সিরিয়ায় মার্কিন হামলা, ইরানপন্থী ৮ যোদ্ধা নিহত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৪ মার্চ ২০২৩, ১৪:৫৮

সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ইরানের তৈরি সন্দেহভাজন ড্রোন হামলায় ড্রোন হামলায় এক আমেরিকান ঠিকাদার নিহত ও পাঁচ মার্কিন সেনা সদস্য আহত হওয়ার পর সিরিয়ায় ইরান-সমর্থিত একটি গোষ্ঠীর ওপর বিমান হামলা চালিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাজ্যভিত্তিক একটি যুদ্ধ পর্যবেক্ষক জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার মার্কিন হামলায় আট ইরানপন্থী যোদ্ধা নিহত হয়েছে। খবর দ্য গার্ডিয়ানের।

বৃহস্পতিবার জোটের ঘাঁটিতে হামলায় পাঁচ মার্কিন সেনা সদস্য এবং অন্য একজন মার্কিন ঠিকাদার আহত হয়েছে বলে পেন্টাগন জানিয়েছে। আহত পরিষেবা সদস্যদের মধ্যে দুজনকে ঘটনাস্থলে চিকিৎসা করা হয়েছে, অন্য তিনজন এবং আহত ঠিকাদারকে ইরাকের চিকিৎসা সুবিধায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

যুদ্ধ-বিধ্বস্ত দেশটির বিস্তৃত সূত্রের নেটওয়ার্ক ব্রিটেন-ভিত্তিক পর্যবেক্ষক সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি অব হিউম্যান রাইটস-এর প্রধান রামি আবদেল রহমান বলেছেন, দেইর এজোর শহরের অভ্যন্তরে একটি অস্ত্রের ডিপো লক্ষ্য করে মার্কিন হামলায় ছয় ইরানপন্থী যোদ্ধা নিহত হয়েছে এবং মায়াদিনের মরুভূমি ও আল-বুকামালের কাছে হামলা চালিয়ে আরও দুই যোদ্ধাকে হত্যা করা হয়েছে। খবর এএফপি’র।

বৃহস্পতিবার পরে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে মার্কিন প্রতিরক্ষা সচিব লয়েড অস্টিন বলেছেন, মার্কিন কেন্দ্রীয় কমান্ড বাহিনী ইরানের বিপ্লবী গার্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত গোষ্ঠীগুলির দ্বারা ব্যবহৃত পূর্ব সিরিয়ার স্থাপনাগুলির বিরুদ্ধে ‘নির্ভুল বিমান হামলা’ দিয়ে হামলার প্রতিশোধ নিয়েছে।

প্রতিরক্ষা বিভাগ বলেছে, গোয়েন্দা সম্প্রদায় নির্ধারণ করেছে যে জোটের ঘাঁটিতে হামলায় ব্যবহৃত চালকবিহীন বিমানটি ইরানি বংশোদ্ভূত।

অস্টিন বলেছেন, ‘আজকের হামলার পাশাপাশি সিরিয়ায় জোট বাহিনীর বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক আক্রমণগুলির প্রতিক্রিয়া হিসেবে এই বিমান হামলা চালানো হয়েছিল। রেভল্যুশনারি গার্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত গোষ্ঠীরা হামলাটি চালিয়েছিল।’

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিওগুলোতে সিরিয়ার দেইর ইজ-জোর এলাকার বিস্ফোরণ দেখা গেছে। এলাকাটি একটি কৌশলগত প্রদেশ যা ইরাকের সীমান্তবর্তী এবং এখানে তেলক্ষেত্র রয়েছে৷

ইরান-সমর্থিত মিলিশিয়া গোষ্ঠী এবং সিরিয়ান বাহিনী এলাকাটি নিয়ন্ত্রণ করে, যেটি সাম্প্রতিক মাসগুলিতে ইসরায়েলের সন্দেহভাজন বিমান হামলার দ্বারাও লক্ষ্যবস্তু হয়েছে। ইরানের আধাসামরিক বিপ্লবী গার্ডকে বিস্তৃত মধ্যপ্রাচ্য জুড়ে বোমা বহনকারী ড্রোন দিয়ে হামলা চালানোর জন্য সন্দেহ করা হচ্ছে।

পবিত্র রমজান চালানো এই হামলার বিষয়ে ইরানের কাছ থেকে তাৎক্ষণিক কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। জাতিসংঘে ইরানের মিশন তাৎক্ষণিকভাবে মন্তব্যের অনুরোধে সাড়া দেয়নি।

ইরানের সঙ্গে উত্তেজনার কারণে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের নেতৃত্বে যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়ায় আঘাত হানার প্রথম ঘটনা নয়। ফেব্রুয়ারি এবং জুন ২০২১, সেইসাথে আগস্ট ২০২২ সালে বাইডেন সেখানে আক্রমণ শুরু করেন।

মার্কিন বাহিনী ২০১৫ সালে সিরিয়ায় প্রবেশ করেছিল, ইসলামিক স্টেট গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে তাদের লড়াইয়ে স্থানীয় বাহিনীকে সমর্থন করেছিল। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এখনও উত্তর-পূর্ব সিরিয়ার হাসাকাহের কাছে একটি ঘাঁটি বজায় রেখেছে, যেখানে বৃহস্পতিবার ড্রোন হামলা হয়েছিল। সিরিয়ায় মোটামুটি ৯০০ মার্কিন সৈন্য এবং এমনকি আরও ঠিকাদার রয়েছে।

অস্টিন বলেছিলেন, ‘প্রেসিডেন্ট বাইডেন যেমন স্পষ্ট করেছেন, আমরা আমাদের জনগণকে রক্ষা করার জন্য প্রয়োজনীয় সমস্ত ব্যবস্থা নেব এবং সর্বদা আমাদের পছন্দের সময় এবং জায়গায় প্রতিক্রিয়া জানাব। কোন গোষ্ঠী দায়মুক্তির সঙ্গে আমাদের সৈন্যদের আঘাত করবে না।’

(ঢাকাটাইমস/২৪মার্চ/এসএটি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ

তীব্র গরমে বিশ্বব্যাপী বছরে ১৯ হাজার শ্রমজীবীর মৃত্যু

গাজা ইস্যুতে উত্তাল যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ বিশ্ববিদ্যালয়গুলো 

ফের দফায় দফায় ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল তাইওয়ান

ইরানে ছোড়া একটি ক্ষেপণাস্ত্র নিজেরাই ধ্বংস করে ইসরায়েল!

মালদ্বীপে সংসদ নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়ী চীনপন্থি প্রেসিডেন্ট মুইজ্জুর দল

পাকিস্তান সফরে ইরানের প্রেসিডেন্ট রাইসি 

ব্যর্থতার দায় নিয়ে ইসরায়েলের সামরিক গোয়েন্দা প্রধানের পদত্যাগ 

২৬ হাজার শিক্ষকের চাকরি বাতিল করলো কলকাতা হাইকোর্ট

ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতি দিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান তুরস্কের

সিরিয়ায় মার্কিন ঘাঁটিতে ইরাকি সশস্ত্র গোষ্ঠীর রকেট হামলা  

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :