ইউক্রেনে উত্তেজনা কমাতে পুতিনকে বাইডেনের প্রস্তাব

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:১৩

ভার্চুয়াল বৈঠকে ইউক্রেনে উত্তেজনা কমানোর জন্য পুতিনকে বাইডেন প্রস্তাব দিয়েছেন। প্রায় দুই ঘণ্টা ধরে কথা বললেন দুই রাষ্ট্রপ্রধান। বাইডেন ও পুতিনের মধ্যে ভার্চুয়াল শীর্ষ সম্মেলন হলো। সেখানেই ইউক্রেনে উত্তেজনা কমানোর আর্জি বাইডেনের। এপি, এএফপি, রয়টার্সের।

বাইডেন ও পুতিন গত মঙ্গলবার ভার্চুয়াল বৈঠক করলেন। আলোচনার সিংহভাগ জুড়ে থাকল ইউক্রেন। পুতিনকে বাইডেন বললেন, তিনি যেন অবিলম্বে ইউক্রেন সীমান্তে উত্তেজনা কম করার জন্য পদক্ষেপ নেন।

ক্রেমলিন একটি ছোট ভি়ডিও প্রকাশ করেছে, যেখানে দেখা যাচ্ছে, পুতিন বলেছেন, 'মিস্টার প্রেসিডেন্ট, আপনাকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছি।'

বাইডেনের জবাব, 'আপনাকে দেখে ভালো লাগছে। আশা করি, এর পরের বৈঠক মুখোমুখি হবে।'

বৈঠকের আগে অ্যামেরিকার কর্মকর্তারা জানিয়ে দিয়েছিলেন, রাশিয়া যদি ইউক্রেন আক্রমণ করে, তাহলে কঠোর আর্থিক নিষেধাজ্ঞা জারি করা হবে।

বৈঠকের পর হোয়াইট হাউস বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, 'প্রেসিডেন্ট বাইডেন বৈঠকে জানিয়েছেন, ইউক্রেন নিয়ে যে পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তাতে অ্যামেরিকা ও তার বন্ধু দেশগুলো খুবই উদ্বিগ্ন। কোনোরকম সামরিক অভিযান হলে আর্থিক ও অন্য ব্যবস্থা নেয়া হবে।'

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, 'বাইডেন আবার জানিয়ে দিয়েছেন, ইউক্রেনের সার্বভৌমত্ব ও অখণ্ডতা রক্ষার লড়াইয়ে অ্যামেরিকা তাদের পাশে আছে। তিনি রাশিয়াকে অবিলম্বে উত্তেজনা কমাতে বলেছেন এবং কূটনৈতিক পথ নিতে বলেছেন।'

বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, দুই প্রেসিডেন্টই তাদের টিমকে পরবর্তী ব্যবস্থা নিতে বলেছেন। অ্যামেরিকা জানিয়ে দিয়েছে, তারা তাদের বন্ধু দেশগুলোর সঙ্গে সহযোগিতা করে চলবে।

ক্রেমলিনও একটি বিবৃতি দিয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, 'ন্যাটো ইউক্রেনকে নিজেদের স্বার্থসিদ্ধির কাজে ব্যবহার করছে। ইউক্রেনও উসকানিমূলক কাজ করছে।'

পুতিন বৈঠকে জানিয়েছেন, ন্যাটোকেও নিশ্চয়তা দিতে হবে যে তারা আগ্রাসী মনোভাব নেবে না। ন্যাটো এখন বিপজ্জনক পদক্ষেপ নিচ্ছে। তারা রাশিয়ার সীমান্তে ইউক্রেনের এলাকা দখল করতে চাইছে। তাই রাশিয়াও ন্যাটোর কাছ থেকে গ্যারান্টি চায় যে, তারা রাশিয়ার কাছে কোনো অন্ত্র মোতায়েন করবে না এবং সম্প্রসারণের কোনো চেষ্টা করবে না।

ইউক্রেন এর আগে অভিযোগ করেছিল, রাশিয়া তাদের সীমান্তে লাখখানেক সেনা মোতায়েন করেছে। তারা ইউক্রেন আক্রমণের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

মস্কো অবশ্য এই অভিযোগ অস্বীকার করে জানিয়েছে, তাদের সেনা আক্রমণ করবে না। দেশের সুরক্ষার জন্যই সেখানে সেনা মোতায়েন করা হয়েছে।

উপগ্রহ ছবিতে দেখা যাচ্ছে, রাশিয়ার সেনা সীমান্তের কাছেই আছে। এটাই ন্যাটো গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলোর চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

হোয়াইট হাউস থেকে জানানো হয়েছে, বাইডেন ও পুতিনের মধ্যে যা আলোচনা হয়েছে, তা জার্মানি, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, ইটালিকে জানানো হবে।

(ঢাকাটাইমস/৮ডিসেম্বর/আরজেড/এজেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :