‘বীরত্ব’র বীর ইমনের প্রশংসায় পঞ্চমুখ নির্মাতা চয়নিকা

বিনোদন প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:১১ | প্রকাশিত : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:০২

সাইদুল ইসলাম রানা পরিচালিত প্রথম চলচ্চিত্র ‘বীরত্ব’ দেখে খুশি নির্মাতা চয়নিকা চৌধুরী। তিনি এ সিনেমার গল্পের বেশ প্রশংসা করলেন। বিশেষ করে প্রশংসায় ভাসালেন ‘বীরত্ব’র বীর মামনুন হাসান ইমনকে। যিনি এই সিনেমায় একজন চিকিৎসকের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন। তিনি চিকিৎসা দেন, পাশাপাশি নারী পাচার ও মাদক কারবারিদের নির্মূল করতে জীবন বাজি রেখে কাজ করেন।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর পান্থপথের স্টার সিনেপ্লেক্সে ‘বীরত্ব’র প্রিমিয়ার শো-এর আয়োজন করে নির্মাতা কর্তৃপক্ষ। সেখানে সিনেমার কলাকুশলী ইমন, নিপুণ আক্তার, জেসমিনরা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন শিল্পী সমিতির সভাপতি ইলিয়াস কাঞ্চন, পরিচালক সোহানুর রহমান সোহান, মুশফিকুর রহমান গুলজার, শাহীন সুমন, প্রযোজক খোরশেদ আলম খসরু, অভিনেতা কাবিলাসহ অনেকে।

এসব গুণীদের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন ‘বিশ্বসুন্দরী’র নির্মাতা চয়নিকা চৌধুরীও। অতিথিরা একসঙ্গে বসে ‘বীরত্ব’ সিনেমাটি উপভোগ করেন। এরপর সিনেমা শেষে পরিচালক সাইদুল ইসলাম রানার সঙ্গে আলাপকালে নায়ক ইমনের ভূয়সী প্রশংসা করেন চয়নিকা।

এই নারী নির্মাতা বলেন, ‘ইমন আমার সঙ্গে অনেক কাজ করেছে। এর বাইরে আমি ওর অনেক কাজ দেখেছি। তবে এই সিনেমায় (বীরত্ব) ও যে অভিনয়টা করেছে, তা ক্যারিয়ারের সেরা। ওর এক্সপ্রেশন, গেটআপ, ড্রেসআপ, গলার মডিউলেশন, ডায়লগ ডেলিভারি- সবকিছুই পারফেক্ট।’ এ সময় নির্মাতা সাইদুল ইসলাম রান্নাকে উদ্দেশ্য করে চয়নিকা বলেন, ‘এর পুরো ক্রেডিট আপনার।’

সিনেমা দেখে ইমনের চরিত্রের প্রশংসা করেছেন দর্শকও। ‘বীরত্ব’তে লুতফা নামে এক যৌনকর্মীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন চিত্রনায়িকা নিপুণ আক্তার। যে কিনা মাসুম (আহসান হাবিব নাসিম) নামে এক নারী ও মাদক পাচারের দালালের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। তাকে ছাড়া অন্য কোনো পুরুষকে সে তার ঘরে ঢোকায় না। একসময় লুতফা অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে।

কিন্তু বিয়ের আশ্বাস দিয়েও মাসুম তাকে না করে বিয়ে, না চায় এই সন্তান পৃথিবীতে আসুক। উল্টো লুতফাকে সে যৌনপল্লী থেকে নারী পাচারে সাহায্য করতে বলে। কিন্তু লুতফা তাতে রাজি হয় না। পেটের সন্তানও নষ্ট করে না। সেই সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে মারা যায় লুতফা। ওদিকে মাসুম নারী পাচার মামলায় অভিযুক্ত হয়ে ৭ বছরের জন্য কারাগারে। কী হবে লুতফার এই বাচ্চার?

এই অবস্থায় নিজের প্রেমকে বলি দিয়ে, সরকারি হাসপাতালের চাকরি ছেড়ে, সমাজের নানা কটুকথাকে উপেক্ষা করে লুতফার সন্তানের দায়িত্ব নেন ইমন। চলে যান অন্য এলাকায়। বাবার আদরে বড় করতে থাকেন একজন যৌনকর্মীর সন্তানকে। এমনকি সেই সন্তানকে নারী ও শিশু পাচারকারীদের হাত থেকে বাঁচাতে নিজের জীবন পর্যন্ত দিয়ে দেন।

ইমনের চরিত্রের এই দিকটার প্রশংসা করেন সকল দর্শকই। অর্থাৎ, ‘বীরত্ব’তে শিক্ষামূলক অনেক কিছুই তুলে ধরা হয়েছে, যার বেশিরভাগই অত্যন্ত সাবলীলভাবে ফুটে উঠেছে ডাক্তার ইমনের চরিত্রের মধ্য দিয়ে। যিনি যৌনপল্লীর নারীদের চিকিৎসা দেওয়ার পাশাপাশি তাদের নারী ও মাদক পাচারকারীদের থেকে সচেতন করতে গিয়ে হয়ে ওঠেন সেসব অপরাধীদের শত্রু।

১৬ সেপ্টেম্বর থেকে ৩৪টি হলে চলছে ‘বীরত্ব’। এই সিনেমায় ইমনের বিপরীতে আছেন নবাগত নিশাত নাওয়ার সালওয়া। প্রধান খল চরিত্রে অভিনয় করেছেন ইন্তেখাব দিনার। আরও আছেন মুনিরা মিঠু, জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, বড়দা মিঠু, জেসমিন আক্তার, শিল্পী সরকার অপু, কচি খন্দকার, আরমান পারভেজ মুরাদ, রওনক হাসান ও শিশুশিল্পী মুনতাহা এমেলিয়াসহ অনেকে।

(ঢাকাটাইমস/২৩সেপ্টেম্বর/এএইচ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিনোদন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :