১০ কোম্পানির দ্বিতীয় প্রান্তিক প্রকাশ

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৫ জুলাই ২০১৯, ২২:১৭

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ইসলামী ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক, এক্সিম ব্যাংক, হোলসিম লাফার্জসহ ১০ কোম্পানি তাদের দ্বিতীয় প্রান্তিক (এপ্রিল-জুন ২০১৯)  প্রকাশ করেছে।  

আয় বেড়েছে ইসলামী ব্যাংকের

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি ইসলামী ব্যাংক দ্বিতীয় প্রান্তিকের (এপ্রিল-জুন ২০১৯) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। তাতে দেখা যায় গত বছরের একই সময়ের চেয়ে এবার ব্যাংকটির আয় বেড়েছে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির কনসলিডেটেড শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৬৪ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ১ টাকা ৫২ পয়সা। আর এককভাবে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৬৩ পয়সা। যা আগের বছর একই সময়ে ছিল  ১ টাকা ৫০ পয়সা।

ছয় মাসে (জানুয়ারি-জুন,১৯) কোম্পানির কনসলিডেটেট শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ৫ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ১ টাকা ৮৮ পয়সা। আর এককভাবে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৯৯ পয়সা। যা আগের বছর একই সময়ে ছিল  ১ টাকা ৯৪ পয়সা

৩০ জুন ২০১৯ শেষে কোম্পানির কনসলিডেটেড শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য হয়েছে (এনএভিপিএস) হয়েছে ৩৫ টাকা ৫৩ পয়সা। আর এককভাবে হয়েছে ৩৫ টাকা ১১ পয়সা।

ন্যাশনাল ব্যাংক

আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির কনসলিডেটেড শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২৫ পয়সা (রিস্টেটেড)। আগের বছর একই সময়ে ছিল ৩৯ পয়সা।

ছয় মাসে (জানুয়ারি-জুন,১৯) কোম্পানির কনসলিডেটেড শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪২ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ৫০ পয়সা।

৩০ জুন ২০১৯ শেষে কোম্পানির কনসলিডেটেড শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য হয়েছে (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৭ টাকা ১৯ পয়সা।

আইডিএলসি ফাইন্যান্

দ্বিতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির কনসলিডেটেড শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৩১ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ১ টাকা ৪৯ পয়সা।

ছয় মাসে (জানুয়ারি-জুন ’১৯) কোম্পানির কনসলিডেটেড শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ৭৯ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ২ টাকা ৯৫ পয়সা।

৩০ জুন ২০১৯ শেষে কোম্পানির কনসলিডেটেড শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য হয়েছে (এনএভিপিএস) হয়েছে ৩৫ টাকা ৪৬ পয়সা।

রুপালী ইন্স্যুরেন্স

দ্বিতীয় প্রান্তিকের (এপ্রিল-জুন ’১৯) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৮৩ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ৬৭ পয়সা।

ছয় মাসে (জানুয়ারি-জুন,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ২৯ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ১ টাকা ২৭ পয়সা।

ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক

দ্বিতীয় প্রান্তিকের (এপ্রিল-জুন ’১৯) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুয়ায়ী আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির কনসলিডেটেড শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৭১ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ৭৪ পয়সা।

ছয় মাসে (জানুয়ারি-জুন ১৯) কোম্পানির কনসলিডেটেড শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ১৫ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ১ টাকা ৫ পয়সা।

৩০ জুন ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদমূল্য হয়েছে (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৮ টাকা ১৮ পয়সা।

এক্সিম ব্যাংক

দ্বিতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন মতে আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫৬ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ১৩ পয়সা।

৩০ জুন ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য হয়েছে (এনএভিপিএস) হয়েছে ২০ টাকা ৫৪ পয়সা।

লাফার্জ হোলসিম

দ্বিতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন মতে আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩৮ পয়সা (বেসিক)। আগের বছর একই সময়ে ছিল ২৬ পয়সা। গত বছরের তুলনায় প্রথম প্রান্তিকে কোম্পানিটির ইপিএস প্রায় ৪৫ শতাংশ বেড়েছে।

ছয় মাসে (জানুয়ারি-জুন,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬৮ পয়সা(বেসিক)। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ৪৫ পয়সা।

৩০ জুন ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য হয়েছে (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৩ টাকা ১৪ পয়সা।

গ্রীন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স

দ্বিতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির কনসলিডেটেড শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪১ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ৮৭ পয়সা। আর এককভাবে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪৬ পয়সা। যা গত বছর একই সময় ছিল ৭৭ পয়সা।

ছয় মাসে (জানুয়ারি-জুন,১৯) কোম্পানির কনসলিডেটেড শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ২৪ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ১ টাকা ৫৯ পয়সা। আর এককভাবে  শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ২৮ পয়সা। যা গত বছর একই সময় ছিল ১ টাকা ৪৭ পয়সা।

৩০ জুন ২০১৯ শেষে কোম্পানির কনসলিডেটেড শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য হয়েছে (এনএভিপিএস) হয়েছে ৭৬ টাকা ৩৯ পয়সা। আর  এককভাবে হয়েছে ৭৩ টাকা ৬৯ পয়সা।

ইস্টল্যান্ড ইন্স্যুরেন্স

দ্বিতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন মতে,আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪৮ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ৪৮ পয়সা।

ছয় মাসে (জানুয়ারি-জুন,১৯) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৯৪ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ৯২ পয়সা।

৩০ জুন ২০১৯ শেষে কোম্পানির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য হয়েছে (এনএভিপিএস) হয়েছে ২১ টাকা ১৩ পয়সা।

প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স

দ্বিতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী আলোচ্য সময়ে কোম্পানির জীবন বীমা একাউন্ট থেকে আয় বেড়েছে ৫ কোটি ৫৮ লাখ ৫০ হাজার টাকা। এতে কোম্পানির জীবন বীমার সর্বমোট ফান্ড দাড়িয়েছে ৫৬৫ কোটি ৭ লাখ ৬০ হাজার টাকা। এবং ছয় মাসে (জানুয়ারি-জুন’১৯) কোম্পানির জীবন বীমা একাউন্ট থেকে আয় বেড়েছে ১০ কোটি ১৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা। এতে কোম্পানির জীবন বীমার সর্বমোট ফান্ড দাড়িয়েছে ৫৬৫ কোটি ৭ লাখ ৬০ হাজার টাকা।

(ঢাকাটাইমস/২৫জুলাই/মোআ)

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :