প্রবীণদের সাহায্য করলে তাদের মন খুশিতে ভরে ওঠে

রেজাউল মাসুদ
 | প্রকাশিত : ২৪ অক্টোবর ২০২৩, ০৮:৫৭

“তুমি যেভাবে আমার মুখের দিকে তাকিয়ে আমার কথাগুলো মনোযোগ সহকারে শুনলে তাতেই আমার সকল সমস্যার সমাধান হয়ে গেছে বাবা।”

বয়স তার ৮২। প্রবীণ মানুষ।আমাদের এলাকার ভাসানীনগরের ইনিই ভাসানী সাহেব।আমার বাবার সমবয়সী তিনি।আমার অফিসের এড্রেস যোগাড় করে এই বয়সেও কোনরকম ঝামেলা ছাড়াই সরাসরি চলে এসেছেন। কানে একটু কম শুনলেও উনার কথার পিঠে কথা বলার ধরনটা আমার বেশ ভাল লাগল।

তার ছেলেমেয়েদের কথা শুনলাম!। কে কোথায় আছে,কি করছে বিস্তারিত তিনি জানালেন। শারিরীক অবস্থার কথাও বললেন। দুপুরে খাওয়ার অফার করলে আত্মসম্মান নিয়ে তিনি অপারগতা প্রকাশ করেন। পরে জোর করে খাইয়ে দিলাম। বয়েসে প্রবীণ ব্যক্তিদের সাহায্য করলে তাদের মন খুশিতে ভরে ওঠে। তার সমস্যার সমাধান করে দেওয়ায় যাওয়ার সময় পরিতৃপ্তির হাসি নিয়ে বললেন, তুমার বাবা অনেক সহজ সরল আর মানবিক ছিলেন। কিন্ত তুমি এত দায়িত্বশীল পদে থেকেও আরও বেশী মানবিক। আল্লাহ তোমার সবসময় মঙ্গল করবেন।

প্রবীণদের প্রতি ভালোবাসা শুধু লোকদেখানো নয়, তাদের ঠিকানা হোক অন্তরে। এটা আমাদের ভুলে গেলে চলবে না আজকের নবীন একদিন আপনি আমিও হবো প্রবীণ।

এক লোক রাসূলুল্লাহ সা:কে প্রশ্ন করলেন, হে আল্লাহর রাসূল, সর্বোত্তম লোক কে? রাসূলুল্লাহ সা: জবাবে বললেন, যার বয়স বেশি এবং ভালো আমলের অধিকারী।

লেখক: পুলিশ কর্মকর্তা

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফেসবুক কর্নার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :