বঙ্গবন্ধুর কাজ ও কথা এখনো প্রাসঙ্গিক: শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ২১:৪৪

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি বলেছেন, ‘বাঙালির প্রতি বঙ্গবন্ধুর ছিল অপার ভালোবাসা। পারিবারিকভাবেই অসাম্প্রদায়িক, মানবতাবাদী, সমাজসচেতন এবং গণতান্ত্রিক বিশ্বাস নিয়ে তিনি বেড়ে উঠেছেন। ঝঞ্ঝাবিক্ষুব্ধ এক কঠিন জীবন ছিল তার নিত্যদিনের পথচলা। স্বাধীনতা এবং মুক্তির সংগ্রামে তিনি নিজেকে সবসময় নিবেদিত রেখেছেন। বিশ্বে যত আধুনিক বিজ্ঞানমুখী সমাজব্যবস্থা তৈরি হবে বঙ্গবন্ধু তত বেশি প্রাসঙ্গিক ও অপরিহার্য হবেন। তার লেখা বইগুলো যতবার পড়ি ঠিক এই কথাগুলোই বেশি মনে হয়। তার সময়ে তিনি যা কিছু করেছেন, যা কিছু বলেছেন তার সবকিছুই এখন অনেক বেশি প্রাসঙ্গিক। সে কারণেই তিনি ছিলেন, আছেন এবং থাকবেন আমাদের বাতিঘর ও দ্রুবতারা হয়ে। তার জন্মশতবার্ষিকী আয়োজনে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় যে বই প্রকাশ করেছে সেটি সত্যিই প্রশংসনীয় উদ্যোগ।’

বৃহস্পতিবার রাজধানীর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী পালন উপলক্ষ্যে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধু: সমাজ ও রাষ্ট্রভাবনা’ শীর্ষক গবেষণা গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী এমপি, বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশনের চেয়ারম্যান মো. সোহরাব হোসাইন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন।

সম্মানিত আলোচক হিসেবে বক্তব্য দেন ইতিহাসবিদ ও বিইউপির বঙ্গবন্ধু চেয়ার অধ্যাপক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, অর্থনীতিবিদ ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. মেসবাহ কামাল।

সভাপতির বক্তব্যে উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ বলেন, ‘দারিদ্র্য, অশিক্ষা, দুর্নীতি, কুসংস্কারমুক্ত, উন্নত সমৃদ্ধ অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানো ও সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠাই ছিল বঙ্গবন্ধুর সমাজভাবনা। আর বঙ্গবন্ধুর রাষ্ট্রভাবনা ছিল বাঙালির জন্য একটি স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা। সেই রাষ্ট্রভাবনা বাস্তবায়নে তিনি পাকিস্তান আন্দোলন পর্বে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর স্বাধীন ও অভিন্ন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার উদ্যোগের সঙ্গে দেশ বিভাগের পূর্বে সক্রিয়ভাবে যুক্ত হয়েছিলেন। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর বঙ্গবন্ধু ভাষা আন্দোলনে শুরু থেকে শুধু সক্রিয় ভূমিকাই পালন করেননি, তিনি ভাষা আন্দোলনের উভয় পর্বে নেতৃত্বাস্থানীয় ভূমিকা পালন করেন। ভাষা আন্দোলন বঙ্গবন্ধুর কাছে নিছক একটি রাষ্ট্রভাষার স্বীকৃতির আন্দোলন ছিল না, ভাষা আন্দোলন ছিল বাঙালির জাতীয় মুক্তি ও স্বাধীনতার আন্দোলনের সঙ্গে নিবিড়ভাবে যুক্ত। আর ৫২’র ভাষা শহীদের রক্তই ১৯৭১ সালের ৩০ লক্ষ শহীদের রক্তে মিশে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে জন্ম লাভ করে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ।’

(ঢাকাটাইমস/২৫ফেব্রুয়ারি/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

শিক্ষা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিক্ষা এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :