বাদামি নাকি সাদা রুটি খাবেন?

স্বাস্থ্য ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৮ অক্টোবর ২০২০, ১৫:০৯ | প্রকাশিত : ১৮ অক্টোবর ২০২০, ১৪:৩৯

সারাদিনের সতেজতার জন্য দিনের শুরুর খাবারটি গুরুত্বপূর্ণ। সকালের খাদ্যতালিকায় কেউ খান ব্রাউন ব্রেড, কেউ হোয়াইট ব্রেড। আসলে কোনটি খাওয়া ভালো।

পুষ্টিবিদদের একটা বড় অংশ বলেন, হোয়াইট ব্রেডে আঁশের পরিমাণ কম, এর গ্লাইসেমিক সূচকও বেশি। হোয়াইট ব্রেড তৈরিতে সাধারণত ময়দার সঙ্গে চিনি বা চর্বি যেমন ডালডাও ব্যবহৃত হয়। গ্লাইসেমিক সূচকের দিক দিয়ে হোয়াইট ব্রেড আর সহজ শর্করার মধ্যে তেমন পার্থক্য নেই। ডায়াবেটিস ও ওজনাধিক্য রোগীদের জন্য নিয়মিত না খাওয়া ভালো। ব্রেড যদি খেতে হয়, তাহলে ব্রাউন ব্রেড খাওয়া উচিত।

হোয়াইট ব্রেডের চেয়ে ব্রাউন ব্রেড বেশি পুষ্টিকর। ব্রাউন ব্রেড শরীর গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। হোয়াইট ব্রেডের তুলনায় ব্রাউন ব্রেডে অনেক কম ক্যালরি থাকে। তাই ব্রাউন ব্রেড খেলে ওজন বাড়ার আশঙ্কা থাকে না।

ব্রাউন ব্রেড খেলে রক্তে শর্করার মাত্রা বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে না। ব্রাউন ব্রেড হজম করতে যেমন কষ্ট হয় না, তেমনি এতে প্রচুর মাত্রায় ফাইবার থাকার করণে এটি খেলে নানা ধরনের পেটের রোগ হওয়ার আশঙ্কাও কমে।

হোল গ্রেন দিয়ে তৈরি হওয়ার করণে শরীরে খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে ভূমিকা রাখে ব্রাউন ব্রেড। প্রতিদিন ব্রাউন ব্রেড খেলে প্রায় ৪০ শতাংশ ওজন হ্রাস পায়। ব্রাউন ব্রেড রক্তচাপ কমায়। দাঁতের স্বাস্থ্য ভালো রাখতেও নানাভাবে সাহায্য করে।

সমস্ত ভাল গুণ কি কেবল ব্রাউন ব্রেডেরই! কোনও গুণই কি তবে নেই হোয়াইট ব্রেডের। এই কথা ভেবে যারা এতক্ষণে ভুরু কুঁচকে ফেলেছেন তাদের জানানো ভাল, হোয়াইট ব্রেড পাকস্থলীর জন্য উপকারী। হোয়াইট ব্রেড পাকস্থলীতে উপকারী ব্যাকটেরিয়া জন্মাতে সাহায্য করে। পাকস্থলীতে থাকা উপকারী ব্যাকটেরিয়া বা মাইক্রোবাইয়োম সুস্বাস্থ্যের জন্য খুবই জরুরি। এগুলো রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করে। মাইক্রোবাইয়োমের ঘাটতি মানুষকে ভাইরাস, ইনফেকশন ও অ্যালার্জির শিকারে পরিণত করতে পারে। আর হোয়াইট ব্রেড শরীরে এই উপকারী ব্যাকটেরিয়া ল্যাকটোব্যাসিলাসের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

ব্রাউন ব্রেডে ভিটামিন ও মিনারেলের মাত্রা সঠিক পরিমাণে থাকে। এটি স্বাস্থ্যসম্মত ও খুব পুষ্টিকর। খেতে সুস্বাদু হলেও রিফাইন বা পরিশোধিত হোয়াইট ব্রেডের পুষ্টিগুণ কম। পরিশোধনের ফলে দেহের জন্য উপকারী কিছু ভিটামিন ও মিনারেল নষ্ট হয়ে যায়। আঁশের পরিমাণ কম, এর গ্লাইসেমিক সূচকও বেশি। ব্রাউন ব্রেড অদ্রবণীয় খাদ্য আঁশ রক্তের কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। লিগনান নামক এক ধরনের উপাদান থাকায় ক্যানসার প্রতিরোধ করে। অদ্রবণীয় খাদ্য আঁশ ডায়াবেটিস রোগের জন্য উপকারী। কারণ, এটি রক্তের শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। হৃদ্‌যন্ত্রের জন্যও উপকারী। প্রচুর ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট থাকায় রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। ব্রাউন ব্রেড ওজন কমাতে সহায়তা করে। কোষ্ঠকাঠিন্যও দূর করে। বাদামি যে কোনও খাবারই অন্যান্য সাদা খাবারের তুলনায় অনেক বেশি উপকারী।

অনেকের শরীরে হোয়াইট ব্রেড বেশি তাড়াতাড়ি পরিপাক হয়, কারও শরীরে ব্রাউন ব্রেড পরিপাক হয় সহজে। তাই যদি হোয়াইট ব্রেড খেয়ে কোনও সমস্যা না হয়, আপনি স্বাস্থ্যের চিন্তা না করেই তা খেতে পারেন।

হোয়াইট ব্রেড বা হোয়াইট পাউরুটি তৈরির সময় ময়দার সঙ্গে পটাসিয়াম ব্রোমেট, বেনজল পেরক্সাইড এবং ক্লোরিন ডাই অক্সাইড গ্যাসের মতো যৌগগুলির ব্যবহার রা হয়। আর এই ব্যবহৃত যৌগগুলি অনেকআংশেই স্বাস্থ্য সমস্যার কারণ হতে পারে। অন্যদিকে, ব্রাউন ব্রেড তৈরি করার সময় আটার সঙ্গে এই ধরনের কোনও যৌগ ব্যবহার করা হয় না, ফলে আটার পুষ্টিগুণ বজায় থাকে।

হোয়াইট ব্রেডে অতিরিক্ত পরিমাণে চিনি থাকে এবং এই কারণে এতো ব্রাউন ব্রেডের চেয়ে অনেক বেশি ক্যালোরিও থাকে। আপনি যদি আপনার ডায়েটে হোয়াইট ব্রেড রাখেন তবে নিশ্চিত হয়ে আপনি দিনে দুটোর বেশি স্লাইস খাওয়া উচিৎ নয়। নিম্ন গ্লাইসেমিক ইনডেক্সযুক্ত ডায়েটগুলো স্বাস্থ্যকর কারণ তারা কোনওভাবেই রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়ায় না। ব্রাউন ব্রেডে হোয়াইট ব্রেডের তুলনায় কম গ্লাইসেমিক সূচক রয়েছে, যার অর্থ এটি আপনার রক্তে শর্করার মাত্রাকে প্রভাবিত করে না। এর ফলে ডায়াবেটিস, স্থূলত্ব এবং অন্যান্য হৃদরোগের ঝুঁকি কম থাকে।

হোল গ্রেইন থেকে ব্রাউন ব্রেড তৈরি হয় বলে, পুষ্টিবিদরা হোয়াইট ব্রেডের চেয়ে ব্রাউন ব্রেডকে বেশি পুষ্টিকর এবং স্বাস্থ্যকর হিসাবে মনে করে। কারণ ব্রাউন ব্রেডে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার রয়েছে। এছাড়া ব্রাউন ব্রেডে ভিটামিন ই৬, ভিটামিন ই, ম্যাগনেসিয়াম, ফলিক অ্যাসিড, জিঙ্ক, তামা এবং ম্যাঙ্গানিজ ইত্যাদি রয়েছে। অন্যদিকে, হোয়াইট ব্রেডতে ফাইবার কম থাকে তবে ব্রাউন ব্রেডের চেয়ে বেশি ক্যালসিয়াম থাকে। হোয়াইট ব্রেডে পাকস্থলীতে উপকারী ব্যাকটেরিয়া জন্মাতে সাহায্য করে। আর সুস্থ থাকতে এই উপকারী ব্যাকটেরিয়া পাকস্থলীতে থাকা খুবই জরুরি।

বেশি বয়সী ও শিশুদের হোয়াইট ব্রেড আর মধ্যবয়সীদের ব্রাউন ব্রেড খাওয়া উচিত, এমনটাই অভিমত নিউট্রিশিয়ানদের একটা বড় অংশের।

(ঢাকাটাইমস/১৮ অক্টোবর/আরজেড/এজেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

স্বাস্থ্য বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :