ছয় মাসে এবি ব্যাংকের আয় বেড়েছে ৮২ শতাংশ

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ৩১ জুলাই ২০২১, ২২:০৩ | প্রকাশিত : ৩১ জুলাই ২০২১, ২১:৪৩

পুঁজিবাজারের তালিকাভুক্ত এবি ব্যাংক লিমিটেড দ্বিতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি’২১-জুন’২১) অনিরিক্ষীত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এতে ব্যাংকটির ছয় মাসে আয় বেড়েছে ৮২.৩৫ শতাংশ। যা গত চার বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি।

জানা গেছে, ২০১৭ সালের পর অর্ধবার্ষিকী প্রতিবেদনে সবচেয়ে বেশি আয় দেখিয়েছে এই ব্যাংকটি। ২০১৭ থেকে ২০২০ সময়ে পুরো অর্থবছরে যে আয় করেছিল ব্যাংকটি ২০২১ সালে অর্ধবার্ষিকীতে সেগুলো থেকে কয়েকগুণ বেশি আয় করেছে।

শনিবার ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদের সভায় অনুমোদন হওয়া আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে জুন ছয় মাসে শেয়ার প্রতি আয় করেছে ৩১ পয়সা। আগের বছরের একই সময়ে আয় ছিল ১৭ পয়সা। যা আলোচ্য সময়ে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় বেড়েছে ১৪ পয়সা বা ৮২.৩৫ শতাংশ।

২০১৬ সালে অফশোর ইউনিটের মাধ্যমে অর্থ পাচারের অভিযোগ ওঠে ব্যাংকটির বিরুদ্ধে। চার বিদেশি কোম্পানির নামে চার কোটি ২৫ লাখ ৪০ হাজার ডলার (বাংলাদেশি টাকায় ৩৪০ কোটি) ঋণ দেওয়া হলেও যে উদ্দেশ্যে এসব ঋণ দেওয়া হয়েছিল, তার কোনোটাই ব্যবহৃত হয়নি। ঋণের অর্থ অন্য হিসাবে পাচার করা হয়েছে বলেও অভিযোগ ওঠে। তারপর থেকেই মূলত ব্যাংকটির আয় কমতে শুরু করে।

২০১৬ সালে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় ছিল দুই টাকা ২৫ পয়সা। ২০১৭ সালে তা একেবারেই তলানিতে নেমে আসে, এ সময় শেয়ার প্রতি আয় হয় ০৫ পয়সা। ২০১৮ সালে ০৬ পয়সা। ২০১৯ সালে ১৬ পয়সা। ব্যাংকটির খেলাপি ঋণের পরিমাণ চার হাজার ৫৪৭ কোটি টাকা, যা ২০২০ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত বিতরণ করা ঋণের ১৬ দশমিক ৬৬ শতাংশ। মার্চ শেষে সেটা সামান্য বেড়ে চার হাজার ৬০৭ কোটি টাকা হয়েছে। এটি বিতরণকৃত ঋণের ১৬ দশমিক ৭০ শতাংশ।

ব্যাংকটির মোট ঋণ ২৭ হাজার ৫৯২ কোটি টাকা। ২০২১ সালের অর্ধবার্ষিকীতে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি যে আয় দেখানো হয়েছে তা গত চার বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি। ২০২০ সালে পুরো অর্থবছরে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছিল ৫০ পয়সা।

ব্যাংকটির দ্বিতীয় প্রান্তিকে এপ্রিল থেকে জুনে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ১৬ পয়সা। আগের বছরের একই সময়ে আয়ি ছিল ৯ পয়সা। জানুয়ারি থেকে মার্চ প্রথম প্রান্তিকে এবি ব্যাংকের শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ১৬ পয়সা, যা গত বছরের একই সময়ে ছিল ৮ পয়সা।

(ঢাকাটাইমস/৩১জুলাই/এসআই/আরএ/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :