রাজপথ ছাড়তে ‘ভয়’

রুদ্র রাসেল, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৮:৩৯

দেশের রাজনীতিতে এখন নির্বাচনী উত্তাপ। বড় দুই দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি ছাড়াও ছোটখাট দলগুলোও সরব হয়ে উঠেছে রাজপথে। নিজেদের অস্তিত্ব জানান দিচ্ছে সবাই। চলছে নানা কর্মসূচি। ঘোষণা হচ্ছে নতুন কর্মসূচিও। নির্বাচন পর্যন্ত কেউ কাউকে মাঠ ছাড়তে চাচ্ছে না। বিএনপির কর্মসূচির বিপরীতে পাল্টা কর্মসূচি দিচ্ছে আওয়ামী লীগও। মোটকথা বড় দুটি দল উভয়েই উভয়কে তীক্ষ্ণ নজরে রাখছে।

গত সোমবার ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে ৩ অক্টোবর পর্যন্ত কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএনপি। যুগপৎ আন্দোলনে থাকা বিএনপি ঘরানার দলগুলোও সায় দিয়েছে এসব কর্মসূচিতে। ঘোষণা দিয়েছে মাঠে থাকার। এর মধ্যে রয়েছে ঢাকাসহ বিভিন্ন বিভাগে রোডমার্চ ও ১১টি সমাবেশ। এই ১৫ দিনের মধ্যে তিন দিন কোনো কর্মসূচি রাখেনি দলটি।

ঠিক এর পরদিন গতকাল মঙ্গলবার ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে ৪ অক্টোবর পর্যন্ত কর্মর্সূচি ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগ। যে তিন দিন বিএনপির কর্মসূচি নেই, সে তিন দিন আওয়ামী লীগও কোনো কর্মসূচি রাখেনি।

দুটি দলের কর্মসূচির মধ্যে একই দিনে একই এলাকায় বা আশপাশের এলাকায় কর্মসূচি দেওয়া হয়েছে। এতে সংঘাতের শঙ্কা দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, এই সংঘাতময় পথ থেকে আলোচনার মাধ্যমে সমঝোতায় আসা দরকার দুটি দলকেই। তাদের ঘিরেই ছোটদলগুলো রাজনৈতিক বলয় তৈরি করেছে। সেক্ষেত্রে বড় দল দুটি সমঝোতামুখী হলে রাজনৈতিক সংকট কেটে যাবে। সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ বা লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি হবে।

গত ৬ মাস ধরে আওয়ামী লীগ ও বিএনপিকে এক টেবিলে বসে রাজনৈতিক ফয়সালা করার তাগিদ এসেছে দেশ ও বিদেশ থেকে। দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থা ও সুশীল সমাজের পক্ষ থেকে এই জোর দাবি ওঠার পরেও দল দুটি নানা অজুহাত দেখিয়ে এড়িয়ে যাচ্ছে আলোচনার টেবিল।

তবে আপাতত তারা যে সংলাপ বা আলোচনার বদলে রাজপথকেই সমাধান হিসেবে বেছে নিয়েছে তার আভাস মিলেছে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফথরুল ইসলাম আলমগীরের সোমবারের বক্তব্যে। ৩ অক্টোবর পর্যন্ত কর্মসূচি ঘোষণা করে তিনি বলেন, ‘এবার চূড়ান্ত ফয়সালা হবে রাজপথে।’ এর আগেও মির্জা ফখরুল নেতাকর্মীদের রাজপথে নেমে সরকার পতনের এক দফা আন্দোলন জোরদার করার আহ্বান জানিয়েছেন একাধিকবার।

অন্যদিকে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরও বলছেন, বিএনপির কর্মসূচি ঘিরে অরাজকতা-সহিংসতা রুখতে মাঠে থাকবে আওয়ামী লীগ।

গতকাল ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলটির সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য, ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনসমূহের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকদের সঙ্গে যৌথসভা শেষে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে ৪ অক্টোবর পর্যন্ত টানা কর্মসূচি ঘোষণা করেন। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘দেশের সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা নষ্ট করার জন্য কেউ কোনো অশুভ তৎপরতা করলে অতীতের মতো ভবিষ্যতেও প্রতিহত করা হবে। আন্দোলনের নামে নির্বাচনকে বাধাগ্রস্ত করলে কঠোরভাবে দমন করা হবে।’

আওয়ামী লীগের কর্মসূচি

২৩ সেপ্টেম্বর বাইতুল মোকাররম দক্ষিণ গেটে মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের উদ্যোগে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। ২৫ সেপ্টেম্বর দুপুর আড়াইটায় মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ উত্তরায় এবং মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ যাত্রাবাড়ীতে সমাবেশ করবে। ২৬ সেপ্টেম্বর কেরানীগঞ্জে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।

২৭ সেপ্টেম্বর টঙ্গীতে সমাবেশ করবে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগ। একই দিনে মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ ঢাকার মিরপুরের কাফরুলে সমাবেশ করবে। ২৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন এবং ঈদে মিলাদুন্নবী; এদিন বাদ আসর সারাদেশে দোয়া মাহফিল হবে।

২৯ সেপ্টেম্বর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। ৩০ সেপ্টেম্বর বেলা আড়াইটায় রাজধানীতে কৃষক লীগের উদ্যোগে কৃষক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া ৪ অক্টোবর চট্টগ্রামের মিরসরাইতে আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে বলে জানানো হয়েছে।

বিএনপির কর্মসূচি

১৯ সেপ্টেম্বর ঢাকা জেলার জিঞ্জিরা/কেরানীগঞ্জ এবং গাজীপুরের টঙ্গীতে সমাবেশ; ২১ সেপ্টেম্বর ভৈরব-ব্রাহ্মণবাড়িয়া-হবিগঞ্জ-মৌলভীবাজার-সিলেট পথে রোডমার্চ; ২২ সেপ্টেম্বর ঢাকা মহানগরে যাত্রাবাড়ী ও উত্তরায় সমাবেশ, একই দিনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রোগ মুক্তি কামনায় সারা দেশে জেলা, মহানগর, উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে দোয়া; ২৩ সেপ্টেম্বর বরিশাল-ঝালকাঠি-পিরোজপুর-পটুয়াখালী পথে রোডমার্চ; ২৫ সেপ্টেম্বর ঢাকা মহানগরে নয়াবাজার ও ঢাকা জেলার আমিন বাজারে সমাবেশ; ২৬ সেপ্টেম্বর খুলনা বিভাগে রোডমার্চ, একই দিনে ঢাকায় পেশাজীবী কনভেনশন।

এ ছাড়া ২৭ সেপ্টেম্বর ঢাকা মহানগর গাবতলী ও নারায়ণগঞ্জ জেলার ফতুল্লায় জনসমাবেশ; ২৯ সেপ্টেম্বর ঢাকায় মহিলা সমাবেশ; ৩০ সেপ্টেম্বর ঢাকায় শ্রমজীবী কনভেনশন; ১ অক্টোবর ময়মনসিংহ থেকে কিশোরগঞ্জ পথে রোডমার্চ; ২ অক্টোবর ঢাকায় কৃষক সমাবেশ এবং ৩ অক্টোবর কুমিল্লা-ফেনী-মিরসরাই-চট্টগ্রাম পথে রোডমার্চ করার ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি।

(ঢাকাটাইমস/২০সেপ্টেম্বর/এফএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিশেষ প্রতিবেদন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :