অন্ধকারে হারিয়ে গিয়েছেন ক্যারিবীয় গতি দানব প্যাটারসন

ক্রীড়া ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৩ অক্টোবর ২০১৯, ১৮:৩৫

নিজেই বিস্মৃত নিজের সোনালি অতীত। জানেন না আধুনিক ক্রিকেটের খুঁটিনাটিও। তিনি সচীন টেন্ডুলকার একাধিক বিশ্বমানের ব্যাটসম্যানের এক সময়ের ত্রাস, পৃথিবীর অন্যতম দ্রুতগতির বোলার। তিনি প্যাট্রিক প্যাটারসন। প্রতিভাবান এই ক্যারিবিয়ান ফাস্ট বোলার অকালেই ঝরে গিয়েছেন ক্রিকেট-বৃত্ত থেকে।

ক্যারিবিয়ান ফাস্ট বোলার বললে প্যাটারসনের নাম অবশ্য সহজে মনে পড়ে না ক্রিকেটদর্শকদের। তাঁর জন্ম ১৯৬১ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর, জ্যামাইকায়। আটের দশকের মাঝামাঝি থেকে নয়ের দশকের গোড়া অবধি ছিল তাঁর সংক্ষিপ্ত ক্যারিয়ার।

টেস্টে আত্মপ্রকাশ ১৯৮৬ সালে, সাবাইনা পার্কে। মাইকেল হোল্ডিংয়ের জায়গায় তিনি সুযোগ পেয়েছিলেন। অবির্ভাবেই সাত উইকেট। সহজেই দলের নিয়মিত স্কোয়াডে জায়গা পেয়ে যান। প্রাক্তন ইংল্যান্ড অধিনায়ক গ্রাহাম গুচ বলেছিলেন, তিনি প্যাটারসনের গতির মুখোমুখি হতে ভয় পেতেন।

নিজের সময়ে প্যাটারসন ছিলেন বিশ্বের দ্রুততম বোলার। তিনি যত বোলারের মুখোমুখি হয়েছেন, প্যাটারসন তাঁদের মধ্যে অন্যতম ভয়ঙ্কর ছিলেন, বলেছেন টেন্ডুলকার। মাত্র ২৮টি টেস্টে প্যাটারসনের শিকার ৯৩টি উইকেট। ৫৯ ওয়ানডে খেলে পেয়েছেন ৯০ টি উইকেট। ১৬১টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচে উইকেট পেয়েছেন ৪৯৩টি।

১৯৮৮-৮৯ সালে বড়দিনের সময়ে অস্ট্রেলিয়া-ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্ট ম্যাচটি প্যাটারসনের জীবনে উল্লেখযোগ্য। মেলবোর্নের মাঠে প্যাটারসনকে বাউন্সার দিয়েছিলেন স্টিভ ওয়। এর জেরে অস্ট্রেলিয়ার সাজঘরে গিয়ে হুমকি দিয়ে এসেছিলেন প্যাটারসন, তিনি একাই শেষ করবেন অজিদের ইনিংস।

কথা রেখেছিলেন তিনি। দ্বিতীয় ইনিংসে ৪০০ রান তাড়া করতে গিয়ে ১১৪ রানে অল আউট হয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। প্যাটারসন পেয়েছিলেন ৫ উইকেট। গোটা টেস্টে তাঁর শিকার ছিল ৯।

শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে ১৯৯২-৯৩ সালের অস্ট্রেলিয়া সফর থেকে বাদ পড়েন প্যাটারসন। এরপর তাঁর ক্যারিয়ারও গুটিয়ে যায়। প্যাটারসনের শেষ টেস্ট ছিল ১৯৯৩-এর নভেম্বরে, অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে। শেষ ওয়ানডে-ও খেলেছিলেন পাকিস্তানের বিপক্ষে ওই বছরেরই ফেব্রুয়ারিতে।

অবসরের পরে তিনি কার্যত হারিয়ে যান। পরিবার বা ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটও কোনও খোঁজ পায়নি তাঁর। দীর্ঘ সন্ধানের পরে ২০১৭ সালে জ্যামাইকার কিংস্টোনে প্যাটারসনকে খুঁজে পান এক ভারতীয় সাংবাদিক।

৫৫ বছর বয়সি প্যাটারসন তখন থাকেন জ্যামাইকায় ছোট্ট একটা একতলা বাড়িতে। ক্রিকেট থেকে বহুদূরে। জানেনই না মেয়েদের ক্রিকেট এতদূর এগিয়েছে! ক্রিকেট থেকে সরে আসার পরে কী করেননি তিনি! পরিবার-বিচ্ছিন্ন হয়ে আশ্রয় হারিয়ে এক সময় ভবঘুরের মতো জীবনও কাটিয়েছেন।

ভারতীয় সাংবাদিক যখন দেখা করেন, তখন প্যাটারসনের মানসিক স্থিতিও টলমল। ক্রিকেটের স্মৃতি আবছা।

অথচ একদিন তাঁর ডেলিভারির মুখোমুখি হতে গিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার অ্যান্ড্রু হাডসনের হাত থেকে ব্যাটই উড়ে গিয়েছিল। সহযোদ্ধা উইকেটরক্ষক দুজোঁ বলেছিলেন, প্যাটারসনের গতিময় বল গ্লাভসবন্দি করতেই সবথেকে বেশি সমস্যা হত।

(ঢাকাটাইমস/১৩ অক্টোবর/এআইএ)

অন্ধকারে হারিয়ে গিয়েছেন ক্যারিবীয় গতি দানব প্যাটারসন

ক্রীড়া ডেস্ক, ঢাকাটাইমস

নিজেই বিস্মৃত নিজের সোনালি অতীত। জানেন না আধুনিক ক্রিকেটের খুঁটিনাটিও। তিনি সচীন টেন্ডুলকার একাধিক বিশ্বমানের ব্যাটসম্যানের এক সময়ের ত্রাস, পৃথিবীর অন্যতম দ্রুতগতির বোলার। তিনি প্যাট্রিক প্যাটারসন। প্রতিভাবান এই ক্যারিবিয়ান ফাস্ট বোলার অকালেই ঝরে গিয়েছেন ক্রিকেট-বৃত্ত থেকে।

ক্যারিবিয়ান ফাস্ট বোলার বললে প্যাটারসনের নাম অবশ্য সহজে মনে পড়ে না ক্রিকেটদর্শকদের। তাঁর জন্ম ১৯৬১ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর, জ্যামাইকায়। আটের দশকের মাঝামাঝি থেকে নয়ের দশকের গোড়া অবধি ছিল তাঁর সংক্ষিপ্ত ক্যারিয়ার।

টেস্টে আত্মপ্রকাশ ১৯৮৬ সালে, সাবাইনা পার্কে। মাইকেল হোল্ডিংয়ের জায়গায় তিনি সুযোগ পেয়েছিলেন। অবির্ভাবেই সাত উইকেট। সহজেই দলের নিয়মিত স্কোয়াডে জায়গা পেয়ে যান। প্রাক্তন ইংল্যান্ড অধিনায়ক গ্রাহাম গুচ বলেছিলেন, তিনি প্যাটারসনের গতির মুখোমুখি হতে ভয় পেতেন।

নিজের সময়ে প্যাটারসন ছিলেন বিশ্বের দ্রুততম বোলার। তিনি যত বোলারের মুখোমুখি হয়েছেন, প্যাটারসন তাঁদের মধ্যে অন্যতম ভয়ঙ্কর ছিলেন, বলেছেন টেন্ডুলকার। মাত্র ২৮টি টেস্টে প্যাটারসনের শিকার ৯৩টি উইকেট। ৫৯ ওয়ানডে খেলে পেয়েছেন ৯০ টি উইকেট। ১৬১টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচে উইকেট পেয়েছেন ৪৯৩টি।

১৯৮৮-৮৯ সালে বড়দিনের সময়ে অস্ট্রেলিয়া-ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্ট ম্যাচটি প্যাটারসনের জীবনে উল্লেখযোগ্য। মেলবোর্নের মাঠে প্যাটারসনকে বাউন্সার দিয়েছিলেন স্টিভ ওয়। এর জেরে অস্ট্রেলিয়ার সাজঘরে গিয়ে হুমকি দিয়ে এসেছিলেন প্যাটারসন, তিনি একাই শেষ করবেন অজিদের ইনিংস।

কথা রেখেছিলেন তিনি। দ্বিতীয় ইনিংসে ৪০০ রান তাড়া করতে গিয়ে ১১৪ রানে অল আউট হয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। প্যাটারসন পেয়েছিলেন ৫ উইকেট। গোটা টেস্টে তাঁর শিকার ছিল ৯।

শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে ১৯৯২-৯৩ সালের অস্ট্রেলিয়া সফর থেকে বাদ পড়েন প্যাটারসন। এরপর তাঁর ক্যারিয়ারও গুটিয়ে যায়। প্যাটারসনের শেষ টেস্ট ছিল ১৯৯৩-এর নভেম্বরে, অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে। শেষ ওয়ানডে-ও খেলেছিলেন পাকিস্তানের বিপক্ষে ওই বছরেরই ফেব্রুয়ারিতে।

অবসরের পরে তিনি কার্যত হারিয়ে যান। পরিবার বা ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটও কোনও খোঁজ পায়নি তাঁর। দীর্ঘ সন্ধানের পরে ২০১৭ সালে জ্যামাইকার কিংস্টোনে প্যাটারসনকে খুঁজে পান এক ভারতীয় সাংবাদিক।

৫৫ বছর বয়সি প্যাটারসন তখন থাকেন জ্যামাইকায় ছোট্ট একটা একতলা বাড়িতে। ক্রিকেট থেকে বহুদূরে। জানেনই না মেয়েদের ক্রিকেট এতদূর এগিয়েছে! ক্রিকেট থেকে সরে আসার পরে কী করেননি তিনি! পরিবার-বিচ্ছিন্ন হয়ে আশ্রয় হারিয়ে এক সময় ভবঘুরের মতো জীবনও কাটিয়েছেন।

ভারতীয় সাংবাদিক যখন দেখা করেন, তখন প্যাটারসনের মানসিক স্থিতিও টলমল। ক্রিকেটের স্মৃতি আবছা।

অথচ একদিন তাঁর ডেলিভারির মুখোমুখি হতে গিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার অ্যান্ড্রু হাডসনের হাত থেকে ব্যাটই উড়ে গিয়েছিল। সহযোদ্ধা উইকেটরক্ষক দুজোঁ বলেছিলেন, প্যাটারসনের গতিময় বল গ্লাভসবন্দি করতেই সবথেকে বেশি সমস্যা হত।

(ঢাকাটাইমস/১৩ অক্টোবর/এআইএ)

অন্ধকারে হারিয়ে গিয়েছেন ক্যারিবীয় গতি দানব প্যাটারসন

ক্রীড়া ডেস্ক, ঢাকাটাইমস

নিজেই বিস্মৃত নিজের সোনালি অতীত। জানেন না আধুনিক ক্রিকেটের খুঁটিনাটিও। তিনি সচীন টেন্ডুলকার একাধিক বিশ্বমানের ব্যাটসম্যানের এক সময়ের ত্রাস, পৃথিবীর অন্যতম দ্রুতগতির বোলার। তিনি প্যাট্রিক প্যাটারসন। প্রতিভাবান এই ক্যারিবিয়ান ফাস্ট বোলার অকালেই ঝরে গিয়েছেন ক্রিকেট-বৃত্ত থেকে।

ক্যারিবিয়ান ফাস্ট বোলার বললে প্যাটারসনের নাম অবশ্য সহজে মনে পড়ে না ক্রিকেটদর্শকদের। তাঁর জন্ম ১৯৬১ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর, জ্যামাইকায়। আটের দশকের মাঝামাঝি থেকে নয়ের দশকের গোড়া অবধি ছিল তাঁর সংক্ষিপ্ত ক্যারিয়ার।

টেস্টে আত্মপ্রকাশ ১৯৮৬ সালে, সাবাইনা পার্কে। মাইকেল হোল্ডিংয়ের জায়গায় তিনি সুযোগ পেয়েছিলেন। অবির্ভাবেই সাত উইকেট। সহজেই দলের নিয়মিত স্কোয়াডে জায়গা পেয়ে যান। প্রাক্তন ইংল্যান্ড অধিনায়ক গ্রাহাম গুচ বলেছিলেন, তিনি প্যাটারসনের গতির মুখোমুখি হতে ভয় পেতেন।

নিজের সময়ে প্যাটারসন ছিলেন বিশ্বের দ্রুততম বোলার। তিনি যত বোলারের মুখোমুখি হয়েছেন, প্যাটারসন তাঁদের মধ্যে অন্যতম ভয়ঙ্কর ছিলেন, বলেছেন টেন্ডুলকার। মাত্র ২৮টি টেস্টে প্যাটারসনের শিকার ৯৩টি উইকেট। ৫৯ ওয়ানডে খেলে পেয়েছেন ৯০ টি উইকেট। ১৬১টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচে উইকেট পেয়েছেন ৪৯৩টি।

১৯৮৮-৮৯ সালে বড়দিনের সময়ে অস্ট্রেলিয়া-ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্ট ম্যাচটি প্যাটারসনের জীবনে উল্লেখযোগ্য। মেলবোর্নের মাঠে প্যাটারসনকে বাউন্সার দিয়েছিলেন স্টিভ ওয়। এর জেরে অস্ট্রেলিয়ার সাজঘরে গিয়ে হুমকি দিয়ে এসেছিলেন প্যাটারসন, তিনি একাই শেষ করবেন অজিদের ইনিংস।

কথা রেখেছিলেন তিনি। দ্বিতীয় ইনিংসে ৪০০ রান তাড়া করতে গিয়ে ১১৪ রানে অল আউট হয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। প্যাটারসন পেয়েছিলেন ৫ উইকেট। গোটা টেস্টে তাঁর শিকার ছিল ৯।

শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে ১৯৯২-৯৩ সালের অস্ট্রেলিয়া সফর থেকে বাদ পড়েন প্যাটারসন। এরপর তাঁর ক্যারিয়ারও গুটিয়ে যায়। প্যাটারসনের শেষ টেস্ট ছিল ১৯৯৩-এর নভেম্বরে, অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে। শেষ ওয়ানডে-ও খেলেছিলেন পাকিস্তানের বিপক্ষে ওই বছরেরই ফেব্রুয়ারিতে।

অবসরের পরে তিনি কার্যত হারিয়ে যান। পরিবার বা ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটও কোনও খোঁজ পায়নি তাঁর। দীর্ঘ সন্ধানের পরে ২০১৭ সালে জ্যামাইকার কিংস্টোনে প্যাটারসনকে খুঁজে পান এক ভারতীয় সাংবাদিক।

৫৫ বছর বয়সি প্যাটারসন তখন থাকেন জ্যামাইকায় ছোট্ট একটা একতলা বাড়িতে। ক্রিকেট থেকে বহুদূরে। জানেনই না মেয়েদের ক্রিকেট এতদূর এগিয়েছে! ক্রিকেট থেকে সরে আসার পরে কী করেননি তিনি! পরিবার-বিচ্ছিন্ন হয়ে আশ্রয় হারিয়ে এক সময় ভবঘুরের মতো জীবনও কাটিয়েছেন।

ভারতীয় সাংবাদিক যখন দেখা করেন, তখন প্যাটারসনের মানসিক স্থিতিও টলমল। ক্রিকেটের স্মৃতি আবছা।

অথচ একদিন তাঁর ডেলিভারির মুখোমুখি হতে গিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার অ্যান্ড্রু হাডসনের হাত থেকে ব্যাটই উড়ে গিয়েছিল। সহযোদ্ধা উইকেটরক্ষক দুজোঁ বলেছিলেন, প্যাটারসনের গতিময় বল গ্লাভসবন্দি করতেই সবথেকে বেশি সমস্যা হত।

(ঢাকাটাইমস/১৩ অক্টোবর/এআইএ)

অন্ধকারে হারিয়ে গিয়েছেন ক্যারিবীয় গতি দানব প্যাটারসন

ক্রীড়া ডেস্ক, ঢাকাটাইমস

নিজেই বিস্মৃত নিজের সোনালি অতীত। জানেন না আধুনিক ক্রিকেটের খুঁটিনাটিও। তিনি সচীন টেন্ডুলকার একাধিক বিশ্বমানের ব্যাটসম্যানের এক সময়ের ত্রাস, পৃথিবীর অন্যতম দ্রুতগতির বোলার। তিনি প্যাট্রিক প্যাটারসন। প্রতিভাবান এই ক্যারিবিয়ান ফাস্ট বোলার অকালেই ঝরে গিয়েছেন ক্রিকেট-বৃত্ত থেকে।

ক্যারিবিয়ান ফাস্ট বোলার বললে প্যাটারসনের নাম অবশ্য সহজে মনে পড়ে না ক্রিকেটদর্শকদের। তাঁর জন্ম ১৯৬১ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর, জ্যামাইকায়। আটের দশকের মাঝামাঝি থেকে নয়ের দশকের গোড়া অবধি ছিল তাঁর সংক্ষিপ্ত ক্যারিয়ার।

টেস্টে আত্মপ্রকাশ ১৯৮৬ সালে, সাবাইনা পার্কে। মাইকেল হোল্ডিংয়ের জায়গায় তিনি সুযোগ পেয়েছিলেন। অবির্ভাবেই সাত উইকেট। সহজেই দলের নিয়মিত স্কোয়াডে জায়গা পেয়ে যান। প্রাক্তন ইংল্যান্ড অধিনায়ক গ্রাহাম গুচ বলেছিলেন, তিনি প্যাটারসনের গতির মুখোমুখি হতে ভয় পেতেন।

নিজের সময়ে প্যাটারসন ছিলেন বিশ্বের দ্রুততম বোলার। তিনি যত বোলারের মুখোমুখি হয়েছেন, প্যাটারসন তাঁদের মধ্যে অন্যতম ভয়ঙ্কর ছিলেন, বলেছেন টেন্ডুলকার। মাত্র ২৮টি টেস্টে প্যাটারসনের শিকার ৯৩টি উইকেট। ৫৯ ওয়ানডে খেলে পেয়েছেন ৯০ টি উইকেট। ১৬১টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচে উইকেট পেয়েছেন ৪৯৩টি।

১৯৮৮-৮৯ সালে বড়দিনের সময়ে অস্ট্রেলিয়া-ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্ট ম্যাচটি প্যাটারসনের জীবনে উল্লেখযোগ্য। মেলবোর্নের মাঠে প্যাটারসনকে বাউন্সার দিয়েছিলেন স্টিভ ওয়। এর জেরে অস্ট্রেলিয়ার সাজঘরে গিয়ে হুমকি দিয়ে এসেছিলেন প্যাটারসন, তিনি একাই শেষ করবেন অজিদের ইনিংস।

কথা রেখেছিলেন তিনি। দ্বিতীয় ইনিংসে ৪০০ রান তাড়া করতে গিয়ে ১১৪ রানে অল আউট হয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। প্যাটারসন পেয়েছিলেন ৫ উইকেট। গোটা টেস্টে তাঁর শিকার ছিল ৯।

শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে ১৯৯২-৯৩ সালের অস্ট্রেলিয়া সফর থেকে বাদ পড়েন প্যাটারসন। এরপর তাঁর ক্যারিয়ারও গুটিয়ে যায়। প্যাটারসনের শেষ টেস্ট ছিল ১৯৯৩-এর নভেম্বরে, অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে। শেষ ওয়ানডে-ও খেলেছিলেন পাকিস্তানের বিপক্ষে ওই বছরেরই ফেব্রুয়ারিতে।

অবসরের পরে তিনি কার্যত হারিয়ে যান। পরিবার বা ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটও কোনও খোঁজ পায়নি তাঁর। দীর্ঘ সন্ধানের পরে ২০১৭ সালে জ্যামাইকার কিংস্টোনে প্যাটারসনকে খুঁজে পান এক ভারতীয় সাংবাদিক।

৫৫ বছর বয়সি প্যাটারসন তখন থাকেন জ্যামাইকায় ছোট্ট একটা একতলা বাড়িতে। ক্রিকেট থেকে বহুদূরে। জানেনই না মেয়েদের ক্রিকেট এতদূর এগিয়েছে! ক্রিকেট থেকে সরে আসার পরে কী করেননি তিনি! পরিবার-বিচ্ছিন্ন হয়ে আশ্রয় হারিয়ে এক সময় ভবঘুরের মতো জীবনও কাটিয়েছেন।

ভারতীয় সাংবাদিক যখন দেখা করেন, তখন প্যাটারসনের মানসিক স্থিতিও টলমল। ক্রিকেটের স্মৃতি আবছা।

অথচ একদিন তাঁর ডেলিভারির মুখোমুখি হতে গিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার অ্যান্ড্রু হাডসনের হাত থেকে ব্যাটই উড়ে গিয়েছিল। সহযোদ্ধা উইকেটরক্ষক দুজোঁ বলেছিলেন, প্যাটারসনের গতিময় বল গ্লাভসবন্দি করতেই সবথেকে বেশি সমস্যা হত।

(ঢাকাটাইমস/১৩ অক্টোবর/এআইএ)

অন্ধকারে হারিয়ে গিয়েছেন ক্যারিবীয় গতি দানব প্যাটারসন

ক্রীড়া ডেস্ক, ঢাকাটাইমস

নিজেই বিস্মৃত নিজের সোনালি অতীত। জানেন না আধুনিক ক্রিকেটের খুঁটিনাটিও। তিনি সচীন টেন্ডুলকার একাধিক বিশ্বমানের ব্যাটসম্যানের এক সময়ের ত্রাস, পৃথিবীর অন্যতম দ্রুতগতির বোলার। তিনি প্যাট্রিক প্যাটারসন। প্রতিভাবান এই ক্যারিবিয়ান ফাস্ট বোলার অকালেই ঝরে গিয়েছেন ক্রিকেট-বৃত্ত থেকে।

ক্যারিবিয়ান ফাস্ট বোলার বললে প্যাটারসনের নাম অবশ্য সহজে মনে পড়ে না ক্রিকেটদর্শকদের। তাঁর জন্ম ১৯৬১ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর, জ্যামাইকায়। আটের দশকের মাঝামাঝি থেকে নয়ের দশকের গোড়া অবধি ছিল তাঁর সংক্ষিপ্ত ক্যারিয়ার।

টেস্টে আত্মপ্রকাশ ১৯৮৬ সালে, সাবাইনা পার্কে। মাইকেল হোল্ডিংয়ের জায়গায় তিনি সুযোগ পেয়েছিলেন। অবির্ভাবেই সাত উইকেট। সহজেই দলের নিয়মিত স্কোয়াডে জায়গা পেয়ে যান। প্রাক্তন ইংল্যান্ড অধিনায়ক গ্রাহাম গুচ বলেছিলেন, তিনি প্যাটারসনের গতির মুখোমুখি হতে ভয় পেতেন।

নিজের সময়ে প্যাটারসন ছিলেন বিশ্বের দ্রুততম বোলার। তিনি যত বোলারের মুখোমুখি হয়েছেন, প্যাটারসন তাঁদের মধ্যে অন্যতম ভয়ঙ্কর ছিলেন, বলেছেন টেন্ডুলকার। মাত্র ২৮টি টেস্টে প্যাটারসনের শিকার ৯৩টি উইকেট। ৫৯ ওয়ানডে খেলে পেয়েছেন ৯০ টি উইকেট। ১৬১টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচে উইকেট পেয়েছেন ৪৯৩টি।

১৯৮৮-৮৯ সালে বড়দিনের সময়ে অস্ট্রেলিয়া-ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্ট ম্যাচটি প্যাটারসনের জীবনে উল্লেখযোগ্য। মেলবোর্নের মাঠে প্যাটারসনকে বাউন্সার দিয়েছিলেন স্টিভ ওয়। এর জেরে অস্ট্রেলিয়ার সাজঘরে গিয়ে হুমকি দিয়ে এসেছিলেন প্যাটারসন, তিনি একাই শেষ করবেন অজিদের ইনিংস।

কথা রেখেছিলেন তিনি। দ্বিতীয় ইনিংসে ৪০০ রান তাড়া করতে গিয়ে ১১৪ রানে অল আউট হয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। প্যাটারসন পেয়েছিলেন ৫ উইকেট। গোটা টেস্টে তাঁর শিকার ছিল ৯।

শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে ১৯৯২-৯৩ সালের অস্ট্রেলিয়া সফর থেকে বাদ পড়েন প্যাটারসন। এরপর তাঁর ক্যারিয়ারও গুটিয়ে যায়। প্যাটারসনের শেষ টেস্ট ছিল ১৯৯৩-এর নভেম্বরে, অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে। শেষ ওয়ানডে-ও খেলেছিলেন পাকিস্তানের বিপক্ষে ওই বছরেরই ফেব্রুয়ারিতে।

অবসরের পরে তিনি কার্যত হারিয়ে যান। পরিবার বা ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটও কোনও খোঁজ পায়নি তাঁর। দীর্ঘ সন্ধানের পরে ২০১৭ সালে জ্যামাইকার কিংস্টোনে প্যাটারসনকে খুঁজে পান এক ভারতীয় সাংবাদিক।

৫৫ বছর বয়সি প্যাটারসন তখন থাকেন জ্যামাইকায় ছোট্ট একটা একতলা বাড়িতে। ক্রিকেট থেকে বহুদূরে। জানেনই না মেয়েদের ক্রিকেট এতদূর এগিয়েছে! ক্রিকেট থেকে সরে আসার পরে কী করেননি তিনি! পরিবার-বিচ্ছিন্ন হয়ে আশ্রয় হারিয়ে এক সময় ভবঘুরের মতো জীবনও কাটিয়েছেন।

ভারতীয় সাংবাদিক যখন দেখা করেন, তখন প্যাটারসনের মানসিক স্থিতিও টলমল। ক্রিকেটের স্মৃতি আবছা।

অথচ একদিন তাঁর ডেলিভারির মুখোমুখি হতে গিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার অ্যান্ড্রু হাডসনের হাত থেকে ব্যাটই উড়ে গিয়েছিল। সহযোদ্ধা উইকেটরক্ষক দুজোঁ বলেছিলেন, প্যাটারসনের গতিময় বল গ্লাভসবন্দি করতেই সবথেকে বেশি সমস্যা হত।

(ঢাকাটাইমস/১৩ অক্টোবর/এআইএ)

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

খেলাধুলা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :