মায়ের পাশে ‘থাকবেন’ আমজাদ হোসেন

বিনোদন প্রতিবেদক
| আপডেট : ২২ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৯:৪৩ | প্রকাশিত : ২২ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৯:২৮
প্রয়াত চলচ্চিত্র নির্মাতা আমজাদ হোসেনের হাসিমাখা মুখের এই ছবিটি এখন শুধুই স্মৃতি

গ্রামের বাড়ি জামালপুরে মায়ের কবরের পাশে শায়িত হচ্ছেন চলচ্চিত্র পরিচালক, চিত্রনাট্যকার ও গীতিকার প্রয়াত আমজাদ হোসেন। মৃত্যুর আগে প্রখ্যাত এই নির্মাতা এমন ইচ্ছার কথাই জানিয়ে রেখেছিলেন পরিবারকে। আগামীকাল রবিবার সকাল ১০টায় পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করে তার সেই ইচ্ছা পূরণ করা  হচ্ছে।  

তবে আমজাদ হোসেনের স্ত্রী সুরাইয়া আক্তার চেয়েছিলেন ঢাকায় বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে স্বামীকে দাফন করতে। কিন্তু দুই ছেলে সাজ্জাদ হোসেন দোদুল ও সোহেল আরমান মায়ের সঙ্গে আলোচনা করে বাবার ইচ্ছাকেই প্রাধান্য দেন।

মৃত্যুর ছয় দিন পর শুক্রবার সন্ধ্যায় ব্যাংকক থেকে দেশে আনা হয় আমজাদ হোসেনের মরদেহ। এরপর শনিবার সকালে মরদেহ নেওয়া হয় ঢাকার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। সেখানে সর্বস্তরের মানুষ প্রয়াত নির্মাতাকে শেষ শ্রদ্ধা জানান।

পরে মরদেহ নেওয়া হয় আমজাদ হোসেনের দীর্ঘদিনের কর্মস্থল এফডিসিতে।  সেখানে প্রবীণ ও নবীণ সহকর্মীরা চোখের জলে তাকে শেষ বিদায় দেন। এফডিসিতে প্রথম জানাজা শেষে মরদেহ নেওয়া হয় চ্যানেল আই ভবন প্রাঙ্গণে। সেখানে দ্বিতীয় শ্রদ্ধা নিবেদন ও দ্বিতীয় জানাজার নামাজ শেষে মরদেহ জামালপুরের উদ্দেশে নিয়ে যাওয়া হয়।

গত ১৪ ডিসেম্বর ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান মুক্তিযোদ্ধা চিত্রপরিচালক আমজাদ হোসেন। তার চিকিৎসায় প্রায় ৬৫ লাখ টাকা খরচ হয়। হাসপাতালের এত টাকা বিল মিটিয়ে বাবার মরদেহ দেশে আনতে পারছিলেন না দুই ছেলে দোদুল ও সোহেল। এ কারণে মরদেহ বাংলাদেশে আনতে বিলম্ব হয়। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহায়তায় মরদেহ দেশে আনা হয়।

এর আগে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণজনিত কারণে তেজগাঁওয়ের ইমপালস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল আমজাদ হোসেনকে। সেখানে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয়েছিল তাকে। কিন্তু অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য গুণী এই নির্মাতাকে ব্যাংককে পাঠানোর ব্যবস্থা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ জন্য ৪২ লাখ টাকা দেন তিনি।

ঢাকা টাইমস/২২ ডিসেম্বর/এএইচ

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিনোদন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :