউক্রেনে গণহত্যা রোধের যে অযুহাত তুলে এই সামরিক অভিযান শুরু করেছে মস্কো, তার কোন প্রমাণ মেলেনি। পূর্ব ইউক্রেনে গণহত্যা চালানোর কোনো হুমকি নেই এবং জাতিসংঘের ১৯৪৮ সালের সনদ অনুযায়ী গণহত্যা রোধে সামরিক অভিযান পরিচালনার সুযোগ নেই। ওই সনদে রাশিয়াও সই করেছে।

গত বুধবার কিয়েভের অভিযোগের বিষয়ে শুনানি করে এই আদেশ জারি করে জাতিসংঘের সর্বোচ্চ আদালত।

আদেশে আরও বলা হয়, মস্কো নিয়ন্ত্রিত বা সমর্থিত অন্য কোনো বাহিনীও যাতে সামরিক অভিযান না চালায় সেটাও রাশিয়াকে নিশ্চিত করতে হবে।

গত ৭ মার্চ আইসিজের শুনানিতে অংশ নেয়নি রাশিয়া। বরং তারা ইউক্রেনের মামলাকে ‘অমূলক’ হিসেবে দাবি করেছে।

এ বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া আইসিজের উচিত হবে না বলেও লিখিত বিবৃতিতে আইসিজেকে জানিয়েছে রাশিয়া। দেশটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট পুতিন ‘গণহত্যা’ শব্দটি দিয়ে যা বোঝাতে চেয়েছেন তা নিজে থেকেই গণহত্যা সনদের সঙ্গে মিলে যাবে না। এই সনদের ব্যাখ্যা নিয়ে বিতর্কের মীমাংসা না করে আদালতের এখতিয়ার নেই এই বিষয়ে কথা বলার।

অবশ্য বিচারকদণ্ডলীর প্রধান জোয়ান ডোনোহ বলেন দুই দেশ গণহত্যা সনদের ব্যাখ্যা নিয়ে আপত্তি জানিয়ে রেখেছে এবং এর বাস্তব এখতিয়ার নিয়ে পরে সিদ্ধান্ত হবে।

তবে জরুরি পরিস্থিতিতে ইউক্রেইনের সংঘাত চলমান থাকায় আদালত জরুরি পদক্ষেপ হিসেবে আদেশ দিতে পারে, এমনকী আদালতের এখতিয়ার আছে কিনা তা মীমাংসা হওয়ার আগেই।

(ঢাকাটাইমস/১৭মার্চ/আরআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ

অবসরের বয়সসীমা: ফ্রান্সে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ

তুরস্কে ভয়ানক ভূমিকম্প: ৩৮ ঘণ্টা পর বাংলাদেশি শিক্ষার্থী রিংকু জীবিত উদ্ধার

ধ্বংসস্তুপের নিচ থেকে একে পার্টির আদিয়ামান শহরের ডেপুটির মরদেহ উদ্ধার

তুরস্কের ১০ শহরে তিন মাসের জন্য জরুরি অবস্থা জারি

ভূমিকম্পের পর সিরিয়ার কারাগার থেকে পালিয়েছে ২০ জিহাদি

সাহায্যের জন্য ধ্বংসস্তুপ থেকে ভয়েস নোট পাঠাচ্ছে মানুষ

তুরস্কে ভূমিকম্পে নিখোঁজ হওয়া দুই বাংলাদেশির একজন উদ্ধার

ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্ত ২ কোটি ৩০ লাখ মানুষ: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

নিরলস উদ্ধার প্রচেষ্টা তুরস্কের, ভুল তথ্য প্রচার রোধে কঠোর সতর্কতা

আদানী গোষ্ঠীর পতনের নেপথ্যে কে এই নাথান?

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :