বিরতিহীন ট্রেন ‘বনলতা এক্সপ্রেসের’ যাত্রা শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৫ এপ্রিল ২০১৯, ১১:৪২ | প্রকাশিত : ২৫ এপ্রিল ২০১৯, ১১:১৫

রাজশাহী-ঢাকা রুটে বিরতিহীন ট্রেন ‘বনলতা এক্সপ্রেসের’ উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার পর গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ট্রেনটির শুভ উদ্বোধন করেন সরকারপ্রধান। বাঁশি বাজিয়ে ও সবুজ পতাকা উড়িয়ে ট্রেনটির উদ্বোধন করেন তিনি।

ট্রেনটির উদ্বোধনের আগে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আসন্ন ঈদ ও রাজশাহীর আমের কথা মাথায় রেখে এ সময়ে ট্রেনটির উদ্বোধন করা হচ্ছে।

রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশনে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধনের জন্য মঙ্গলবার রাতে ট্রেনটি রাজশাহীতে আনা হয়। উদ্বোধনের জন্য ট্রেনটি বুধবার সন্ধ্যায় স্টেশনের তিন নম্বর প্লাটফরমে রাখা হয়। রঙিন কাপড় আর নানা ধরনের ফুল দিয়ে সাজানো হয় ট্রেনটিকে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের জন্য প্রথম দিন ট্রেনটি দেরিতে রাজশাহী থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাবে। অন্যান্য দিন যথারীতি সকাল সাতটা থেকে ট্রেনটি ঢাকার উদ্দেশে রাজশাহী ছেড়ে যাবে।

উল্লেখ্য, রাজশাহী-ঢাকার মধ্যে প্রথম বিরতিহীন ট্রেনের ‘বনলতা এক্সপ্রেস’নামটি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই। ১২টি বগি নিয়ে ট্রেনটি বিরতিহীনভাবে চলবে। এসব বগির মধ্যে শোভন চেয়ারের বগি ৭টি, যার আসন সংখ্যা ৬৬৪টি। এসি বগি ২টি, আসন সংখ্যা ১৬০টি। একটি পাওয়ার কারের আসন সংখ্যা ১৬টি। দুটি গার্ডব্রেকের আসন সংখ্যা ১০৮টি। এছাড়া ট্রেনটিতে রয়েছে একটি খাওয়ার বগি। মোট আসন সংখ্যা ৯৪৮টি। নতুন ট্রেন সার্ভিসে ইন্দোনেশিয়া থেকে আনা নতুন বগি যুক্ত করা হবে।

ট্রেনটিতে সংযুক্ত রয়েছে উড়োজাহাজের মতো বায়োটয়লেট। এ কারণে মলমূত্র রেললাইনের ওপরে পড়বে না। ট্রেনটিতে থাকছে রিক্লেনার চেয়ার। আছে ওয়াইফাই সুবিধা। প্রতিটি বগিতে রয়েছে এলইডি ডিসপ্লে। যার মাধ্যমে স্টেশন ও ভ্রমণের তথ্য প্রদর্শন করা হবে। কিন্তু থাকছে না শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কোনো ধরনের শ্লিপিং বার্থ। রেল বিভাগের কর্মকর্তারা বলেছেন, যেহেতু ট্রেনটি দিনের বেলা চলাচল করবে সে কারণে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বার্থের দরকার পড়ছে না আপাতত।

বনলতা এক্সপ্রেসের বগি নতুন হলেও ইঞ্জিনটি পুরাতন। ২০১৩ সালে ভারত থেকে আমদানি করা দুটি ভালো মানের ইঞ্জিন দিয়ে চলাচল করবে ট্রেনটি। ঘণ্টায় ট্রেনটির সর্ব্বোচ্চ গতিবেগ ৯০ থেকে ৯৫ কিলোমিটার। রাজশাহী-ঢাকা চলতে ট্রেনটির সময় লাগতে পারে চার থেকে সাড়ে চার ঘণ্টা। সপ্তাহের শুক্রবার ছাড়া প্রতিদিন সকাল ৭টায় ট্রেনটি রাজশাহী থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাত্রা করবে। আবার দুপুর দেড়টায় ট্রেনটি ঢাকা থেকে রাজশাহী ফিরে আসবে।

ঢাকাটাইমস/২৫এপ্রিল/এমআর

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :