চোখ দিয়ে করোনা যেভাবে শরীরে ঢোকে

স্বাস্থ্য ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৮ এপ্রিল ২০২০, ১৮:০৩

সারা বিশ্বের মানুষ করোনাভাইরাসের ঝুঁকিতে রয়েছে। এই ভাইরাসের মস্তিষ্কে প্রভাব ফেলা নিয়ে বিশেষজ্ঞরা এখনও নিশ্চিত নন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কোনও ব্যক্তির প্রতিরোধ ক্ষমতা কতটা শক্তিশালী বা দুর্বল, তার উপর নির্ভর করে এই অসুখ কার শরীরে কতটা থাবা বসাবে। তবে, করোনা নিয়ে অকারণ আতঙ্ক নয়, বরং নিয়ম মেনেই দূরে থাকতে হবে।

মুখ ও নাক ঠিকই ঢাকছেন মাস্কের সাহায্যে তবে আপনার চোখ কতটা সুরক্ষিত ভেবে দেখেছেন কি। যেখানে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা থেকেও বারবার বলা হয়েছে, চোখ, নাক ও মুখের সাহায্যেও করোনাভাইরাস প্রবেশ করতে পারে। তবে চোখের সুরক্ষা নিয়ে সেভাবে বলা হয়নি কোনো কথা।

সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞদের মতে, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মানুষের হাঁচি-কাশির ড্রপলেট বায়ুতে ঘুরে বেড়ায়। রোগীর কাছাকাছি থাকা সুস্থ মানুষের নাক, মুখ ও চোখের মাধ্যমে তার শরীরে প্রবেশ করে এই ড্রপলেট। শরীরে এসেই ভাইরাসের অণুগুলো দ্রুত নাসাপথের পিছন দিকে বা গলার ভিতরের দিকে মিউকাস মেমব্রেনের ভিতরে গিয়ে সেখানকার কোষে হানা দেয়। সেই কোষই তখন হয়ে যায় গ্রাহক বা রিসেপ্টর কোষ। আর মুখ ও নাকের পর মারণ এই ভাইরাসের সংক্রমণের অন্যতম মাধ্যম হল চোখ। মাস্ক পরা সত্ত্বেও মনের অজান্তে যখন-তখন হাত চলে যায় চোখে, সেখান থেকে শরীরে প্রবেশ করে। সে কারণ, চোখে যাতে হাত দেওয়া না হয় সে ব্যাপারে যত্নশীল হতে হবে প্রত্যেককে। তবে, করোনা নিয়ে অকারণ আতঙ্ক নয়, বরং নিয়ম মেনেই দূরে থাকুন।

বেশির ভাগ ক্ষেত্রে চোখের অশ্রুগ্রন্থির সঙ্গে মিশে গিয়ে এই ভাইরাস চোখের নেত্রনালিতে চলে যায়। এর পর তা সরাসরি নাকে প্রবেশ করে এবং সেখান থেকে শ্বাসতন্ত্রে যায় এবং সংক্রমণ শুরু করে।

চোখের অশ্রুগ্রন্থি থেকে ট্রাকিয়া হয়ে ফুসফুসে পৌঁছয়। এর ফলে শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা তৈরি করতে পারে। শিকাগো স্কুল অব মেডিসিনের প্যাথোলজি বিভাগের অধ্যাপক সু-ইউয়ান জিয়াও চিনের করোনা-আক্রান্ত রোগীদের রিপার্ট পরীক্ষা করেন। তাঁর মতে, ফুসফুসের দুই পাশের পেরিফেরিয়াল অঞ্চলে আক্রমণ করে উপরের শ্বাসানালী ও ট্রাকিয়ার দিকে ছড়িয়ে পড়ে ভাইরাস। যারা কন্টাক্ট লেন্স পরেন তাদের করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি। কারণ তারা অন্যদের তুলনায় বেশি করে চোখ স্পর্শ করেন। তাই কন্টাক্ট লেন্স যারা পরেন তারা যেন হাত বার বার করে পরিষ্কার করুন। লেন্স খোলা বা পরার সময় অবশ্যই হাত জীবাণুমুক্ত করে নিতে হবে। যেকোনো উপায়ে হাত যেন চোখে-মুখে না যায় সে ব্যাপারে সচেতন হতে হবে। নিতান্তই চোখে হাত দিতে হলে টিস্যু পেপার ব্যবহার করা উচিত।

চোখের বিশেষ চারিত্রিক গঠনের জন্য হয়তো সংক্রমিত ব্যক্তির থেকে ড্রপলেট সরাসরি চোখে ঢুকবে না। কারণ বাইরের কিছু ঢোকার মুহূর্তে চোখ স্বাভাবিকভাবেই বন্ধ হয়ে যায়। তবে হাতে ভাইরাস লেগে থাকলে তা চোখ ঘষার মাধ্যমে শরীরে ঢুকতে পারে।

(ঢাকাটাইমস/৮এপ্রিল/আরজেড/এজেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

স্বাস্থ্য বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :