নাইটদের হেলায় হারিয়ে প্লে-অফের কাছাকাছি আরসিবি

ক্রীড়া ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২২ অক্টোবর ২০২০, ০৮:৩৪

কলকাতা নাইট রাইডার্সকে ৮ উইকেটে হারিয়ে প্লে-অফের আরও কাছে চলে গেল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর৷ নাইটদের হারিয়ে ১০ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে লিগ তালিকায় দু’নম্বরে উঠে এলে আরসিবি৷

সম সংখ্যক ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট হলেও রান-রেটে এগিয়ে থেকে এক নম্বরে রয়েছে দিল্লি ক্যাপিটালস৷ এই হারের ফলে চার নম্বরে থাকলেও রান-রেটে অন্যদের থেকে অনেকটাই পিছিয়ে গেল কেকেআর৷

প্রথম লেগে কলকাতা নাইট রাইডার্সকে ৮২ রানে হারিয়েছিল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স৷ আর এদিন ৮ উইকেটে সহজ জয় তুলে নেয় বিরাট অ্যান্ড কোং৷ নাইটদের দেওয়ার ৮৫ রানের টার্গেট মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে ১৩.৩ ওভারে ম্যাচ জিতে নেয় আরসিবি৷ অ্যারন ফিঞ্চ ১৬ এবং দেবদূত পারিক্কল ২৫ রান করে আউট হন৷ তারপর গুরকীরত সিং এবং বিরাট কোহলি দলকে জেতান৷ কোহলি ১৮ এবং গুরকীরত ২১ রানে অপরাজিত থাকেন৷

এর আগে টস জিতে প্রথম ব্যাটিং নিয়ে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের বিরুদ্ধে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে মাত্র ৮৪ রান তুলেছিল কলকাতা৷ আইপিএলের ইতিহাসে অল-আউট না-হওয়া কোনও দলের এটাই সর্বনিন্ম স্কোর৷ এর আগে ২০০৯ আইপিএলে ডারবানে চেন্নাই সুপার কিংসের বিরুদ্ধে কিংস ইলেভেন পঞ্জাব করেছিল ৮ উইকেটে ৯২ রান৷ কিন্তু আরসিবি-র বিরুদ্ধে তাকেও ছাপিয়ে গেলে কেকেআর৷

তিন বছর আগে আরসিবি-কে ৪৯ রানে অল-আউট করে রেকর্ড গড়েছিল কলকাতা নাইট রাইডার্স৷ ২০১৭ আইপিএলে ইডেন গার্ডেনের বিরাটের আরসিবি-কে ৪৯ রানে শেষ করে দিয়েছিল কলকাতা৷ এটাই আইপিএলের ইতিহাসে সর্বনিন্ম স্কোর৷ আর কেকেআর-এর সর্বনিন্ম স্কোর হল ৬৭ রান৷ ২০০৮ অর্থাৎ প্রথম আইপিএলে ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে এই রান করেছিল কেকেআর৷

এদিন আবুধাবিতে একটা সময় মনে হয়েছিল কেকেআর তাদের সর্বনিন্ম স্কোর করবে৷ বিভিষীকাময় শুরুর পর মাত্র ৩২ রানে পাঁচ উইকেট হারিয়েছিল কেকেআর৷ শেষ পর্যন্ত ক্যাপ্টেন ইয়ন মর্গ্যানের লড়াকু ৩০ এবং লকি ফার্গুসনরে ১৯ রানের দৌলতে সর্বনিন্ম স্কোরের লজ্জা থেকে রক্ষা পায় কলকাতা৷

এদিনও নাইটদের হয়ে ইনিংস শুরু করেন শুভমন গিল ও রাহুল ত্রিপাঠি৷ আর বল হাতে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের হয়ে ইনিংস শুরু করেন ক্রিস মরিস৷ প্রথম ওভারে মরিসের বিরুদ্ধে মাত্র ৩ রান নেয় কেকেআর৷ প্রথম ওভারে তিন রান তোলা নাইটদের ইনিংসের বিভিষীকা শুরু হয় পরের ওভার থেকেই৷

নিজের প্রথম ওভারে ডাবল উইকেট মেডেন দিয়ে আরসিবি-কে স্বপ্নের শুরু দেন সিরাজ৷ পরপর দু’ বলে দু’উইকেট তুলে নেন তিনি৷ ওভারের তৃতীয় ও চতুর্থ ডেলিভারিতে যথাক্রমে রাহুল ত্রিপাঠি (১) এবং নীতিশ রানাকে (০) ডাগ-আউটে ফেরত পাঠান তিনি৷ নিজের প্রথম ওভারে ডাবল উইকেট মেডেন পান সিরাজ৷ পরের ওভারে শুভমন গিলকে ফেরান নভদীপ সাইনি৷ মাত্র ১৪ রানে চার উইকেট হারায় কেকেআর৷

প্রথম দু’টি ওভার মেডেন দিয়ে রেকর্ড গড়েন সিরাজ৷ আইপিএলের ইতিহাসে তিনিই প্রথমবার বোলার, যিনি প্রথম দু’ওভার মেডেন দেন৷ স্বপ্নের বোলিং সিরাজের ৪ ওভারে মাত্র ৮ রান দিয়ে ৩টি উইকেট তুলে নেন তিনি৷ ম্যাচের সেরা হন সিরাজ৷

(ঢাকাটাইমস/২২ অক্টোবর/এআইএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

খেলাধুলা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :