২০২১ সালে জাপানে হামলার পরিকল্পনা করেছিল রাশিয়া: এফএসবির তথ্য ফাঁস

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ২৯ নভেম্বর ২০২২, ১৮:০৩

ভ্লাদিমির পুতিন ইউক্রেনে পূর্ণ-স্কেল আক্রমণ শুরু করার কয়েক মাস আগে, ২০২১ সালের গ্রীষ্মে জাপানে আক্রমণ করার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। রাশিয়ার ফেডারেল সিকিউরিটি সার্ভিসের (এফএসবি) এক সদস্য এই তথ্য ফাঁস করেছেন বলে মার্কিন সাময়িকী নিউজ উইক এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে।

১৭ মার্চ তারিখে ভ্লাদিমির ওসেচকিন নামের এক রাশিয়ান মানবাধিকার কর্মীর কাছে পাঠানো মেইলে এসব তথ্য ফাঁস করেন ওই ব্যক্তি। ওসেচকিন দুর্নীতিবিরোধী ওয়েবসাইট গুলাগু ডট কম পরিচালনা করেন এবং বর্তমানে ফ্রান্সে নির্বাসিত।

এফএসবির এজেন্ট ওসেককিনের কাছে নিয়মিত বার্তা পাঠাতেন। ২৪ ফেব্রুয়ারি পুতিন যখন প্রতিবেশী ইউক্রেন আক্রমণ করেছিলেন তখন শুরু হওয়া যুদ্ধের বিষয়ে পরিষেবার ভিতরে ক্ষোভ এবং অসন্তোষ প্রকাশ করেন তিনি।

ওয়াশিংটন ভিত্তিক একটি অলাভজনক সংস্থা উইন্ড অব চেঞ্জ রিসার্চ গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক ইগর সুশকো ৪ মার্চ থেকে শুরু হওয়া চিঠিপত্রটি রুশ ভাষা থেকে ইংরেজিতে অনুবাদ করছেন। সেগুলো তিনি নিউজকে পাঠান ১৭ মার্চ।

এফএসবি এজেন্টের লেখা একটি চিঠি এফএসবি-র একজন বিশেষজ্ঞ ক্রিস্টো গ্রোজেভ বিশ্লেষণ করেছেন। তিনি বলেছেন, চিঠিটি এফএসবির ‘দুই প্রকৃত (বর্তমান বা প্রাক্তন) কর্মীকে দেখিয়েছি। লেখার ধরণ দেখে সন্দেহ নেই যে চিঠিটি নিঃসন্দেহে এফএসবির কোনো কর্মীই লিখেছে।

রাশিয়া কেনো জাপানে আক্রমণ করার পরিকল্পনা করেছে? প্রশ্নটি এখন আসতে পারে। এর কিছুটা ইঙ্গিতও চিঠিতে দিয়েছেন ওই এজেন্ট। তিনি বলেন, ২০২১ সালের আগস্টে, রাশিয়া জাপানের সঙ্গে স্থানীয় সামরিক সংঘাতের জন্য বেশ গুরুত্ব সহকারে প্রস্তুতি নিচ্ছিল। কিন্তু রাশিয়া তার পরিবর্তে কয়েক মাস পরে ইউক্রেন আক্রমণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তারা আরও লিখেছেন, ‘আত্মবিশ্বাস যে দেশগুলি তীব্র সংঘর্ষের পর্যায়ে প্রবেশ করবে এবং এমনকি যুদ্ধও বেশি ছিল। কেন ইউক্রেনকে শেষ পর্যন্ত যুদ্ধের জন্য বেছে নেওয়া হয়েছিল [প্রেক্ষাপটটি খুব বেশি পরিবর্তিত হয়নি] অন্যদের উত্তর দিতে হবে।’

অর্থাৎ এফএসবির কর্মীরা ইউক্রেনে হামলার কারণ বলতে পারেনি।

এখানে জাপানের সঙ্গে রাশিয়ার পুরনো সম্পর্কের দিকে নজর দিতে হবে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর একটি শান্তি চুক্তি আনুষ্ঠানিকভাবে রাশিয়া এবং জাপান দ্বারা স্বাক্ষরিত হয়নি। মূলত জাপানের দাবিকৃত দ্বীপগুলির একটি গ্রুপ নিয়ে বিরোধের কারণে যেগুলো রাশিয়ার দখলে রয়েছে।

সবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন জাপানের কুরিল দ্বীপপুঞ্জের কুনাশিরি, ইতোরোফু, শিকোটান এবং হাবোমাই দ্বীপপুঞ্জ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষে দখল করে নেয়। টোকিও দ্বীপগুলিকে তার ‘উত্তর অঞ্চল’ হিসেবে দাবি করে এবং এই ইস্যুটি কয়েক দশক ধরে রাশিয়া এবং জাপানের মধ্যে সম্পর্কের টানাপোড়েন করে আসছে।

এফএসবি এজেন্টের মতে, মস্কো এবং টোকিওর মধ্যে একটি ‘প্রধান বাধা’ হল কুরিল দ্বীপপুঞ্জ।

বৃহৎ জাপানি দ্বীপ হোক্কাইডো এবং রাশিয়ার কামচাটকা উপদ্বীপের মধ্যে অবস্থানের কারণে, দ্বীপপুঞ্জগুলি বেশ কয়েকটি সামরিক ও রাজনৈতিক সুবিধা প্রদান করে।

তারা চিঠিতে লিখেছিল, ‘জাপানের জন্য, এখানে তার আধুনিক ভূ-রাজনীতির একটি ভিত্তিপ্রস্তর রয়েছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরাজয়কারী হিসেবে এটির মর্যাদা এখনও জাপানিদের একটি অফিসিয়াল সামরিক বাহিনী, একটি বিদেশী গোয়েন্দা পরিষেবা এবং অন্যান্য অনেক কিছু থেকে বাধা দেয়৷ অপরদিকে, মস্কোর জন্য, দ্বীপগুলি একটি দর কষাকষির চিপ।’

(ঢাকাটাইমস/২৯নভেম্বর/ এসএটি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :