বস্তায় খেলনা পিস্তল দেখে বুদ্ধি প্রতিবন্ধীকে গণপিটুনি

আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২১ জুলাই ২০১৯, ১৮:১৩
প্রতীকী ছবি

কাঁধের বস্তায় চাল, কিছু টাকা আর একটি খেলনা পিস্তল। মুহূর্তেই জড়ো হওয়া মানুষরা একের পর এক প্রশ্ন করতে শুরু করে। ভ্যাবাচেকা খাওয়া মানুষটি কথা গুলিয়ে ফেলে। সঙ্গে সঙ্গে রব উঠে, ‘ছেলেধরা’। শুরু হয় গণপিটুনি।

পরে পুলিশ এসে ওই ব্যক্তিটিকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। তার সঙ্গে কথা বলে পুলিশ বুঝতে পারে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী। নিজের নাম ঠিকানাও ঠিকভাবে বলতে পারে না। পরে তাকে ট্রেনে তুলে দেয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীটি।

রবিবার ঘটনাটি ঘটেছে নওগাঁর আত্রাইয় উপজেলার সোনাইডাঙ্গা গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে। পদ্মাসেতু নির্মাণে এক লাখ মানুষের মাথা লাগবে বলে ফেসবুক, ইউটিউবে উদ্ভট কথা ছড়িয়ে দেওয়ার পর দেশের বিভিন্ন এলাকায় ‘ছেলেধরা’ সন্দেহে যে গণপিটুনির ঘটনা ঘটছে, তাতে নওগাঁতে এক দিনেই ঘটেছে দুটি। 

অন্য একটি ঘটনায় পুকুরের মাছ ধরতে আসা ছয় জেলে মার খেয়েছেন মাছ চুরি করে ব্যাগে ভরার পর। পুকুরের মালিক ব্যাগ তল্লাশি করার সময় দৌড় দেন ছয় জেলে। আর স্থানীয়রা ‘ছেলেধরা’ রব তুলে শুরু করে গণপিটুনি। পুলিশ উপস্থিত হয়ে রক্ষা করে তাদের।

বুদ্ধি প্রতিবন্ধীকে পেটানোর বিষয়ে পুলিশ জানায়, আত্রাই-পতিসর সড়কের সোনাইডাঙ্গা নামক স্থানে পূর্বদিক থেকে এক ব্যক্তি বস্তা কাঁধে করে আসছিলেন। এ সময় কয়েকজন তার বস্তা তল্লাশি করে কিছু চাল, কিছু টাকা ও খেলনা প্লাস্টিকের একটি পিস্তল পায়।

এ সময় তার ঠিকানা জিজ্ঞেস করলে ওই লোকটি বলে তার বাড়ি বরিশাল। নওগাঁতে কী করছিলেন, খেলনা পিস্তল কেন- একের পর এক এই প্রশ্ন আসছিল, কিন্তু ওই ব্যক্তি জবাব দিতে পারছিলেন না। উত্তেজিত হয় স্থানীয়রা। ‘ছেলেধরা’ বলে চলতে থাকে গণপিটুনি।

পরে সংবাদ পেয়ে আত্রাই থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে। আত্রাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোসলেম উদ্দিন বলেন, ‘লোকটি বুদ্ধি প্রতিবন্ধী। স্থানীয় লোকজন ছেলেধরা সন্দেহে তাকে পিটিয়েছে। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে ট্রেনযোগে পাঠিয়ে দিয়েছে।’

ঢাকাটাইমস/২১জুলাই/প্রতিনিধি/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :