কী বলছেন চয়নিকা?

বিনোদন প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ০৪ আগস্ট ২০২১, ২১:২১ | প্রকাশিত : ০৪ আগস্ট ২০২১, ২০:০২

আলোচিত চিত্রনায়িকা পরীমনি আবারও আলোচনায় এলেন তার বাসায় র‌্যাবের অভিযানের মধ্যদিয়ে। বুধবার বিকেলে বনানীতে তার বাসায় অভিযান শুরু করে র‌্যাবের একটি দল। শেষ হয় সন্ধ্যার পর। অভিযানে বিপুল মাদকদ্রব্য উদ্ধার করেছে র‌্যাব। সেই সঙ্গে আটক করা হয়েছে পরীমনিকে।

প্রায় দুই মাস আগে আলোচনায় এসেছিলেন পরীমনি। রাজধানীর অদূরে একটি ক্লাবে তার সঙ্গে ঘটে যাওয়া অপ্রীতিকর ঘটনা নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসেছিলেন ঢাকাই ছবির এই নায়িকা। সেদিন পুরোটা সময় তার পাশে ছিলেন নাট্য ও চলচ্চিত্র নির্মাতা চয়নিকা চৌধুরী।

কিন্তু আজ পরীমনির পাশে দেখা যায়নি তাকে। র্যা বের অভিযানের আগে প্রায় আধঘণ্টা ধরে ফেসবুক লাইভে ছিলেন পরীমনি। ওই সময় তিনি তার বন্ধু-ঘনিষ্ঠদের আসার জন্য অনুরোধ করেন। কিন্তু চয়নিকা চৌধুরী বা তার ঘনিষ্ঠদের কাউকেই দেখা যায়নি।

গত জুনের ঘটনার সময় পাশে থাকা চয়নিকাকে পরীমনি মা বলে সম্বোধন করেন। চয়নিকাও বলেন, ‘পরীমনি ছোটবেলায় মা হারিয়েছে। ও আমাকে মম বলে ডাকে। আমিও ওকে মেয়ের মতো স্নেহ করি।’

বুধবার বিকেলে চয়নিকা চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘আপনারা যেমন টিভিতে, লাইভে দেখেছেন। আমিও দেখেছি।’

পরীমনির বাসায় যাবেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে ‘বিশ্বসুন্দরী’ ছবির নির্মাতা চয়নিকা বলেন, ‘না আমি যাবো না। এটা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিষয়। তারা যা ভালো বুঝবে তাই করবে।’

এর আগে গত ৯ জুন গভীর রাতে সাভারের বোট ক্লাবে গিয়ে যৌন হেনস্তা ও মারধরের শিকার হন বলে অভিযোগ করেন পরীমনি। চার দিন পর এ বিষয়ে গত ১৩ জুন বনানীতে নিজ বাসায় সংবাদ সম্মেলন করেন নায়িকা। প্রকাশ করেন সব ঘটনা।

পরীমনি অভিযোগ করেন, নাসির উদ্দিন মাহমুদ নামে এক ব্যবসায়ী তাকে যৌন হেনস্তা ও হত্যাচেষ্টা করেছেন। এ কাজে তাকে সহযোগিতা করেছেন তুহিন সিদ্দিকী অমি নামে আরেক ব্যবসায়ী। কেঁদে কেঁদে তিনি ঘটনায় জড়িতদের বিচার দাবিও করেন।

সেদিন গভীর রাতে করা সংবাদ সম্মেলনের পুরোটা সময়জুড়ে পরীমনির পাশেই দেখা গিয়েছিল পরিচালক চয়নিকা চৌধুরীকে। পরীমনিকে বাম হাত দিয়ে জাপটে ধরে বসে ছিলেন তিনি। বিমর্ষ পরীমনিকে বার বার গায়ে হাত বুলিয়ে সাহস ও সান্তনা দিচ্ছিলেন। এছাড়া তিনি পরীমনিকে যৌন নির্যাতন ও মারধরের বিচারও দাবি করেন।

পরদিন সকালে সাভার মডেল থানায় সশরীরে উপস্থিত হয়ে ব্যবসায়ী নাসির ও অমিসহ আরও চারজনকে অজ্ঞাত আসামি করে মোট ছয়জনের নামে মামলা করেন পরীমনি। সেখানেও নায়িকার ছায়াসঙ্গী ছিলেন চয়নিকা চৌধুরী।

ওইদিন অর্থাৎ, ১৪ জুন দুপুরে নাসির-অমিসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। এর পরদিন ৯ জুনের ঘটনা সম্পর্কে জানতে পরীমনিকে ডিবি কার্যালয়ে ডেকে পাঠানো হয়। সেখানেও পরীমনির সঙ্গে ছিলেন চয়নিকা।

ঢাকাটাইমস/০৪আগস্ট/এএইচ

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিনোদন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :