সিরিয়ায় পাঁচ দিনের যুদ্ধবিরতিতে তুরস্কের সম্মতি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ১৩:২৩

চলমান উত্তেজনার মধ্যেই সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় কুর্দি বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধবিরতিতে সম্মতি জানিয়েছে তুরস্ক। যুদ্ধবিরতির সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

বৃহস্পতিবার তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারায় মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের সঙ্গে আলোচনা করেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান। দু’জনের ওই সাক্ষাতের পরেই পাঁচ দিনের যুদ্ধবিরতিতে সম্মতির কথা জানিয়েছে তুরস্ক। পাঁচ দিনের যুদ্ধবিরতির মধ্যে সীমান্তের ৩০ কিলোমিটার এলাকা থেকে কুর্দি গেরিলাদের সরে যাওয়ার শর্তও দিয়েছেন এরদোয়ান।

সাক্ষাৎ এর পর মার্কিন ভাইস-প্রেসিডেন্ট পেন্স বলেন,‘‘সব ধরনের যুদ্ধ ৫ দিন বন্ধ থাকবে। তুরস্কের হিসাবে তারা সীমান্ত এলাকায় যে ‘নিরাপদ অঞ্চল’ সৃষ্টি করতে চায়, ওই এলাকা থেকে কুর্দি বাহিনী প্রত্যাহারে যুক্তরাষ্ট্র সাহায্য করবে।’’

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রশংসা করে পেন্স বলেন,‘‘ট্রাম্প যুদ্ধবিরতি চেয়েছেন। সহিংসতা থামাতে চেয়েছেন। তার দৃঢ় নেতৃত্বের কারণেই যুদ্ধবিরতি সম্ভব হয়েছে। যুদ্ধবিরতির কারণে লাখ লাখ মানুষের প্রাণ রক্ষা পাবে।’’

তবে কুর্দি নেতৃত্বাধীন সিরিয়ান ডেমোক্রেটিক ফোর্স (এসডিএফ) সিরিয়ার সীমান্ত থেকে সরে গেলে এ যুদ্ধবিরতি স্থায়ী হবে বলে জানিয়েছেন তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলু।

মেভলুত কাভুসোগলু বলেন,‘‘আমরা অভিযান স্থগিত রাখছি, বন্ধ করছি না। কুর্দি বাহিনী ওই এলাকা থেকে আমাদের অভিযান বন্ধ হবে।’’

কিন্তু তুরস্কের যুদ্ধবিরতি সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানালেও সৈন্য প্রত্যাহারের শর্তে কুর্দিরা রাজি হয়েছে কিনা তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। 

কুর্দি নেতৃত্বাধীন বাহিনীর অন্যতম শীর্ষ কমান্ডার মজলুম কোবানি বলেছেন, তারা রাস আল-আইন ও তাল আবিয়াদে যুদ্ধবিরতি কার্যকর হচ্ছে কিনা তা দেখবেন। 

যুক্তরাজ্যভিত্তিক যুদ্ধ পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে, যুদ্ধবিরতির সিদ্ধান্ত হওয়ার পরও রাস আল-আইনে সংঘর্ষের খবর পেয়েছেন তারা।

তুরস্কের এ ‘অপারেশন পিস স্প্রিং’ অভিযানের ৮ দিনে সিরিয়ায় অন্তত ৭২ বেসামরিকের মৃত্যু হয়েছে বলেও জানিয়েছে তারা। উদ্বাস্তুর সংখ্যা ছাড়িয়ে গেছে ৩ লাখ।

ঢাকাটাইমস/১৮অক্টোবর/আরআর

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :