শেরপুরে প্রতিপক্ষের অস্ত্রের কোপে গুরুতর আহত কুড়া ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক

শেরপুর প্রতিনিধি, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ১১:১০

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের লোকদের অস্ত্রের কোপে গুরুতর আহত হয়েছেন শেরপুর জেলা কুড়া ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক ও শিক্ষানবীশ আইনজীবি সোহাগ তালুকদার (৪২)।

বুধবার রাত সাড়ে ৯টায় শহরের দীঘারপাড় এলাকায় ওই ঘটনা ঘটে। পরে সোহাগকে গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে রাত ১১টায় তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

সোহাগ স্থানীয় আব্দুল আওয়াল মাস্টারের একমাত্র ছেলে এবং তিন সন্তানের জনক।

স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, পৌরসভার কাউন্সিলর নির্বাচন ও এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে দীঘারপাড় মহল্লার সাবেক কাউন্সিলর আমির হোসেন বাদশা তালুকদার ও ফখরুল আলম ফখরুলের মধ্যে বিরোধ চলছিল।

তার জেরে ঈদুল ফিতরের আগে ঈদগাহ মাঠের মেয়াদ উত্তীর্ণ কমিটিকে কেন্দ্র করে উভয়পক্ষের মধ্যে হামলা-পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটে, যা মামলা-মোকদ্দমায় গড়ায়। পরে জেলা পুলিশের প্রচেষ্টায় একাধিক দফায় সমঝোতা বৈঠকের পর উভয়পক্ষ শান্তিপূর্ণ অবস্থানে থাকবে মর্মে থানায় মুচলেকা দেয় এবং পৃথক মাঠে ঈদের নামাজ আদায় করে।

ওই অবস্থায় বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে বাদশা তালুকদারের ভাতিজা সোহাগ দীঘারপাড় মধ্যপাড়া কলকল বাজার এলাকার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে মোটরসাইকেলে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় স্থানীয় ফখরুল আলম ফখরুলের বাড়ির সামনের রাস্তায় পৌঁছালে ফখরুলের নেতৃত্বে তার সহযোগী ১০-১২ জন যুবক সোহাগের গতিরোধ করে চাপাতি, ক্ষুর, ডেগার ও লোহার রড দিয়ে তার মাথায়, হাতে, পায়ে ও পিঠে উপর্যুপরি কুপিয়ে রক্তাক্ত করে। এ সময় সোহাগের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে গিয়ে তাকে গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

ঘটনার বিষয়ে সাবেক কাউন্সিলর বাদশা তালুকদার বলেন, ‘ঈদের আগের ঘটনা নিয়ে সমঝোতা বৈঠকের পর আমরা শান্তিপূর্ণ অবস্থানে থাকলেও ফখরুলের নেতৃত্বে তার লোকজন হত্যার উদ্দেশ্যে আমার ভাতিজা ব্যবসায়ী নেতা সোহাগ তালুকদারকে কুপিয়েছে। সে এখন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে।’

এদিকে জেলা কুড়া ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি উজ্জলুর রহমান উজ্জল, সিনিয়র সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান মুসা মিয়া এই ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

এ সম্পর্কে বৃহস্পতিবার সকালে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা (ওসি) এমদাদুল হক বলেন, ‘ঘটনা জানার পর হাসপাতালে আহত সোহাগ তালুকদারকে দেখতে গিয়েছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুইপক্ষের দ্বন্দ্বের জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে। তদন্ত সাপেক্ষে জড়িতদের শনাক্ত ও গ্রেপ্তার করা হবে।’

(ঢাকাটাইমস/১৮এপ্রিল/এজে)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

বাংলাদেশ এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :