ভোগের নয়, ত্যাগের রাজনীতি করতে চাই: আদনান রনি

রুদ্র রাসেল ও জাফর আহমেদ, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ২৬ অক্টোবর ২০২৩, ০৮:৩৬ | প্রকাশিত : ২৬ অক্টোবর ২০২৩, ০৮:০৯

বাবা মো. সাহাবুদ্দিন দেশের রাষ্ট্রপ্রধান এর চেয়ে বড় প্রাপ্তি আর কিছু নেই আরশাদ আদনান রনির। তবে এখন তার চাওয়া জনগণের সেবা করা। আর সেই লক্ষ্য থেকেই রনি ত্যাগের রাজনীতি করতে চান বলে জানালেন ঢাকা টাইমসকে। একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, জনগণের প্রতিনিধি হিসেবে যেতে চান সংসদে।

ছাত্রলীগ ও যুবলীগের রাজনীতি করে আসা রাষ্ট্রপতিপুত্র রনি বর্তমানে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটির সদস্য।

সম্প্রতি পাবনা-৫ আসনে নৌকার প্রার্থী হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন রনি। সেই ইচ্ছাতে রাষ্ট্রপতি বাবার সম্মতি আছে বলেও জানিয়েছেন।

এরই মধ্যে তিনি পাবনা সদরে নির্বাচনী মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের বিপুল সাড়া পাচ্ছেন বলেও খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছে ঢাকা টাইমস।

ঢাকা টাইমসের সঙ্গে আলাপকালে আরশাদ আদনান রনি তার রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড নিয়ে খোলামেলা কথা বলেছেন। জানিয়েছেন কীভাবে পাবনার মানুষের জন্য নিরলস কাজ করতে চান তিনি।

গত মঙ্গলবার আদনান রনির ব্যক্তিগত কার্যালয়ে ঢাকা টাইমসের দুই প্রতিবেদক খোলাখুলি কথা বলেছেন তার সঙ্গে।

ঢাকা টাইমসকে রনি বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ ও বাবার (রাষ্ট্রপতির) অনুপ্রেরণা নিয়ে রাজনীতি করতে চাই। পাবনাবাসীর জন্য কাজ করাই আমার একমাত্র লক্ষ্য।’

‘পাবনা-৫ আসনের মানুষও আমাকে এমপি হিসেবে দেখতে চায়। কারণ, আমি পাবনার সন্তান, সাহাবুদ্দিন চুপ্পুর সন্তান, রাষ্ট্রপতির সন্তান।’

রাষ্ট্রপতি হওয়ার আগে মো. সাহাবুদ্দিন পাবনার মানুষকে নিয়ে যে প্লাটফর্ম গড়েছেন সেখানে দাঁড়াতে চান রনি। ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘মহামান্য রাষ্ট্রপতি পাবনা থেকে এমপি নির্বাচন করতে চেয়েছিলেন। কোনো কারণে হয়তো করেননি।’

‘এখন তিনি দেশের রাষ্ট্রপতি। ছেলে হিসেবে তার অসমাপ্ত কাজগুলো করার দায়িত্ব আমার ওপরেই বর্তায়। রাষ্ট্রপতি হওয়ার আগে বাবা সবসময় মানুষের জন্য কাজ করেছেন। তাই সাধারণ মানুষের জন্য কাজ করা আমার রক্তেই আছে।’

এক প্রশ্নের জবাবে আদনান রনি বলেন, মানুষের কাছে থেকে, মানুষের পাশে থেকে কাজ করছেন বলেই তিনি আগামী নির্বাচনে দলের মনোনয়ন পাবেন বলে দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করেন।

রাষ্ট্রপতি সাহাবুদ্দিন একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেওয়ার পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। যার কারণে পঁচাত্তরে জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যার পর তাকে তিন বছর কারাবরণ করতে হয়। সেসময় অনেক অত্যাচার নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন এ বীর মুক্তিযোদ্ধা।

এ প্রসঙ্গের অবতারণা করে রাষ্ট্রপতিপুত্র রনি ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘বাবাকে যখন জেলে নিয়ে যাওয়া হয়, তখন আমি দেড় মাসের শিশু। পরে বাবা জেল থেকে বের হয়ে আইনজীবী পেশায় নিযুক্ত হন। পরবর্তীতে সরকারি চাকরিতে নিযুক্ত হওয়ায় সক্রিয়ভাবে রাজনীতি করার সুযোগ পাননি।’

আওয়ামী লীগ সরকারে আসার পর ২০১১ সালে অবসরপ্রাপ্ত জেলা ও দায়রা জজ মো. সাহাবুদ্দিন দুর্নীতি দমন কমিশনের কমিশনার হিসেবে নিযুক্ত হন। দুদকের কমিশনার থাকাকালীন তিনি পাবনার মানুষের জন্য অনেক কাজ করেছেন বলে জানান ছেলে রনি।

এ প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে ঢাকা টাইমসকে তিনি বলেন, ‘এখন তো আমার বাবা দেশের রাষ্ট্রপতি। এটা দেশবাসী ও পাবনার মানুষের জন্য বড় পাওয়া।’

পাবনায় রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র হওয়ায় ব্যবসা-বাণিজ্যের নতুন সুযোগ তৈরি হয়েছে। এছাড়া এয়ারপোর্ট চালু করা গেলে জেলাটির অভূতপূর্ব উন্নয়ন হবে বলে মনে করেন পাবনা-৫ আসনে নৌকার মনোনয়নপ্রত্যাশী রনি।

ঢাকা টাইমসকে তিনি বলেন, ‘আমি চাই রাজশাহী ও কিশোরগঞ্জ জেলার মতো একটি দৃষ্টিনন্দন শহর হিসেবে গড়ে উঠুক পাবনা। এছাড়া পাবনা একটি কৃষিনির্ভর এলাকা।’

‘পাবনায় প্রচুর পাট উৎপাদন হয়। আকিজ জুটমিল গড়ে উঠেছে। এছাড়া কয়েকটি কোম্পানিকে প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে আমি উদ্বুদ্ধ করছি। কারণ, এতে করে প্রচুর মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে।’

পাবনায় বহুল কাঙ্ক্ষিত পাবনা মেডিকেল কলেজের ৫০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল নির্মাণকাজ চলছে। গত ২৮ সেপ্টেম্বর এই নির্মাণকাজের উদ্বোধন করেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন। এছাড়া রাজধানী ঢাকার সঙ্গে পাবনার রেল যোগাযোগ স্থাপনের কাজও শুরুর কথা রয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে দেশের মধ্যাঞ্চলের জেলা পাবনায় সরকারের এসব উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরেন রাষ্ট্রপতিপুত্র রনি।

এছাড়া ইছামতী নদীকে উদ্ধার করে ওয়াকওয়ে আর শিশুপার্ক নির্মাণ করা, কয়েকটি ব্রিজ নতুন করে তৈরি করা, রাস্তা বড় করা, মাদক ও সন্ত্রাস নির্মূল করে আদর্শ পাবনা গড়তে তার পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন তিনি।

নির্বাচনী মাঠে নামার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে রনি জানান, কেবল নির্বাচনকে ঘিরেই নয় তিনি বরাবরই সাধারণ মানুষের কাছে ছুটে আসেন, তাদের কথা শোনেন।

রনি ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘এবার প্রতিটা ইউনিয়ন থেকে ডিগ্রি পাস ১০ জনকে দিয়ে একটা গ্রুপ তৈরি করে এলাকার মানুষের সমস্যা চিহ্নিত করে চাহিদা অনুযায়ী সমাধান করা হবে।’

রাষ্ট্রপতিপুত্র বলছেন, এলাকার সাধারণের সুবিধা-অসুবিধাকে গুরুত্ব দেন বলেই তার প্রতি ভোটারদের আস্থা রয়েছে। তারা সংসদে তাকেই প্রতিনিধি দেখতে চান।

রনি বলেন, ‘পাবনা-৫ আসনের মানুষ আমাকে চায়। কারণ, তারা মনে করে বর্তমান এমপি দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থেকে এলাকার মানুষের জন্য কিছু করেননি। আমি এমপি হলে ব্যাপক উন্নয়ন করে এলাকার চিত্র পাল্টে দেবো।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২০৪১ বাস্তবায়নে এরইমধ্যে এলাকার শিক্ষিত যুবকদের নিয়ে কাজ শুরু করেছেন বলেও ঢাকা টাইমসকে জানালেন আরশাদ আদনান রনি।

রাষ্ট্রপতিপুত্র বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়নের ফলে গোটা বাংলাদেশ যেভাবে বদলে গেছে তার অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে আবারও আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আনতে হবে।’

তার রাজনৈতিক জীবনের পেছনে বাবা সাহাবুদ্দিনের আদর্শ আর প্রেরণার কথা তুলে ধরে আরশাদ আদনান রনি বাবার কাছে পাওয়া শিক্ষা নিয়েই ভবিষ্যতে পথ চলার আশাবাদ রাখেন।

(ঢাকাটাইমস/২৬অক্টোবর/ডিএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

সাক্ষাৎকার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সাক্ষাৎকার এর সর্বশেষ

ইসলামের ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে কিছু জঙ্গি সংগঠন মাথাচাড়া দিতে চায়

আধুনিক মানের যাত্রীসেবা নিশ্চিতে কাজ করছে বেবিচক

গণতন্ত্রের স্বার্থে সংসদে শক্তিশালী বিরোধী দল থাকা প্রয়োজন: ড. রাশেদা রওনক খান

বিগত সংসদের সঙ্গে এই সংসদের তুলনা হবে না: আরেফিন সিদ্দিক

ঢাকায় ক্র্যাকডাউনের খবর শুনে আমরা বিদ্রোহ করি

আমি মনে করি নদী খেকো ও বালু খেকোদের বিজয় হয়েছে: ড. মনজুর আহমেদ চৌধুরী

যা ন্যায্য তাই বলি: ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ

বাংলাদেশ নিয়ে পশ্চিমাদের অবস্থান অনেক ক্ষেত্রে দ্বিমুখী ও পরস্পরবিরোধী

একটি ব্যাংককে পথে বসাতে খেলাপি ঋণই যথেষ্ট: মোসলেহ উদ্দীন আহমেদ

‘পরিবহন সেবায় জনগণের অন্তরে স্থান পেয়েছে বিআরটিসি’

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :