আন্তর্জাতিক বিড়াল দিবস আজ, জানুন মজার কিছু তথ্য

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৮ আগস্ট ২০২২, ১৬:৩০

বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় পোষা প্রাণির তালিকা করা হলে বিড়াল ওপরেই দিকেই স্থান পাবে। দিন দিন যেন বিড়ালের জনপ্রিয়তা বেড়েই চলেছে সব বয়সের মানুষের মধ্যে। বিশ্বব্যাপী বিড়াল প্রেমিদের জন্য প্রতি বছর ৮ আগস্ট পালন করা হয় বিড়াল দিবস।

বিড়াল দিবসে মনে করিয়ে দেওয়া হয়, পোষা প্রাণী হিসাবে বিড়াল থাকা মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য নেতিবাচক। এমনকি জ্ঞানীয় কার্যকারিতায়ও বিড়াল সহায়তা করে। শতাব্দি ধরে মানুষের সঙ্গে বসবাস করে আসছে বিড়াল। শুরুতে শিকারী-সংগ্রাহকরা বিড়ালকে শিকারের সঙ্গি হিসেবে গৃহে পালন শুরু করে। সেইথেকে তারা মানুষের সঙ্গে বাস করছে।

মাংস খাওয়া স্তন্যপায়ী প্রাণীদের মধ্যে বিড়াল সবচেয়ে বেশি বিশেষায়িত। তাদের মস্তিষ্ক বড় এবং উন্নত। পায়ের আঙ্গুলের ওপর ভর দিয়ে হাঁটার ক্ষমতাও আছে তাদের। একে বলা হয় ডিজিটিগ্রেড।

বিড়ালদের সম্মান ও অপব্যবহার থেকে রক্ষা করে জন্য প্রাণী কল্যাণের জন্য আন্তর্জাতিক তহবিলের মাধ্যমে বিড়াল দিবসটি পালন করা শুরু হয়েছিল। ১৯৫৮ সালে বিড়ালদের কল্যাণে কাজ করা অলাভজনক বৃটিশ প্রতিষ্ঠান ২০২০ সালে আন্তর্জাতিক বিড়াল দিবসের তত্ত্বাবধায়ক আন্তর্জাতিক ক্যাট কেয়ারে যোগ দেয়।

বিড়াল সম্পর্কে কিছু মজার তথ্য

বিড়ালের গড় ওজন ২.৭ কেজি থেকে ৪.৫ কেজি পর্যন্ত পরিবর্তিত হয়। এদের গড় দৈর্ঘ্য পুরুষদের ২৮ ইঞ্চি এবং মহিলাদের ২০ ইঞ্চি।

এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকার মতে, বিড়ালের ত্বক ডার্মিস এবং এপিডার্মিস দ্বারা গঠিত। এটি পুনরুত্থিত হয় এবং দ্রুত সংক্রমণ বন্ধ করে।

বিড়ালের চুলের ফলিকলগুলির সঙ্গে সংযুক্ত ছোট ইরেক্টর পেশীগুলির কারণেও তাদের ঝাঁকুনি দেওয়ার ক্ষমতা রয়েছে। এটি বিড়ালদের পিঠে খিলান দিয়ে এবং হিস হিস করে শত্রুদের ভয় দেখাতে সাহায্য করে।

বিড়াল প্রথমে সামনে এবং পিছনের পা একপাশে, তারপর সামনের এবং পিছনের পা অন্য দিকে সরিয়ে নিয়ে হাঁটতে বা দৌড়াতে পারে। শুধু উট এবং জিরাফ এইভাবে চলাফেরা করে।

বিড়ালের শরীরে দারুণ স্থিতিস্থাপকতা আছে। এটি সম্ভব কারণ এর মেরুদণ্ডের কশেরুকাগুলি মানুষের মতো লিগামেন্টের পরিবর্তে পেশী দ্বারা একত্রিত হয়। এইভাবে বিড়ালটি তার পিঠকে লম্বা করতে বা সংকোচন করতে পারে, এটিকে ওপরের দিকে বাঁকা করতে পারে বা মেরুদণ্ডের রেখা বরাবর দোলাতে পারে।

বিড়ালদের চ্যাপ্টা-মুকুট পেষণকারী দাঁত নেই এবং তাই এরা খাবার চিবাতে পারে না। পরিবর্তে, তারা খাবার কেটে ফেলে।

বিড়ালরা সাধারণত নিশাচর হয়। বিড়ালের চোখের রেটিনা গুয়ানিনের একটি স্তর দ্বারা আলোর প্রতি অতিরিক্ত সংবেদনশীল করে তোলে, যার কারণে চোখ রাতে জ্বলজ্বল করে।

স্পর্শ অনুভূতি বিড়ালদের মধ্যে তীব্র হয়। এদের ভ্রু, কাঁটা, গালের লোম এবং কানের ওপর সূক্ষ্ম চুলের গোড়া সবই কম্পনশীল উদ্দীপনার জন্য অত্যন্ত সংবেদনশীল।

(ঢাকাটাইমস/৮আগস্ট/এসএটি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :