সিরিয়ায় ইসরায়েলি বিমান হামলা, আহত ৫ সেনা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০২ এপ্রিল ২০২৩, ১৩:৫৯
প্রতিকী ছবি

সিরিয়ার হোমস প্রদেশের ফাঁড়িতে বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল। এতে অন্তত পাঁচ সেনা আহত হয়েছে বলে সিরিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

ইরানের আধা-সরকারি মেহর নিউজ এজেন্সি অনুসারে, রবিবারের প্রথম দিকের অভিযানগুলো সাম্প্রতিক দিনগুলিতে তৃতীয় এবং শুক্রবারের আরেকটি হামলার মাত্র একদিন পরেই করা হয়েছে। বিগত হামলায় ইরানের বিপ্লবী গার্ডের দুই সামরিক উপদেষ্টা নিহত হয়েছে।

সিরিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে এক বিবৃতিতে বলেছে, ইসরায়েল ‘সকাল ৯ টা ৩৫ মিনিটে হোমস শহর এবং এর গ্রামাঞ্চলের কয়েকটি ফাঁড়ি লক্ষ্য করে উত্তর-পশ্চিম বৈরুতের দিক থেকে আকাশ পথে আগ্রাসন শুরু করেছে।’

সিরিয়ার বিমান প্রতিরক্ষা ক্ষেপণাস্ত্রগুলিকে বাধা দেয় এবং কয়েকটিকে গুলি করেছে বলে মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

সিরিয়ার একটি সামরিক সূত্র রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে জানিয়েছে, হামলায় পাঁচজন সামরিক কর্মী আহত এবং কিছু বস্তুগত ক্ষতি হয়েছে।

ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী প্রতিবেদনের বিষয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দুই পশ্চিমা গোয়েন্দা সূত্র রয়টার্স বার্তা সংস্থাকে জানিয়েছে, রকেট হামলাগুলো প্রাচীন শহর পালমিরার পশ্চিমে অবস্থিত টি-৪ বিমান ঘাঁটি এবং লেবাননের সীমান্তের কাছে আল-কুসাইর শহরের কাছে আল-দাবা বিমানবন্দরকে লক্ষ্য করে চালানো হয়েছে।

লেবাননের হিজবুল্লাহর যোদ্ধাদের পাশাপাশি ইরানের সামরিক কর্মীরা উভয় বিমানবন্দরেই অবস্থান করছে এবং হোমস প্রদেশের ওই এলাকায় ইরানপন্থী মিলিশিয়াদের শক্তিশালী উপস্থিতি রয়েছে বলে রয়টার্স জানিয়েছে।

সিরিয়া পশ্চিমা ও ইসরায়েলি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছে ইরানের শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তারা প্রায়শই সিরিয়ায় যান এবং দেশটিতে তাদের ব্যাপক সামরিক উপস্থিতি রয়েছে।

ইসরায়েল বছরের পর বছর ধরে সিরিয়ায় ইরান-সংযুক্ত লক্ষ্যবস্তুর দাবি করে তার বিরুদ্ধে হামলা চালিয়েছে। দেশটিতে ২০১১ সালে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের নির্মম ক্র্যাকডাউনের পর শুরু হওয়া সংঘাতে রাষ্ট্রপতি বাশার আল-আসাদকে সমর্থন করা শুরু করার পর থেকে তেহরানের প্রভাব বেড়েছে।

ইসরায়েল গত বছর সিরিয়ার বিমানবন্দর এবং বিমান ঘাঁটিতে অভিযান জোরদার করেছে। তারা এটিকে ‘ইরান মিলিশিয়াদের কাছে অস্ত্র সরবরাহের জন্য বিমান সরবরাহ লাইন ব্যবহার করছে’ বলে দাবি করে আসছে।

গত মাসে আলেপ্পোর বিমানবন্দর লক্ষ্য করে ইসরায়েলি বিমান হামলা দুই দিনের জন্য কমিশনের বাইরে রেখেছিল। ৬ ফেব্রুয়ারি সিরিয়া এবং তুরস্কে আঘাত হানা মারাত্মক ৭ দশমিক ৮ মাত্রার ভূমিকম্পের পর থেকে এই বিমানবন্দরটি ত্রাণ পরিবহনের প্রধান বাহক।

পশ্চিমা গোয়েন্দা সূত্র বলেছে, মারাত্মক ভূমিকম্পের পরে কার্গো বিমানগুলি ত্রাণ সহায়তা বন্ধ করার কারণে ভারী বিমান চলাচলের সুবিধা নিয়ে ইরান আরও অস্ত্র সরবরাহের জন্য বেশ কয়েকটি বেসামরিক বিমানবন্দর ব্যবহার করছে।

ইরান পশ্চিমা ও ইসরায়েলের অভিযোগের বিষয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে।

(ঢাকাটাইমস/২এপ্রিল/এসএটি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :