সোহেল রানাকে ফেরাতে প্রধান বাধা ভারতে মামলা: পুলিশ সদর দপ্তর  

আশিক আহমেদ, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৪ নভেম্বর ২০২২, ০৮:৪১ | প্রকাশিত : ২৪ নভেম্বর ২০২২, ০৮:৩৩

ভারতে গ্রেপ্তার রাজধানীর বনানী থানার সাবেক ওসি সোহেল রানাকে এখনই বাংলাদেশের ফেরত আনা যাচ্ছে না। তাকে ফেরাতে বাধা ভারতের মামলা বলে জানিয়েছে পুলিশ সদর দপ্তর। সোহেল রানাকে ফেরাতে ভারতীয় কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ। কিন্তু সোহেল ভারতে গিয়ে আটক হয়েছেন এবং তার বিরুদ্ধে দেশটিতে মামলা হয়েছে। তাই ভারতের আদালত থেকে ওই মামলার বিষয়ে চুড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত না দেওয়া পর্যন্ত তাকে আনা যাচ্ছে না বলে জানিয়েছে পুলিশ সদর দপ্তর।

ইঅরেঞ্জের বিরুদ্ধে দুই মামলার হালহাকিকত

৮৮ লাখ ৯৪ হাজার টাকার প্রতারণার অভিযোগ এনে ২০২১ সালের ২ সেপ্টেম্বর ১৭ জনের পক্ষে প্রথম মামলাটি করেন মো. রাসেল এবং ৭৬ লাখ ৪১ হাজার টাকার প্রতারণার অভিযোগে ৭ সেপ্টেম্বর ১০ জনের পক্ষে দ্বিতীয় মামলাটি করেন ইসতিয়াক হোসেন টিটু। দুই মামলাতেই পুলিশ পরিদর্শক সোহেল রানা, তার বোন সোনিয়া মেহজাবিন, ভগ্নিপতি মাসুকুর রহমানসহ ১০ জনকে আসামি করা হয়েছে। মামলায় মেহজাবিন ও মাসুকুর গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে রয়েছেন। পুলিশ কর্মকর্তা সোহেল রানা ভারতে পালিয়ে গিয়ে সেখানে ধরা পড়েছেন। তাকে বরখাস্তও করা হয়েছে।

মামলা দুটির তদন্ত করছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। সিআইডির ভাষ্যমতে, তারা প্রত্যেক আসামির তথ্য সংগ্রহ করছেন। কিছু মোবাইল ফোন নম্বর পেয়েছে, সেগুলোর কল ডিটেইলস রেকর্ড (সিডিআর) সংগ্রহ করছে। পাশাপাশি মানি লন্ডারিং বিষয়েও তথ্য সংগ্রহ করছে সিআইডি। তদন্তের অগ্রগতি জানতে চাইলে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) ঢাকা মেট্রোর অতিরিক্ত ডিআইজি জাহাঙ্গীর হোসেন মাতুব্বর ঢাকাটাইমসকে বলেন, বর্তমানে মামলাগুলো কী অবস্থায় রয়েছে তা খোঁজ খবর নিয়ে জানাতে পারবো।

সিআইডির একটি সূত্র বলছে, গুলশান থানায় ইঅরেঞ্জের বিরুদ্ধে দুটি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে অর্থ পাচারের মামলাটির তদন্তের বিষয়ে যেসব তথ্য উপাত্ত পাওয়া গেছে তা সিআইডির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা যাচাই বাছাই করছে।

ভারতে গ্রেপ্তার পুলিশ পরিদর্শক সোহেলকে ফেরাতে উদ্যোগ: ইঅরেঞ্জ কেলেংকারির ঘটনার পর ভারতে অবৈধভাবে পালিয়ে গ্রেপ্তার হওয়া পরিদর্শক সোহেল রানাকে ফিরিয়ে আনতে উদ্যোগ নিয়েছে পুলিশ সদর দপ্তর। এরই মধ্যে ইন্টারপোলের নয়াদিল্লীর ন্যাশনাল সেন্ট্রাল ব্যুরোতে (এনসিবি) দুই দফা চিঠি দেওয়া হয়েছে।

পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এনসিবি) ঢাকাটাইমসকে বলেন, সোহেল রানাকে ফেরাতে পুলিশ সদর দপ্তর চিঠি দিয়েছে। কিন্তু তার বিরুদ্ধে মামলা থাকায় তাকে ফেরত আনা যাচ্ছে না।

২০২১ সালের ৩১ অগাষ্ট ই-অরেঞ্জের মালিকসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে এক ভুক্তভোগী ঢাকার মহানগর হাকিম আদালতে অভিযোগ করলে ২ সেপ্টেম্বর গুলশান থানায় সিটি মামলা হিসাবে গ্রহণ করে। মামলার পর ই-অরেঞ্জের সঙ্গে বনানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শেখ সোহেল রানার সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ ওঠে। প্রতিষ্ঠানটির কয়েকজন গ্রেপ্তার হওয়ার পর সোহেল রানা পালিয়ে যান।

২ সেপ্টেম্বর অবৈধভাবে ভারতে ঢোকেন সোহেল। নেপাল যেতে উদ্যত তাকে চ্যাংড়াবান্ধা সীমান্তে আটক করে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী-বিএসএফ। তার বিরুদ্ধে অবৈধ অনুপ্রবেশের মামলা হয়েছে। এই কেলেংকারির ঘটনার পরই পরিদর্শক সোহেল রানাকে বরখাস্ত করে পুলিশ সদর দপ্তর।

‘দালাল ধরে’ ভারতে পালান পুলিশ কর্মকর্তা সোহেল রানা। বিএসএফের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে তাকে ফিরিয়ে আনার বিষয়ে বিজিবির আশ্বাস দিয়েছিল। ভারতের সঙ্গে বন্দি বিনিময় চুক্তি থাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতার মাধ্যমে তাকে দেশে ফিরিয়ে আনা যেতে পারে।

চলতি বছরের ২ নভেম্বর ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইঅরেঞ্জ, অরেঞ্জ বাংলাদেশ ও রেড অরেঞ্জ ইন্টারন্যাশনাল থেকে শত কোটি টাকা সরিয়েছেন বরখাস্ত পুলিশ পরিদর্শক সোহেল রানা ও তার বোন সোনিয়া মেহজাবিন। এর প্রমাণ পেয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ২ নভেম্বর সকালে বিচারপতি নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের দ্বৈত বেঞ্চে এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২১ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১৩টি ব্যাংক হিসাবে ২২২১ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে। তবে গ্রাহককে পণ্য সরবরাহ করা হয়েছে কিনা, সেটি নিশ্চিত নয়। বিভিন্ন নামে ৫০/৬০ শতাংশ মুনাফার লোভ দেখিয়ে প্রতারণা করা হতো গ্রাহকদের সঙ্গে।

ব্যাংকে জমাকৃত অর্থ বিভিন্ন মার্চেন্টকে পরিশোধ করা হলেও বিভিন্ন ব্যক্তির নামে পাশাপাশি প্রায় ২৬ কোটি টাকা উত্তোলন করা হয়েছে, তার প্রকৃত সুবিধা কে ভোগ করেছেন সেটি জানা যায় নি। এছাড়া সোনিয়া, তার ভাই সোহেল রানা, স্বামী মাসুকুর রহমান, চাচা জায়েদুল নিজ নামে ৩০ কোটির বেশি অর্থ নিজেদের নামে উত্তোলন করেন।

গ্রাহকদের পণ্য না দিয়ে এভাবে অর্থ নিজেরা উত্তোলন করা প্রতারণার শামিল বলে উল্লেখ করা হয় দাখিলকৃত প্রতিবেদনে।

(ঢাকাটাইমস/২৪নভেম্বর/এএ/কেএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিশেষ প্রতিবেদন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :