কার জন্য ট্রাম্পের মধ্যপ্রাচ্য শান্তি পরিকল্পনা?

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ২৯ জানুয়ারি ২০২০, ১৪:০৮ | প্রকাশিত : ২৯ জানুয়ারি ২০২০, ১২:২০

বহুল প্রতীক্ষিত মধ্যপ্রাচ্য শান্তি পরিকল্পনা প্রকাশ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, যেখানে জেরুজালেমকে ইসরায়েলের অবিচ্ছেদ্য রাজধানী রাখার অঙ্গীকার আছে। একই সঙ্গে তিনি একটি স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্রেরও প্রস্তাব করেছেন। পশ্চিম তীরের ইহুদী বসতির ওপর ইসরায়েলের সার্বভৌমত্বের স্বীকৃতি দেয়ার পরিকল্পনাও রয়েছে তার। ট্রাম্পের এই পরিকল্পনা আসলে কাদের স্বার্থে তা নিয়ে চলছে আলোচনা সমালোচনা।

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর পাশে দাঁড়িয়ে হোয়াইট হাউসে ট্রাম্প বলেন, তার প্রস্তাব ফিলিস্তিনিদের জন্য ‘শেষ সুযোগ হতে পারে’। তবে এই প্রস্তাবকে ষড়যন্ত্র আখ্যা দিয়ে এটি নাকচ করেছেন ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস।

মাহমুদ আব্বাস বলেছেন, ‘আমি ট্রাম্প এবং নেতানিয়াহুকে বলছি: জেরুজালেম বিক্রির জন্য নয়, আমাদের সব অধিকার বিক্রি হবে না এবং এ নিয়ে দর কষাকষিও হবে না এবং আপনাদের চুক্তি, ষড়যন্ত্র পাস করা হবে না।’

যা বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘদিন ধরে চলা সংঘাতের সমাধান করার লক্ষ্যে তৈরি করা এই কথিত শান্তি পরিকল্পনা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জামাতা জ্যারেড কুশনারের দায়িত্বে রচিত হয়েছে।

এই যৌথ ঘোষণা এমন এক সময় আসল যখন ট্রাম্প এবং নেতানিয়াহু উভয়ই নিজ নিজ দেশে রাজনৈতিক চ্যালেঞ্জের মুখে রয়েছেন। মার্কিন সিনেটে অভিশংসনের বিচারের মুখে রয়েছেন ট্রাম্প এবং অন্যদিকে মঙ্গলবার নেতানিয়াহুর দুর্নীতির অভিযোগ থেকে দায়মুক্তি চেয়ে করা প্রস্তাব বাতিল হয়েছে। দু’জনই কোনো ধরনের অপরাধ করার কথা অস্বীকার করেছেন।

ইসরায়েলে থাকা মার্কিন রাষ্ট্রদূত ডেভিড ফ্রিডম্যান বলেন, এই ঘোষণার সময়টা কোনো রাজনৈতিক ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট করে নির্ধারণ করা হয়নি, এটা বেশ কিছুদিন আগে থেকেই তৈরি করাই ছিল।

এর মধ্যে বিভিন্ন প্রতিবেদনে বলা হয় যে, নেতানিয়াহু দখলকৃত পশ্চিম তীরের ৩০ শতাংশ ইসরায়েলের সঙ্গে যুক্ত করার কথা ভাবছেন, এ বিষয়ে রোববার মন্ত্রিসভার ভোট হওয়ার কথা রয়েছে। পশ্চিম তীরের বসতিতে চার লাখেরও বেশি ইসরায়েলি বাস করছে। আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী এসব বসতি অবৈধ, যদিও ইসরায়েলের এনিয়ে দ্বিমত রয়েছে।

ফ্রিডম্যান বলেন, পশ্চিম তীরের অংশ যুক্ত করা নিয়ে ইসরায়েলকে মোটেই অপেক্ষা করতে হবে না।

 

ট্রাম্পের পরিকল্পনায় যা আছে

ট্রাম্প সাংবাদিকদের বলেন, ‘আজ ইসরায়েল শান্তির পক্ষে বড় ধরণের পদক্ষেপ নিয়েছে। আমার দূরদৃষ্টি বলছে, এটা উভয় পক্ষের জন্যই একটি জয়ের সুযোগ, একটি বাস্তবসম্মত দ্বি-রাষ্ট্রের সমাধান যা ইসরায়েলের নিরাপত্তার মুখে থাকা ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রের মর্যাদার প্রতি হুমকি দূর করবে।’

তার প্রস্তাবগুলো হলো-

  • যুক্তরাষ্ট্র সেসব এলাকার ওপর ইসরায়েলের সার্বভৌমত্বের স্বীকৃতি দেবে যা ট্রাম্পের পরিকল্পনা অনুযায়ী ইসরায়েলের অংশ। এই পরিকল্পনায় একটি আনুমানিক মানচিত্রের কথা বলা হয়েছে যা ট্রাম্পের মতে ভূমি এবং সীমানাগত ত্যাগ যা ইসরায়েল করতে আগ্রহী।
  • এই মানচিত্রটি ফিলিস্তিনি ভূমির আয়তন দ্বিগুন করবে এবং পূর্ব জেরুজালেমে ফিলিস্তিনি রাজধানী করার সুযোগ তৈরি করবে, যেখানে যুক্তরাষ্ট্র একটি দূতাবাস গড়বে বলে জানান ট্রাম্প।
  • তবে ফিলিস্তিনের দ্য প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশন-পিএলও জানিয়েছে, ট্রাম্পের পরিকল্পনা ফিলিস্তিনিদের তাদের উল্লেখিত ঐতিহাসিক ফিলিস্তিনের ১৫ শতাংশ এর ওপর নিয়ন্ত্রণ দেবে মাত্র।
  • জেরুজালেম ইসরায়েলের অবিচ্ছেদ্য রাজধানী থাকবে। পবিত্র এই শহরকে নিজেদের বলে দাবি করে থাকে ইসরায়েলি এবং ফিলিস্তিনি উভয়ই। ফিলিস্তিনিদের দাবি অনুযায়ী, ১৯৬৭ সালের মধ্যপ্রাচ্য যুদ্ধে ইসরায়েল পূর্ব জেরুজালেমের যে অংশ দখল করে নিয়েছে তা তাদের ভবিষ্যৎ রাষ্ট্রের রাজধানী।
  • ফিলিস্তিনিদের জন্য নিজেদের একটি স্বাধীন রাষ্ট্র অর্জনের সুযোগ হিসেবে ট্রাম্প উল্লেখ করলেও এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানাননি।
  • পরিকল্পনা বলা হয়েছে, ‘কোন ফিলিস্তিনি বা ইসরায়েলিকেই তাদের বাড়ি থেকে উৎখাত করা হবে না’- এটা থেকে বোঝা যায় যে, ইসরায়েলের দখলকৃত পশ্চিম তীরে বসতি থাকবে।
  • ইসরায়েল জর্ডানের বাদশাহর সঙ্গে কাজ করবে এটা নিশ্চিত করতে যে, জেরুজালেমে ইহুদীদের পবিত্র অঞ্চল টেম্পল মাউন্ট এবং মুসলিমদের আল-হারাম আল শরিফ যাতে সংরক্ষিত থাকে। এই অঞ্চলটি পরিচালনায় গঠিত ট্রাস্টটি ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে জর্ডান।
  • ‘ট্রাম্পের প্রস্তাবিত মানচিত্রে ফিলিস্তিনের জন্য যে ভূমি বরাদ্দ করা হয়েছে তা চার বছরের জন্য উন্মুক্ত থাকবে এবং এতে কোন ধরনের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিচালনা করা হবে না’। এই সময়ের মধ্যে ফিলিস্তিনিরা চুক্তি সম্পর্কে পড়াশোনা করে, ইসরায়েলের সঙ্গে সমঝোতা করবে এবং রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার মানদণ্ড অর্জন করবে।

ট্রাম্প বলেন, ফিলিস্তিনিরা দরিদ্রতা এবং সহিংসতার মধ্যে রয়েছে, যারা তাদেরকে সন্ত্রাসবাদ এবং চরমপন্থায় গুটি হিসেবে ব্যবহার করতে চাইছে তাদের দ্বারা শোষিত হচ্ছে। আরো ভাল জীবন তাদের প্রাপ্য। তিনি আরো ইঙ্গিত দেন যে এই পরিকল্পনায় পশ্চিম তীরকে বিভক্ত করা হবে না।

তার কথায়, ‘ভবিষ্যৎ ফিলিস্তিন রাষ্ট্রে আমরা একটি সংলগ্ন এলাকা তৈরি করবো, যখন সন্ত্রাসবাদ প্রত্যাখ্যানসহ রাষ্ট্র হওয়ার জন্য মানদণ্ড অর্জনের সব শর্ত পূরণ হবে’।

ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, বুধবার এই পরিকল্পনা নিয়ে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে আলোচনা করতে মস্কোতে যাবেন নেতানিয়াহু।

প্রতিক্রিয়া

নিজের বক্তব্যে প্রেসিডেন্ট আব্বাস বলেন, ‘জেরুজালেমকে রাজধানী না করে ফিলিস্তিন রাষ্ট্রকে যেকোনো ফিলিস্তিনি, আরব, মুসলিম কিংবা খ্রিস্টান শিশুর জন্য মেনে নেয়া অসম্ভব। আমরা হাজারবার বলেছি, না, না, না। আমরা শুরু থেকেই এই চুক্তির বিরোধিতা করেছি এবং আমরা সঠিক ছিলাম।’

ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকা নিয়ন্ত্রণকারী হামাস এই চুক্তি নাকচ করেছে এবং বলেছে যে, এর লক্ষ্য হচ্ছে ফিলিস্তিনিদের জাতীয় প্রকল্প নিঃশেষ করে দেয়া।

জাতিসংঘ বলেছে যে, ১৯৬৭ সালের যুদ্ধের আগে যখন ইসরায়েল পশ্চিম তীর ও গাজা দখল করে নেয় সে অঞ্চলে সীমান্ত রেখা স্থাপনের মাধ্যমে দুই রাষ্ট্রের সমাধানে অটল থাকবে তারা।

জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেসের মুখপাত্র বলেন, জাতিসংঘ এমন একটি শান্তি চুক্তি চায় যা জাতিসংঘের প্রস্তাবনা, আন্তর্জাতিক আইন এবং দ্বিপক্ষীয় সম্মতির ভিত্তিতে হবে।

ইসরায়েলের মানবাধিকার গোষ্ঠী বি’সালেম জানিয়েছে, এই প্রস্তাবটি এক ধরণের জাতি-বিদ্বেষ তৈরি করবে। এটির মাধ্যমে ফিলিস্তিনিদের ক্ষুদ্র, বেষ্টিত, বিচ্ছিন্ন ছিটমহলে পরিণত করা হবে, যাদের নিজেদের জীবনের ওপর কোনো নিয়ন্ত্রণ থাকবে না।

ইসরায়েলের পিস নাউ সংস্থা বলেছে, ‘এই পরিকল্পনা বাস্তবতার সঙ্গে সম্পর্কহীন এবং আকর্ষণীয়। বসতিগুলোকে ইসরায়েলের সঙ্গে যুক্ত করার সবুজ সংকেত দেয়ার বিনিময়ে ত্রুটিযুক্ত ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠনের পরিকল্পনা অবাস্তব এবং এটি স্থিতিশীলতা আনবে না।’

ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাব ফিলিস্তিনিদের আহ্বান জানিয়েছেন এই পরিকল্পনাটি নিয়ে আসল এবং ন্যায্যভাবে বিবেচনা করতে এবং এর মাধ্যমে সমঝোতা আলোচনায় ফিরে যাওয়ার পথে প্রথম পদক্ষেপ হতে পারে কিনা তা বিবেচনা করতে।

পেছনের ঘটনা কী?

২০১৭ সালের ডিসেম্বরে ট্রাম্প প্রশাসনের সঙ্গে সব যোগাযোগ বন্ধ করে ফিলিস্তিন। জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী ঘোষণা করে তেলআবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস সেখানে স্থানান্তরের ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের পর এই পদক্ষেপ নেয় দেশটি।

তখন থেকে যুক্তরাষ্ট্র ফিলিস্তিনের জন্য সব ধরনের দ্বিপক্ষীয় সহায়তা বন্ধ করেছে এবং জাতিসংঘের ফিলিস্তিন বিষয়ক সংস্থা রিলিফ অ্যান্ড ওয়ার্ক এজেন্সি ফর প্যালেস্টাইন রিফিউজি-ইউএনআরডাব্লিউএর জন্য সব ধরনের অনুদানও বন্ধ করেছে।

গত নভেম্বরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেন যে, পশ্চিম তীরে ইহুদী বসতি আন্তর্জাতিক আইনের পরিপন্থী- চার দশকের এমন অবস্থান থেকে সরে এসেছে যুক্তরাষ্ট্র।

ট্রাম্পের কথিত এই শান্তি পরিকল্পনা প্রকাশের পর শনিবার একটি জরুরী বৈঠক ডেকেছে আরব লীগ।

কোন কোন বিষয় ঝুঁকির মুখে রয়েছে?

মধ্যপ্রাচ্যের অন্য যেকোনো সংঘাতের চেয়ে ইসরায়েল আর ফিলিস্তিনের মধ্যে দ্বন্দ্ব সবচেয়ে একগুঁয়ে। যদিও ১৯৯৩ সালে দুই পক্ষ একটি শান্তি চুক্তিতে সই করেছিল, তারপরেও ২৫ বছরের বেশি সময় ধরে দুই পক্ষ একে অপর থেকে দূরত্ব বজায় রেখে চলেছে।

জেরুজালেম: ইসরায়েল এবং ফিলিস্তিন উভয়েই এই শহরের ওপর নিয়ন্ত্রণ দাবি করে। ইসরায়েল যারা ১৯৬৭ সালে জর্ডানের কাছ থেকে এর পূর্বাঞ্চল দখল করে নিয়েছিল, তারা পুরো জেরুজালেমকেই নিজেদের রাজধানী দাবি করে। ফিলিস্তিনারও পূর্ব জেরুজালেমকে-যেখানে তাদের প্রায় সাড়ে তিন লাখ মানুষ বাস করে- তাদের ভবিষ্যৎ স্বাধীন রাষ্ট্রের রাজধানী দাবি করে।

ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের মর্যাদা: ফিলিস্তিনিরা নিজেদের একটি স্বাধীন রাষ্ট্র চায়। যার মধ্যে থাকবে পশ্চিম তীর, গাজা এবং পূর্ব জেরুজালেম। ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী ইসরায়েলের পাশাপাশি ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের প্রস্তাবের পক্ষে মত দিয়েছেন কিন্তু এটির যে আকার হবে তা নিয়ে তার আপত্তি রয়েছে। বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, ফিলিস্তিন রাষ্ট্র হবে ডিমিলিটারাইজড এবং তাদের রাষ্ট্র পরিচালনার সক্ষমতা থাকবে কিন্তু তা ইসরায়েলের প্রতি হুমকি হবে না।

স্বীকৃতি: ইসরায়েলের দাবি, যেকোনো ধরনের শান্তি চুক্তিতে ইসরায়েলকে ‘ইহুদিদের জাতি রাষ্ট্র’ হিসেবে ফিলিস্তিনের স্বীকৃতি থাকতে হবে। তারা মনে করে, এটি না হলে ফিলিস্তিনিরা ইহুদীদের ভূমির ওপর তাদের মালিকানার দাবি অব্যাহত রাখবে, যার কারণে সহিংসতা থেকেই যাবে। ফিলিস্তিনিরা বলে যে, ইসরায়েল যা দাবি করে সেটি তাদের নিজস্ব বিষয়, কিন্তু ইসরায়েলকে ইহুদী রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেয়াটা হবে ইসরায়েলের ফিলিস্তিনি বংশোদ্ভূত আরব বাসিন্দা, যারা মুসলিম, খ্রিস্টান এবং দ্রুজ তাদের স্বার্থ বিরোধী।

সীমানা: ফিলিস্তিনের সীমানা কোথায় হওয়া উচিত তা নিয়ে দুই পক্ষেরই আলাদা মতবাদ রয়েছে। ফিলিস্তিনিদের প্রস্তাব অনুযায়ী, ১৯৪৯ এবং ১৯৬৭ সালের অস্ত্র বিরতি চুক্তি যা ইসরায়েলকে পূর্ব জেরুজালেম, গাজা এবং পশ্চিম তীর থেকে আলাদা করেছিল সে অনুযায়ী সীমানা রেখা হওয়া উচিত।

ইসরায়েল বলে, ওই রেখাগুলো সামরিকভাবে অরক্ষনীয়/অযৌক্তিক এবং এগুলো কখনোই স্থায়ী হতে পারে না। তারা বলেনি যে, কোথায় সীমান্ত হওয়া উচিত তবে এটা বলেছে যে তাদের নিজেদের পূর্ব সীমানা হওয়া উচিত জর্ডান নদীর তীর ধরে।

বসতি: ১৯৬৭ সাল থেকে ইসরায়েল প্রায় ১৪০টি বসতি গড়ে তুলেছে পশ্চিম তীর এবং পূর্ব জেরুজালেমে। যার মধ্যে ১২১টি আউটপোস্ট বসতি সরকারের অনুমোদন ছাড়াই গড়ে তোলা হয়েছে। এগুলোতে প্রায় ৬ লাখ ইহুদী বাস করে।

বেশিরভাগ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এই বসতিকে অবৈধ মনে করে থাকে, যদিও ইসরায়েল এর বিরোধিতা করে। ফিলিস্তিনিরা বলে যে, ফিলিস্তিন রাষ্ট্র তৈরির জন্য এসব বসতি সরিয়ে ফেলা উচিত। নেতানিয়াহু এসব বসতি কখনোই সরিয়ে ফেলা নয় বরং এসব এলাকা ইসরায়েলের সার্বভৌমত্বের অন্তর্ভূক্ত করার কথা বলছেন।

শরণার্থী: জাতিসংঘ বলছে, প্রায় ৫৫ লাখ ফিলিস্তিনি শরণার্থীকে মধ্যপ্রাচ্যে সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে তারা (ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ বলছে যে শরণার্থীর সংখ্যা ৬০ লাখ)। সূত্র: বিবিসি

ঢাকা টাইমস/২৯জানুয়ারি/একে

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :