যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে মাদক বিক্রি

যশোর প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৪ মার্চ ২০১৯, ১৩:৩৯

যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারার ভেতরে চলছে রমরমা মাদক কারবার। ফেনসিডিল, ইয়াবা ও গাঁজাসহ প্রায় সব ধরণের মাদক দ্রব্য কেনাবেচা হয় সেখানে। অনেকটা প্রকাশ্যেই মাদকবিক্রি হলেও কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না কারা কর্তৃপক্ষ। সদ্য কারামুক্ত আসামি ও স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।

সরেজামিনে জানা যায়, সুফিয়ান নামে এক কয়েদী কারাগারে মাদক বিক্রি করে আসছেন। যার কয়েদী নং ২৫০৯। কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করেই এসব মাদক দ্রব্য বিক্রি হয় বলে অভিযোগ রয়েছে।

এই কারাগারে বিপুল সংখ্যক মাদকসেবী রয়েছেন। এসব মাদকসেবীরা বাড়ি থেকে টাকা নিয়ে এসে মাদকদ্রব্য সেবন করছেন নির্ভয়ে। এখানে বাধা দেয়ার তেমন কেউ নেই। ফলে মাদক সেবনের নিরাপদ স্থানে পরিণত হয়েছে যশোর কেন্দ্রীয় কারাগার।

কারাগারে বসেই মাদক বিক্রি করছে সুফিয়ান। আর এই মাদক বিক্রেতাকে আশ্রয় দিচ্ছেন কিছু অসাধু কারারক্ষী। গাঁজার চেয়ে ইয়াবা বিক্রি হচ্ছে বেশি। তিন পিস ইয়াবা এখানে ৮০০ টাকায় পাওয়া যায়। দুই পিস ৬০০ টাকা। আর কারাগারে ইয়াবার চালান আসছে কারারক্ষীদের মাধ্যমে। কারাগার যেন ইয়াবার কারখানা।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে সদ্য জামিনে আসা কয়েকজন আসামির সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রতিদিন জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে অপরাধীরা কারাগারে আসেন। কারাগারের ভেতরে বেশিরভাগই মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারী। সেবনকারীরা এখানে হাত বাড়লে মাদক পাচ্ছেন। বাইরে থেকে ভেতরে সহজেই মাদক পাচ্ছে। ফলে যখন খুশি তখন সেবন করতে পারছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক কারারক্ষী বলেন, কারাগারের ভেতরে রাজনৈতিক আসামির  চেয়ে মাদক বিক্রেতা ও সন্ত্রাসীর সংখ্যা বেশি। এসব কয়েদিকে যারা দেখতে আসেন, তারাও মাদকের সঙ্গে জড়িত। কারাগারে ইয়াবার সয়লাব হয়ে গেছে। 

এ বিষয়ে যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার আবু তালেব বলেন, কারাগারের ভেতরে মাদক বেচাকেনার কোনো সুযোগ নেই। করাগারে অনেক মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারী আছে। তারা মাদক বেচাকেনার চেষ্টা করেন। কিন্তু তারা কোনো প্রকার সুযোগ পায় না।

ঢাকাটাইমস/০৪মার্চ/ওআর

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :