জাহাজ মেরামতে ক্লায়েন্ট সেজে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ১২ জুন ২০২৪, ২১:৩৪

একটি চক্রের বিরুদ্ধে ব্যবসায়িক কৌশলে ক্লায়েন্ট সেজে ফাঁদে ফেলে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টার অভিযোগ করেছে-থ্রি অ্যাংগেল মেরিন লিমিটেড।

বুধবার বিকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচাস্থ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনী হলে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন কোম্পানির উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম।

লিখিত বক্তব্যে শহিদুল ইসলাম বলেন, একটি অসাধুচক্র তাদের মুন্সিগঞ্জের ডক ইয়ার্ডে একটি অবৈধ জাহাজ ঠিক করার পর তার বিল পরিশোধ নিয়ে টালবাহানা করতে থাকে। বিলের জন্য বারবার তাগিদ দিলে এক পর্যায়ে বিল না দিয়ে কৌশলে ডক থেকে জাহাজটি সরিয়ে নেয়। উপরন্ত ওই জাহাজটি অ্যাংগেল মেরিন লিমিটেডের ডক থেকে খোয়া যাওয়ার অজুহাত তুলে আমাদের ফাঁসানোর চেষ্টা করছে। তাদের প্রতারণা থেকে উদ্ধার পেতে ইতিমধ্যে আমরা আইনের আশ্রয় নিয়েছে।

এ বিষয়ে তিনি জানান, ২০২৩ সালের ২২ মে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ার নয়ানগরে অবস্থিত থ্রি অ্যাংগেল মেরিন লিমিটেডের শিপইয়ার্ডে জনৈক মিলন হাজী, রফিক এবং আবুল হোসেন নামের তিন ব্যক্তি 'টি-টেকনাফ' নামক একটি পুরাতন অয়েল ট্যাংকার মেরামতের জন্য নিয়ে আসেন। মেরামতের পর প্রথমত ২৩ জুলাই তারা জাহাজের মালিকপক্ষের কাছে ৫ লক্ষ ২৪ হাজার টাকার বিল দাখিল করে। তখন তারা বিল প্রদান করেনি এবং জাহাজও ডেলিভারি নেয়নি।

এরপর আরও ৫ মাস পর এবছরের ৩ জানুয়ারি রফিক নামের এক ব্যক্তি তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করলে ওই সময় পর্যন্ত ১১ লাখ ৩৬ হাজার টাকার বিল তাকে দেওয়া হয়। তিনি সেই বিল গ্রহণ করেন। তিনি স্বয়ং উপস্থিত থেকে জাহাজটি আনডকিং করে পানিতে বার্থিং করে রাখেন। সেদিন তিনি জাহাজটি ডেলিভারি নিতে চান এবং দুই দিন পর ব্যাংক অ্যাকাউন্টে বিলের অর্থ পরিশোধ করবেন বলে আশ্বস্ত করেন।

তিনি বলেন, শিপইয়ার্ড কর্তৃপক্ষ এই প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় পানিতে বার্থিংরত জাহাজে তিনি (রফিক) তার নিজস্ব দুই জন স্টাফ সার্বক্ষণিক পাহারারত অবস্থায় রেখে চলে যান। অদ্যবধি তিনি কোনো বিল পরিশোধ করেননি। পাওনা বিলের জন্য রফিককে বারংবার তাগাদা প্রদান করা হলেও টাকা পরিশোধ করা হয়নি। উপরন্তু এ বছরের এপ্রিল মাসের শেষ দিকে সন্ধ্যার পর পানিতে বার্থিংরত টি-টেকনাফ জাহাজটি নেওয়ার জন্য দুইটি টাগবোট জাহাজটির পাশে ভিড়লে শিপইয়ার্ডেরর লোকদের তা গোচরীভূত হয়। তখন শিপইয়ার্ড হতে জাহাজটি নিতে বাধা প্রদান করলে টাগবোট দুইটি চলে যায়।

তিনি আরও জানান, এর মধ্যেও থ্রি অ্যাংগেল মেরিন লিমিটেডের পাওনা বিল আদায়ের জন্য তাগাদা অব্যাহত রাখা হয়। জাহাজটি শিপইয়ার্ডের দক্ষিণ পাশে শেষ প্রান্তে মেঘনা নদীতে জাহাজ মালিক পক্ষের ২-৩ জন স্টাফের তত্ত্বাবধানে বার্থিং অবস্থায় ছিল। গত ১৬ মে বার্থিং চার্জসহ সর্বমোট প্রায় ৩০ লাখ টাকার বিল রফিককে প্রদান করা হয় এবং তিনি তা গ্রহণ করেন। এরপরও তারা কোনো বিল প্রদান না করে টালবাহানা শুরু করে। এভাবে পানিতে বার্থিং থাকা অবস্থায় গত ১৯ মে সকাল থেকে টি-টেকনাফ অয়েল ট্যাংকার জাহাজটি মালিকের ২-৩ জন স্টাফসহ সে স্থানে খুঁজে পাওয়া যায়নি। বিষয়টি শিপইয়ার্ডে যারা জাহাজ মেরামতের জন্য আনেন তাদের জানালে তারা জাহাজ এবং স্টাফদের বিষয়ে কিছু জানেন না বলে জানান। সে সময়ে জাহাজের স্টাফদের নাম, ঠিকানা, মোবাইল নম্বর চাইলে তারা তা দিতেও অস্বীকৃতি জানান।

শহিদুল ইসলাম বলেন, জাহাজটি বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে থ্রি অ্যাংগেল মেরিন লিমিটেডের পক্ষে জেনারেল ম্যানেজার (অপারেশন) গত ২৯ মে স্থানীয় গজারিয়া থানায় জাহাজ না পাওয়ার বিষয়ে একটি অভিযোগ দাখিল করেন।

তিনি বলেন, মূলত জাহাজটি ২০২৩ সালের মে সাসে ডকিং করলেও অক্টোবর মাসে এসে জানা যায়, জাহাজটি মের্সাস বেঙ্গল ইলেকট্রিক এর মালিকানাধীন। নৌযানটির নির্মাণ সন ১৯৪৫ ইং। ১৯৭২ সালে এটি বিআইডব্লিউটিসির বহরে যুক্ত হয়। অতঃপর মেসার্স মাল্টিপল ইকুইপমেন্ট অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ২৯ নভেম্বর ২০১৮ ইং তারিখে বিআইডব্লিউটিসি হতে এক কোটি এগার লাখ টাকায় স্ক্রাপ হিসাবে কিনে নেয়। কেনার পর একটি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ঘোষণাপূর্বক সেটি বিক্রয়ের প্রচলিত বিধান থাকলেও এই কোম্পানিটি দীর্ঘ ৫ (পাঁচ) বছরের অধিককাল সময় কোনো কারণে ফেলে রেখে দিল তা অনুসন্ধান করতে হবে।

তিনি লিখিত বক্তব্যে আরও বলেন, খোঁজ নিয়ে জানা গেছে- এই কোম্পানি বা তার সাবসিডিয়ারি সব কোম্পানির মালিকানাধীন নৌযানসমূহ পুরাতন নৌযান ক্রয়পূর্বক আইএমও এবং নৌ নিরাপন্তার সব বিধি ভঙ্গ করে এবং নতুন নৌযান হিসাবে রেজিস্ট্রেশন করে বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহার করছে। এক্ষেত্রে কিছু অসাধু চক্রের মাধ্যমে সামান্য কিছু মেরামত করে এবং সরকারি সংস্থার সমূহকে বিভ্রান্ত করে তারা এই কাজ করে থাকে। তাদের পক্ষ থেকে থ্রি অ্যাংগেল মেরিন লিমিটেডকে এই ধরনের প্রস্তাব দেওয়া মাত্র তা প্রত্যাখ্যান করা হয় এবং নৌযানটি আনডকিং করা হয়। এর কিছুদিন পরই তাদের নৌযানটি তারা রাতের অন্ধকারে প্রায় ৩০ লাখ টাকা বিল এবং ২টি এয়ার ব্যাগের ক্ষতিপূরণ না দিয়ে নৌযানটি অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যায়।

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে পুরো বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে সঠিক তথ্য গণমাধ্যমে তুলে ধরে, অসাধুচক্রটিকে আইনানুগভাবে শাস্তির আওতায় আনার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জোর দাবি জানান তিনি। পাশাপাশি দেশের জাহাজ নির্মাণ শিল্পের কোনো প্রতিষ্ঠান যাতে এ ধরনের চক্রের কবলে আর না পড়ে, সেজন্য সবাইকে সর্তক থাকারও আহ্বান জানান। একইসঙ্গে কোম্পানির পাওনা প্রায় ৩০ লাখ টাকা অবিলম্বে পেতে সংশ্লিষ্ট সবার সহযোগিতা কামনা করেছেন থ্রি অ্যাংগেল মেরিন লিমিটেডের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম।

(ঢাকাটাইমস/১২জুন/এমআই)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অপরাধ ও দুর্নীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

অপরাধ ও দুর্নীতি এর সর্বশেষ

লঞ্চ বিক্রিতে অনিয়ম: কমোডর মতিউরসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

ছাত্রলীগনেতার জন্য ‘প্রক্সিদাতা’ খুঁজতে ঢাবিতে এসে ধরা যুবক

কোটা আন্দোলনে অনুপ্রবেশকারী খোঁজা হচ্ছে: ডিবি

এডিসি কামরুলকে বরখাস্তের ‍সুপারিশ সিএমপির

এমপি আনার খুন: লাশ শনাক্তে নেই গতি, নজরদারিতে অনেকে, অজানা হত্যার রহস্য

ছাগলকাণ্ড: মতিউর পরিবারের আরও ১১৬টি ব্যাংক হিসাব, জমি-ফ্ল্যাট জব্দের নির্দেশ

৯০ কোটি টাকার আয়বহির্ভূত সম্পদ: বেঙ্গল গ্রুপের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দুদকের অভিযোগপত্র

রাজধানীতে জাল সার্টিফিকেট তৈরির সরঞ্জামসহ গ্রেপ্তার ২

বিচারপতির নাম ভাঙিয়ে ঘুসগ্রহণ, হাইকোর্টের দুই কর্মচারী আটক

রূপগঞ্জের বরপার আস্তানায় বিশ্রাম নিত জঙ্গিরা: এটিইউ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :