ছাত্রলীগের কমিটিতে ‘ছাত্রদলের সক্রিয় নেতা’, বিক্ষোভ

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৮ জুলাই ২০১৮, ১৮:৩৪ | প্রকাশিত : ২৮ জুলাই ২০১৮, ১৮:২৬

মানিকগঞ্জের হরিরামপুরে ছাত্রদলের সক্রিয় কয়েকজন নেতা দিয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি গঠনের অভিযোগে বিক্ষোভে নেমেছে ছাত্রলীগের একাংশ। নবগঠিত ওই কমিটি বাতিলের দাবিতে নানা কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছে তারা।

শনিবার দুপুর দেরটার দিকে হরিরামপুর উপজেলা পরিষদের সামনে ছাত্রলীগের তিন শতাধিক নেতাকর্মী জড়ো হয়ে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করে।

গত ২৬ জুলাই লুৎফর রহমানকে সভাপতি করে ২৫ সদস্যের হরিরামপুর উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটির ঘোষণা দেয়া হয় বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে। বিক্ষোভকারীরা দাবি করছেন, লুৎফুর উপজেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক ছিলেন। তাকে ছাড়াও ওই কমিটির আরো কয়েকজনকে ছাত্রলীগের কমিটিতে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ করছেন ছাত্রলীগের বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীরা।

অবশ্য লুৎফুর এই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, তিনি কখনও ছাত্রদল করেননি। তার পরিবারও আওয়ামী লীগের অনুসারী।

নতুন কমিটি বাতিলের দাবিতে ছাত্রলীগের একাংশের কর্মসূচিতে নতুন কমিটির যুগ্ম সম্পাদক মোস্তাকিম চৌধুরী রিফাত, সাংগঠনিক সম্পাদক শুভ মল্লিক, প্রচার সম্পাদক আকন্দ মোহাম্মদ আবির, এম এ রউফ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি আমীর হামজা জ্যোতি, বিচারপতি নুুরুল ইসলাম ডিগ্রী কলেজের আহবায়ক কমিটির সদস্য মারুফ হোসেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক কার্যকরী সদস্য রবিউল ইসলাম রাজা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।  

ছাত্রলীগের এই নেতা-কর্মীরা জানান, লুৎফুর রহমানের ছাত্রদলের ব্যান্ড পরা ছবিও আছে। তবে লুৎফুর দাবি করেছেন ‘এটি এডিটিং করে বানানো হয়েছে।’

ছাত্রলীগের বিক্ষুব্ধ নেতা কর্মীরা আরও অভিযোগ করেছেন, নতুন কমিটির সহ-সভাপতি আব্দুলাহ সায়িম লিপু সম্প্রতি মাদকসহ গ্রেপ্তার হয়ে জেল খেটেছেন।

একজন বক্তা বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শে গড়া ছাত্রলীগের কমিটিতে ছাত্রদল ও মাদকসেবীদের কোন স্থান হতে পারে না।’
অবিলম্বে ওই কমিটি ভেঙে দিয়ে সংগঠনের ত্যাগী ও মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের নিয়ে কমিটি পুনর্গঠনের দাবি জানানো হয় কর্মসূচিতে। সেই সাথে নব গঠিত ওই কমিটিকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়।
মানববন্ধন শেষে নেতাকর্মীরা উপজেলা চত্বরে মিছিল করে।

এ ব্যাপারে মানিকগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কাজী রাজু আহম্মেদ বুলবুল ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুনের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন দিলেও তারা রিসিভ করেননি।

বিষয়টি নিয়ে হরিরামপুর ছাত্রদলের একাধিক নেতার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে কল করলে তাদেরকেও পাওয়া যায়নি। পরে জেলা ছাত্রদলের সভাপতি রেজাউল ইসলাম খান সজিব নিশ্চিত করেছেন লুৎফুর তাদের সংগঠন করতেন।

আপনাদের সংগঠনের একজন নেতা ছাত্রলীগের কমিটিতে চলে গেল কীভাবে-এমন প্রশ্নে মানিকগঞ্জ ছাত্রদলের সভাপতি বলেন, ‘আমি বিষয়টি শুনেছি। তদন্ত হচ্ছে। এমনকি ঘটে থাকলে সাংগঠনিকভাবে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

ঢাকাটাইমস/২৮জুলাই/প্রতিনিধি/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :