হাতিরঝিল থেকে অপহৃত দুই ব্যক্তি ঢাবির হল থেকে উদ্ধার

ঢাবি প্রতিনিধি, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৪:২৬ | প্রকাশিত : ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৪:১২

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হাজী মুহম্মদ মুহসীন হল থেকে তিনদিন আগে অপহরণ করা দুই ব্যক্তিকে উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় তিন শিক্ষার্থীকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) রাত ৯টার দিকে হলের ৫৪৪ নম্বর কক্ষ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল টিমের সহায়তায় শাহবাগ থানা পুলিশ ওই অপহৃত দুই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে। ওই দুই ব্যক্তি হলেন- মোহাম্মদ আব্দুল জলিল ও হেফাজ উদ্দিন।

ঘটনায় অভিযুক্তরা হলেন, ছাত্রলীগের ঢাবি শাখার সাবেক উপ-দপ্তর সম্পাদক ও ফিন্যান্স বিভাগের চতুর্থবর্ষের শিক্ষার্থী মোহাম্মদ আবুল হাসান সাইদি, ছাত্রলীগের মুহসীন হল শাখার প্রচার উপ-সম্পাদক ও ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের চতুর্থবর্ষের শিক্ষার্থী মোনতাছির হোসাইন এবং একই হলের ত্রাণ ও দুর্যোগ উপ-সম্পাদক আল শাহরিয়ার মাহমুদ তানসেন। এর মধ্যে মোনতাছির নিজেকে শাহাবুদ্দিনের আত্মীয় বলে দাবি করেন।

অভিযুক্তদের ভাষ্য, ব্যবসার জন্য জলিল শাহাবুদ্দিনের কাছ থেকে ৩৫ লাখ টাকা ধার নেন। তবে শাহাবুদ্দিন তার কাছে পাওনা টাকা ফেরত চাইলে তালবাহানা করতে থাকেন জলিল। এরই জেরে শাহাবুদ্দিন কয়েকজনকে সাথে নিয়ে জলিলকে তার হাতিরঝিল থানার হাজিপাড়ার বাসা থেকে অপহরণ করেন।

তবে ওই ব্যবসায়ী আব্দুল জলীল মুঠোফোনে ঢাকা টাইমসকে বলেন, একুশে ফেব্রুয়ারিতে গাড়ি লাগবে বলে তারা আমাকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর মহসীন হলে আমাকে আটকে রেখে ৩৫ লাখ টাকা দাবি করে। ওরা মুঠোফোন কেড়ে নেয়। আমার সাথে আরও এক চাকরিজীবী হেফাজ উদ্দিন নামের একজনকেও আটকে রেখেছিল।

আব্দুল জলীল বলেন, আমাদেরকে কখনও রড, কখনও গাছের ডাল, কখনও কোমড়ের বেল্ট দিয়ে পেটাতেন টাকার জন্য। তিনদিন পর আমাদেরকে হাতিরঝিল থানা পুলিশ, শাহবাগ থানা পুলিশ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্ট্রেরিয়াল টিমের লোকজন এসে উদ্ধার করে। আমাদেরকে ৫/৬ জন মিলে মারধর করত। তবে পুলিশ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে। এ বিষয়ে হাতিরঝিল থানায় মামলা চলমান রয়েছে।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড মো. মাকসুদুর রহমান বলেন, আমরা প্রথমে পুলিশের কাছ থেকে জানতে পারি মুহসীন হলের পাঁচতলায় আমাদের কয়েকজন ছাত্রের সহযোগিতায় দুইজনকে তুলে আনা হয়েছে। টাকা আদায়ের উদ্দেশে তাকে মারধরও করা হয়েছে। পরে শাহবাগ থানা ও হল প্রশাসনের সহযোগিতায় আমরা তাদের উদ্ধার করি।

হাতিঝিল থানার অফিসার ইনচার্জ শাহ মো. আওলাদ হোসেন ঢাকা টাইমসকে জানান, আটককৃতদের নামে মামলা চলমান।

(ঢাকাটাইমস/২৫ফেব্রুয়ারি/এএম/এসকে/জেডএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজধানী বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :