রাজশাহী রেঞ্জে নতুন ডিআইজি

একজন জনমুখী পুলিশ কর্মকর্তা আনিসুর রহমান

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ১৬ জুলাই ২০২৩, ১৮:৫৭

পুলিশের রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি হয়েছেন মো. আনিসুর রহমান। বর্তমানে তিনি রাজশাহী মহানগরী পুলিশের (আরএমপি) পুলিশ কমিশনার হিসেবে কর্মরত আছেন। রবিবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

আনিসুর রহমান গত বছরের ১১ মে অতিরিক্ত ডিআইজি থেকে পদোন্নতি পেয়ে ডিআইজি হন। পরবর্তীতে তাকে সিআইডিতে পদায়ন করা হয়। একই বছরের ২২ ডিসেম্বর আনিসুর রহমানকে আরএমপির পুলিশ কমিশনার করা হয়। আরএমপিতে মাত্র সাড়ে সাত মাস দায়িত্ব পালনকালে তিনি মহানগরীর সাধারণ মানুষ ও থানায় সেবাপ্রত্যার্শীদের সঠিক সেবা দিয়ে ব্যাপক সুনাম কুড়িয়েছেন। দায়িত্ব পালনে ঈর্ষণীয় সাফলতা দেখিয়ে মানুষের কাছে আস্থার প্রতীক হয়ে উঠেছেন পুলিশের এই কর্মকর্তা। জনমুখী সেবা চালু করতে একের পর এক সাহসী ও সময়োপযোগী নির্দেশনা দিয়েছেন। সাহসিকতা, দক্ষতা আর সময়োপযোগী ও দূরদর্শী নেতৃত্বগুণ তাকে অসামান্য অবস্থান নিয়ে গেছে।

আনিসুর রহমান চ্যালেঞ্জ নিতে ভালোবাসেন। রাজশাহীতে মাদকবিরোধী অভিযান ছাড়াও সন্ত্রাসী, চোরাকারবারি, প্রতারকসহ বিভিন্ন অপরাধীকে আইনের আওতায় এনেছেন। চলতি বছরের মার্চে বর্তমান আরএমপি কমিশনারের নেওয়া পদক্ষেপে ৩৩ জন জঙ্গি সদস্য স্বাভাবিক জীবনে ফেরার নিশ্চয়তায় থানায় হাজিরা দেন। তারা স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার অঙ্গীকারও করেন।

এর আগে মার্চ মাসে শিক্ষার্থী ও স্থানীয়দের সংঘর্ষে রণক্ষেত্রে পরিণত হয় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি)। এতে (সংঘর্ষে) আরএমপির সাতজন পুলিশ সদস্য আহত হন। এরপরেও পুলিশ ধৈর্যসহ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ ও মোকাবিলা করে। মারমুখী কোনো অ্যাকশনে না গিয়ে কৌশলে নিয়ন্ত্রণ করা হয় গোটা পরিস্থিতি। যে দক্ষতার প্রশংসা এখন সেখানকার মানুষের মুখে মুখে।

কমিশনারের দূরদর্শিতায় অল্প কয়েকদিনেই শান্ত ক্যাম্পাসে ফিরতে শুরু করে শিক্ষার্থীরা। শুরু হয় ক্লাস-পরীক্ষাসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক কার্যক্রম। কোনো প্রাণহানির দিকে না গড়ানোর পেছনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখেন আরএমপি কমিশনার আনিসুর রহমান। তার ধৈর্যশীলতা, নেতৃত্বগুণ ও পেশাদারিত্বই এত বড় ঘটনাকে খুব দ্রুত শান্তিময় পরিসমাপ্তির দিকে নিয়ে যায়।

এছাড়া রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচনের আগে কাউন্সিলর প্রার্থীকে ইসি আহসান হাবিব পরিচয়ে টাকা চাওয়া হয়। এসময় বলা হয়- টাকা না দিলে ভোটের ফল পাল্টে দেওয়া হবে। আলোচিত এই ঘটনায় আরএমপি কমিশনার আনিসুর রহমানের দক্ষ নির্দেশনায় ১৩ জুন প্রতারক গিয়াস উদ্দিন কবিরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গোপালগঞ্জের সন্তান আনিসুর রহমান ১৯৯০ সালে যশোর বিএফ শাহীন স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে মানবিক বিভাগ থেকে এসএসসি পাস করেন। পরে ঢাকা কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর করেন। ২০তম বিসিএসে উত্তীর্ণ হয়ে ২০০১ সালে ৩১ মে বাংলাদেশ পুলিশে যোগদান করেন আনিসুর রহমান। ২০২১ সালের ২ মে পুলিশ সুপার থেকে পদোন্নতি পেয়ে অতিরিক্ত ডিআইজি হন তিনি। সেসময় তিনি ডিএমপির উপ-পুলিশ কমিশনার ছিলেন। ২০১৯ সালের ২৩ জুলাই ডিএমপির তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনারের দায়িত্ব পান আনিসুর রহমান। তিনি যশোর, নারায়ণগঞ্জ, নোয়াখালী ও শেরপুর জেলার পুলিশ সুপার হিসেবে দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেন।

২০১৪ সালে যশোরের পুলিশ সুপার হিসেবে যোগদান করে অভয়নগরের আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে আনেন আনিসুর রহমান। তিনি সংখ্যালঘুদের ওপর হামলাকে কঠোর হস্তে দমন করেন। যশোরের উড়ন্ত ছিনতাই বাহিনীকেও নিয়ন্ত্রণে আনেন। তার দায়িত্ব পালনকালে জেলায় ব্যাপক মাদক অস্ত্র উদ্ধার হয়েছিল।

ক্রীড়া ক্ষেত্রেও সুনাম আছে আনিসুর রহমানের। টেনিসে তার প্রিয় খেলা এবং তাতে তিনি খুবই পারদর্শী। গত বছর ডিএমপির আয়োজনে পুলিশ কমিশনার’স টেনিস টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেন। সেসময় তিনি ডিএমপির যুগ্ম পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম) ছিলেন। পুলিশে ভালো কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ আনিসুর রহমান দুইবার ‘বাংলাদেশ পুলিশ পদক- বিপিএম’ এবং দুইবার ‘রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক-পিপিএম’ পেয়েছেন। তার সহধর্মিণী অ্যাডভোকেট ফাতেমাতুজ্জহুরা শ্যামলী শেরপুরের সাবেক এমপি ছিলেন।

(ঢাকাটাইমস/১৬জুলাই/এসএস/কেএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

প্রশাসন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :