রাঙ্গাবালীতে রেমালের প্রভাব: নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধ

রাঙ্গাবালী, প্রতিনিধি, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ২৬ মে ২০২৪, ১৯:৪৮

ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালীর নদ-নদীতে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি উচ্চতায় প্রবাহিত হচ্ছে জোয়ারের পানি। বেড়েছে ৪ থেকে ৫ ফুট। ফলে কোথাও ভাঙা বাঁধ ভেঙে আবার কোথাও বাঁধ উপচে জোয়ারের পানি ঢুকে পড়েছে লোকালয়ে। প্লাবিত হয়েছে নিচু এলাকাগুলো। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কয়েকটি এলাকার বেড়িবাঁধ।

রবিবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত নদ-নদীতে জোয়ারের পানি প্রবাহিত হয়। এই সময় ভাঙা বাঁধ দিয়ে জোয়ারের পানি ঢুকে উপজেলার চালিতাবুনিয়া ইউনিয়নের মধ্য চালিতাবুনিয়া, বিবির হাওলা, চিনাবুনিয়া ও গরু ভাঙা গ্রাম প্লাবিত হয়।

এর আগে চরমোন্তাজ ইউনিয়নের চর আন্ডা গ্রামে জোয়ারের পানি প্রবেশ করেছে।

এ ইউনিয়নের বউবাজার, দক্ষিণ চরমোন্তাজ, হিন্দু গ্রাম, মিটার বাজার ও নয়ারচর এলাক জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়। এছাড়া উপজেলার বিস্তীর্ণ নিচু এলাকা এবং বেড়িবাঁধের বাহিরের এলাকাগুলোও প্লাবিত হয়েছে। এর মধ্যে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের বাহিরে উপজেলার ছোট বাইশদিয়া ইউনিয়নের কোড়ালিয়া, চর নজির ও চর কাউখালী, চরমোন্তাজ ইউনিয়নের মোল্লা গ্রাম, সদর ইউনিয়নের চর কাশেম, চর যমুনা ও চর কানকুনি প্লাবিত হয়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে এসব এলাকার হাজার হাজার মানুষ। তবে দুপুর ২টার পর নদ-নদীতে ভাটা শুরু হওয়ায় পানি কমতে থাকে ওইসব এলাকা থেকে।

কিন্তু রাতের জোয়ারে আবারও গ্রামগুলো প্লাবিত হওয়ার শঙ্কা প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা।

তাদের ভাষ্যমতে, নতুন করে কয়েকটি এলাকার বেড়িবাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে চরমোন্তাজ ইউনিয়নের দক্ষিণ চর মোন্তাজ, চর আন্ডা এবং চালিতাবুনিয়া ইউনিয়নের কয়েকটি পয়েন্ট।

মৎস্য বিভাগের প্রাথমিক তথ্যমতে, উপজেলার প্রায় এক হাজার পুকুর ও ঘেরের মাছ পানিতে ভেসে গেছে। এতে মৎস্য চাষীদের প্রায় তিন কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, চরমোন্তাজের চর আন্ডা এবং দক্ষিণ চরমোন্তাজ এলাকায় নতুন করে বাঁধ ভেঙে পানি ঢুকেছে। চালিতাবুনিয়ায় ভাঙা বাঁধ দিয়ে পানি ঢুকেছে। নতুন করে সে এলাকায় বাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বিভিন্ন এলাকার লোকালয়ে পানি ঢুকে পড়ায় পুকুর ও ঘেরের মাছ পানিতে ভেসে গেছে।

তিনি আরও বলেন, উপজেলার বিভিন্ন এলাকার আশ্রয়কেন্দ্রে পাঁচ হাজার মানুষ আশ্রয় নিয়েছে। রাতে সেই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

(ঢাকাটাইমস/২৬মে/প্রতিনিধি/পিএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

সারাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সারাদেশ এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :