রাজধানী

বাড়তি ভাড়া নিয়ে তর্কবিতর্কে যাত্রা হচ্ছে পেরেশানির

আকিবুর রহমান, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১০ আগস্ট ২০২২, ২০:১২

রাজধানীর গণপরিবহনে ভাড়া নৈরাজ্য কিছুতেই থামছে না। জ্বালানি তেলে বাড়তি দামের সঙ্গে সমন্বয়ের পর দুই দিন পার হলেও নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে বাড়তি আদায় করা হচ্ছে যাত্রীদের কাছ থেকে।

সাধারণ যাত্রীদের অভিযোগ, গণপরিবহনে সরকারের বেঁধে দেয়া ভাড়ার তালিকা মানছেন না পরিবহন কর্মীরা। ফলে ভাড়া নিয়ে বচসা-বিতণ্ডা লেগেই আছে। নিরুপায় যাত্রীরা এক প্রকার বাধ্য হয়েই দিচ্ছেন অতিরিক্ত ভাড়া।

রাজধানীর বিভিন্ন রুটে চলাচলকারী মিনি বাসে সর্বনিম্ন ভাড়া দশ টাকা। আর বড় বাসে সেটি আট টাকা। অর্থাৎ কাছের কোনো গন্তব্যে যেতে হলেও গুণতে হবে সর্বনিম্ন এই ভাড়া।

সরেজমিনে দেখা গেছে, রাজধানীর বিভিন্ন রুটে চলাচলকারী বাসগুলোর বেশিরভাগই নির্ধারিত ভাড়া তালিকা মানছে না। এমনকি ভাড়ার তালিকা বাসে ঝুলানোর কথা থাকলেও পরিবহনের চালক-সহকারীরা তা পাত্তা দিচ্ছেন না।

জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির পর গণপরিবহনের ভাড়া সমন্বয় করা হয়েছে। সরকারের নির্ধারণ করে দেওয়া বর্ধিত ভাড়ার তালিকা না মানায় ক্ষুব্ধ যাত্রীরা। তারা বলছেন, জোরালো পদক্ষেপ নেওয়া না হলে এই নৈরাজ্য থামবে না।

তবে পরিবহনের চালক-সহকারী চালকরা বলছেন, সরকারের নির্দেশনা মতো ভাড়া নেয়া হচ্ছে। বাড়তি ভাড়া দিতে চাইছেন না যাত্রীরা। আর সেজন্য। ভাড়া নিয়ে তর্কাতর্কির মতো ঘটনা ঘটছে।

এদিকে ভাড়া নৈরাজ্য বন্ধে কাজ করছে বিআরটিএর ভ্রাম্যমাণ আদালত। তবে এই পদক্ষেপকে যথেষ্ট মনে করছেন না যাত্রীরা। তাদের ভাষ্য, কঠোর ব্যবস্থা না নিলে যাত্রী ভোগান্তি আরও বাড়বে।

বিআরটিএর স্পষ্ট নির্দেশনা ছিলো, বাসে নতুন ভাড়ার তালিকা রাখতে হবে। তাই কোন গন্তব্যের ভাড়া কতোটা বাড়লো সেটি যাত্রীদের কাছে স্পষ্ট নয়। আর এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ইচ্ছে মতো আদায় হচ্ছে ভাড়া।

পরিবহন মালিক সমিতি বলছে, যেসব বাসে এখনো নতুন ভাড়ার তালিকা টানানো হয়নি সেসব বাসে দুয়েক দিনের মধ্যে তা টানানো হবে। তবে নির্ধারিত ভাড়ার অতিরিক্ত আদায় হচ্ছে না বলেই তাদের ভাষ্য।

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজধানী বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :