চীনের সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াং জেমিনের জীবনাবসান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৫:৪৬ | প্রকাশিত : ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৫:২২

চীনের সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াং জেমিনের জীবনাবসান ঘটেছে। প্রয়াণকালে তার বয়স হয়েছিল ৯৬ বছর। দেশটির ঐতিহাসিক তিয়ানানমেন স্কোয়ারে বিক্ষোভের পর ক্ষমতায় এসেছিলেন তিনি।

রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, বুধবার স্থানীয় সময় দুপুরের পরেই তিনি মারা যান।

সাম্প্রতিক দশকগুলোতে চীনের ইতিহাসের অন্যতম প্রধান ব্যক্তিত্ব তিনি। এমন একটি সময়ে তিনি দেশটির সভাপতিত্ব করেছিলেন যেখানে চীন একটি বিশাল আকারে উন্মুক্ত হয়েছিল এবং উচ্চ গতির বৃদ্ধি দেখেছিল।

তিয়ানানমেন বিক্ষোভের পর চীনের সবচেয়ে গুরুতর কোভিড বিধিনিষেধের বিরুদ্ধে বিক্ষোভের মতো ঘটনার সময়টায় তিনি মৃত্যুবরণ করেছেন।

তিনি ১৯৮৯ সালে বেইজিংয়ের তিয়ানানমেন স্কোয়ারে এবং এর আশপাশে বিক্ষোভকারীদের ওপর রক্তক্ষয়ী দমন-পীড়নের পর ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হন। এর ফলে চীন আন্তর্জাতিকভাবে বহিষ্কৃত হয়।

এই ঘটনা চীনের কমিউনিস্ট পার্টির শীর্ষস্থানীয় কট্টরপন্থী প্রতিক্রিয়াশীল এবং সংস্কারকদের মধ্যে তিক্ত ক্ষমতার লড়াইয়ের জন্ম দেয়।

কমিউনিস্ট পার্টি তখন জিয়াংকে নেতৃত্বের আসনে জায়গা দেয়। তাকে মূলত উচ্চ পদে উন্নীত করা একজন প্ররোচিত আমলা হিসেবে দেখা হতো। তবে তিনি কট্টরপন্থী এবং উদারপন্থী উপাদানকে একত্রিত করবেন এই আশায় তাকে আপসহীন নেতা হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছিল।

তার তত্ত্বাবধানে চীনে একটি শক্তিশালী অর্থনীতি তৈরি হয়েছিল, কমিউনিস্টরা তাদের ক্ষমতা আঁকড়ে ধরেছিল এবং চীন বিশ্ব শক্তির শীর্ষ টেবিলেও জায়গা করে নিয়েছে ততদিনে।

তিনি ১৯৯৭ সালে হংকংয়ের শান্তিপূর্ণ হস্তান্তর এবং ২০০১ সালে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থায় চীনের প্রবেশের তত্ত্বাবধান করেন যা দেশের অর্থনীতিকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে জড়িত করে।

কিন্তু রাজনৈতিক সংস্কারও একদিকে রাখা হয়েছিল এবং ১৯৯৯ সালে ধর্মীয় সম্প্রদায় ফালুন গং-এর ওপর কঠোর হস্তক্ষেপের জন্য তিনি সমালোচিত হন। এই ঘটনাকে কমিউনিস্ট পার্টির জন্য হুমকি হিসেবে দেখা হয়েছিল।

(ঢাকাটাইমস/৩০নভেম্বর/ এসএটি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :